website page counter ২০০০ স্কুল কলেজ মাদ্রাসা এমপিও পাচ্ছে – শিক্ষাবার্তা

বুধবার, ২২ মে ২০১৯, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬

২০০০ স্কুল কলেজ মাদ্রাসা এমপিও পাচ্ছে

নিউজ ডেস্ক।।

সরকার স্বীকৃত বেসরকারী স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসা এমপিও’র (মান্থলি পেমেন্ট অর্ডার) দীর্ঘ দিনের দাবি পূরণ হতে চলেছে। তবে এমপিও পাবে নীতিমালা অনুসারে পরিচালিত যোগ্য প্রতিষ্ঠানই। নতুন করে এমপিও পেতে পারে প্রায় দুই হাজার বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। যাতে সরকারের ব্যয় হবে দেড় হাজার কোটি টাকারও বেশি। জানা গেছে, প্রায় ১০ হাজার শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিও’র জন্য আবেদন করলেও তাদের মধ্যে যোগ্য প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা খুব বেশি নেই। এমপিও’র জন্য প্রযোজ্য চার শর্ত পূরণ করতে পেরেছে মাত্র এক হাজার ৫২৯ প্রতিষ্ঠান। তবে আরও কিছু প্রতিষ্ঠানকে বিবেচনায় এনে দীর্ঘ ৮ বছর পর খুলছে এমপিও’র দ্বার।

২০১০ সালের পর গত ৮ বছরে এমপিওভুক্ত হয়নি কোন বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। অথচ এই সময়ে ৭ হাজারেরও বেশি বেসরকারী স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। ২০১০ সালের আগে একাডেমিক স্বীকৃতি পাওয়া নন-এমপিও প্রতিষ্ঠানও আছে প্রায় তিন হাজার। সব মিলিয়ে ১০ হাজারেরও বেশি সরকার স্বীকৃত প্রতিষ্ঠান আছে এমপিওর অপেক্ষায়। এসব প্রতিষ্ঠানের কয়েক লাখ শিক্ষক কর্মচারী বছরের পর বছর ধরে অপেক্ষা করছেন এমপিও’র জন্য। ২০১১ সাল থেকেই চলছে এমপিও’র দাবির আন্দোলন। বিভিন্ন সময় সংসদ সদস্যরাও নিজ এলাকার প্রতিষ্ঠান এমপিও’র জন্য একই দাবিতে সোচ্চার হয়েছেন। তবে শিক্ষামন্ত্রী ডাঃ দীপু মনিসহ মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা বলছেন, এবার এমপিও নিয়ে অপেক্ষার অবসান হচ্ছে।

আগামী এক মাসের মধ্যেই নতুন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির ঘোষণা দেয়া সম্ভব হবে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডাঃ দীপু মনি। বুধবার (১০ এপ্রিল) দুপুরে সচিবালয়ে মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে শিক্ষাবিষয়ক রিপোর্টারদের সঙ্গে মতবিনিময়ের সময় তিনি এ কথা জানান।

শিক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, যোগ্য হিসেবে বাছাই করা হয়েছে আড়াই হাজারের কিছু বেশি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। তবে বাজেট বরাদ্দ অনুযায়ী তালিকার শীর্ষে থাকা এক হাজার ৫২৯ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে নতুন করে এমপিওভুক্ত করা সম্ভব হবে।

শিক্ষামন্ত্রী ডাঃ দীপু মনি বলেছেন, আগামী এক মাসের মধ্যেই নতুন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির ঘোষণা দিতে পারব বলে আমরা আশা করছি। আমরা প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছি। অনেক দিন ধরেই শিক্ষক-কর্মচারীরা এমপিওভুক্তির জন্য আন্দোলন করছেন। তাদের বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে আমরা অনেক আগেই কাজ শুরু করেছি।

এমপিওভুক্তির জন্য চারটি ক্যাটাগরিতে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো থেকে আবেদন নেয়া হয়েছে। আবেদনে দেয়া তথ্য অনুযায়ী প্রায় আড়াই হাজার শিক্ষা প্রতিষ্ঠান তালিকাভুক্ত করা হয়। প্রতিষ্ঠানগুলো থেকে যেসব তথ্য দেয়া হয়েছে আমরা তা যাচাই-বাছাই করব। আর যারা যোগ্যতায় টেকেনি, তাদের উৎসাহিত করব যোগ্যতা অর্জনের। তাদেরও পরবর্তী পর্যায়ে এমপিওভুক্ত করা হবে। শিক্ষামন্ত্রী জানিয়ে রেখেছেন, একসঙ্গে সব যোগ্য প্রতিষ্ঠানকে না দিলে বা যোগ্য একটি প্রতিষ্ঠানকে বাদ দিয়ে অন্যটি পেলে এ নিয়ে সমস্যা সৃষ্টি হবে। এ কারণেই সব যোগ্য প্রতিষ্ঠানকে একইসঙ্গে এমপিওভুক্তির চেষ্টা করা হবে। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট শাখার কর্মকর্তারা বলছেন, এখন পর্যন্ত শতভাগ নিশ্চিত না হলেও প্রায় দুই হাজার প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত করার চিন্তাভাবনা নিয়ে কাজ চলছে।

তবে সমস্যা হচ্ছে কয়েক হাজার প্রতিষ্ঠান এমপিওর অপেক্ষায় থাকলেও এমপিওর যোগ্যতা পূরণ করতে পারছে না অধিকাংশ প্রতিষ্ঠানই। ফলে অর্থ সঙ্কটের বাইরেও প্রতিষ্ঠানের অযোগ্যতাও এমপিওর পথে একটি বড় বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে। যোগ্য এক হাজার ৫২৯ প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে আরও কিছু ভাল মানের প্রতিষ্ঠানকে যুক্ত করে এমপিও ঘোষণা করার চিন্তাভাবনা চলছে।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের অতিরিক্ত সচিব জাবেদ আহমেদ বলেছেন, মোট এক হাজার ৫২৯ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে এমপিওভুক্ত করা হবে। বাজেটের পর এসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-কর্মচারীরা অনলাইনে আবেদন করে এমপিওভুক্ত হবেন এবং নিয়মিত সরকারী বেতনভাতার অংশ পাবেন।

জানা গেছে, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-কর্মচারীদের বেতনভাতা বাবদ এক হাজার ২৮ কোটি টাকা চাওয়া হয়েছে। এর মধ্যে স্কুল এবং কলেজের জন্য মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগ থেকে চাওয়া হয়েছে ৭৪৯ কোটি টাকা। বাকি টাকা মাদ্রাসা এমপিওভুক্ত করার জন্য চাওয়া হয়েছে।

বর্তমানে দেশে এমপিওভুক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আছে ২৭ হাজার ৮১০। এসব প্রতিষ্ঠানে শিক্ষক-কর্মচারীর সংখ্যা প্রায় ৫ লাখ। প্রতি মাসে এদের বেতনভাতা বাবদ সরকারের খরচ হয় ৯৪২ কোটি টাকা। এমপিওভুক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে কিছু প্রতিষ্ঠান সরকারী করার প্রক্রিয়ায় আছে।

এই বিভাগের আরও খবর