website page counter মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস সম্প‌র্কে যা বল‌লেন বা‌গেরহা‌টের জেলা প্রশাসক – শিক্ষাবার্তা

বৃহস্পতিবার, ২০ জুন ২০১৯, ৬ আষাঢ় ১৪২৬

মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস সম্প‌র্কে যা বল‌লেন বা‌গেরহা‌টের জেলা প্রশাসক

‌মোঃ মোজা‌হিদুর রহমান।।

অগ্নিঝরা মার্চের অগ্নিদৃপ্ত প্রত্যয় নিয়ে জলে, স্থলে, অন্তরীক্ষে উন্নয়নের বিজয় নিশানা উড়িয়ে মহাকাশে বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইটের সফল উৎক্ষেপণের বিজয় উল্লাসে পলাশ, অশোক, শিমুল বনে জ্বলে উঠা রক্ত প্রদীপ শিখা বুকে মেখে পুষ্পরেণু গন্ধমাখা চঞ্চল দক্ষিণ সমীরণে ভেসে ভেসে আবার এসেছে বাঙ্গালীর হাজার বছরের পরাধীনতার শৃঙখল মুক্তির চির আকাঙ্খিত, চির প্রত্যাশিত দিবস অগ্নিঝরা ২৬ মার্চ-বাঙ্গালীর মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস-২০১৯। মানব সভ্যতার সুদীর্ঘ ইতিহাসে অভূতপূর্ব গৌরবোজ্জ্বল সভ্যতা, সংস্কৃতির ধ্বজাধারী অদম্য আত্মপ্রত্যয়ী বাঙ্গালী জাতির হাজার বছরের সর্বোচ্চ গৌরবোজ্জ্বল কীর্তিগাঁথা হচ্ছে তার মহান মুক্তি সংগ্রাম এবং সর্বোচ্চ অর্জন হচ্ছে এই মুক্তি সংগ্রামের মাধ্যমে অর্জিত স্বাধীনতা। বিশ্বের অন্য কোথাও যখন সভ্যতা, সংস্কৃতির কোন নিদর্শন স্থাপিত হয়নি, তখন এই বাঙ্গালী জাতির সুনিপুণ হাতের স্পর্শে পদ্মা, মেঘনা, যমুনা সহ হাজার নদীবিধৌত এই গাঙ্গেয় ব-দ্বীপে গড়ে উঠেছে সভ্যতা, সংস্কৃতির অপূর্ব তীর্থভূমি।

 

কিন্তু নিয়তির নির্মম পরিহাস, এই বাঙ্গালী জাতি কালের পর কাল ধরে ভীনদেশী শাসক কর্তৃক নিপীড়িত হয়েছে, নিগৃহীত হয়েছে, পরাধীন থেকেছে। বাঙ্গালীর এই পরাধীনতা পর্বের সর্বশেষ অধ্যায়টি ছিল ১৯৪৭ থেকে ১৯৭১ সাল পর্যন্ত । সম্প্রদায়গত পরিচিতির মধ্যে জাতিসত্তার ভ্রান্ত পরিচিতি আবিষ্কার  করে ভ্রান্ত দ্বিজাতি তত্ত্বের ভিত্তিতে ১৯৪৭ সালে পাকিস্তান নামক উদ্ভট রাষ্ট্রটি সৃষ্টির পর হতেই বাঙ্গালীর উপর অবর্ণনীয় নিপীড়ন, নির্যাতন, দু:শাসন আর বৈষম্য নেমে আসে। বাঙ্গালীর প্রাণপ্রিয় মাতৃভাষা বর্বর, দানবীয়, অসংস্কৃত পাকিস্তানী শাসক গোষ্ঠী কর্তৃক অমার্জনীয় অবহেলা, অবমাননা ও উপেক্ষার শিকারে পরিণত হলে বাঙ্গালীর সুপ্ত জাতিসত্তা জাগরিত হয়ে প্রচণ্ড নিনাদে গর্জে উঠে। সম্প্রদায়গত পরিচিতির মধ্যে আবিষ্কৃত জাতিসত্তার ভ্রান্ত পরিচিতি উড়ে গিয়ে নৃতত্ত্ব, ভাষা, সংস্কৃতির ভিত্তিতে বিনির্মিত বাঙ্গালীর হাজার বছরের গৌরবোজ্জ্বল জাতিসত্তা জ্বলন্ত ভিসুভিয়াসের অগ্নিশিখার ন্যায় তার চেতনায় প্রজ্জ্বলিত হয়ে ওঠে।

 

যিনি বাঙ্গালীর শিরায় শিরায়, ধমনীতে, চেতনার রন্ধ্রে রন্ধ্রে এই সুপ্ত জাতিসত্তার জাগরণ ঘটিয়ে ধর্ম, বর্ণ, শ্রেণী নির্বিশেষে সমগ্র বাঙ্গালীকে জাতিসত্তার অটুট বন্ধনে আবদ্ধ করে তাকে অভূতপূর্ব মুক্তিমন্ত্রে দীক্ষিত করে তোলেন, তিনি ইতিহাসের মহানায়ক, স্বাধীনতার মহান স্থপতি, সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। তাঁর গগনবিদারী বজ্রকঠিন কণ্ঠে উচ্চারিত মুক্তিমন্ত্রের ঐন্দ্রজালিক কাব্যিক আহবান ‘‘এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম’’ (যা ইউনেস্কো কর্তৃক World Documentary Heritage হিসেবে স্বীকৃত) বাংলার আকাশ, বাতাস, অরণ্য, পর্বত প্রকম্পিত করে প্রতিটি বাঙ্গালীকে এক অদম্য মুক্তি লিপ্সায় সম্মোহিত করে তোলে। দীর্ঘ নয় মাস সাড়ে সাত কোটি বাঙ্গালীর অপরিমেয় ত্যাগ, তিতিক্ষা, জীবনমৃত্যুকে পায়ের ভৃত্য করে জাতির সূর্য সন্তান বীর মুক্তিযোদ্ধাদের অকুতোভয় সংগ্রাম, ত্রিশ লাখ শহীদের আত্মদান আর দু’লাখ মা বোনের সম্ভ্রম হানির বিনিময়ে বিশ্বের স্বাধীনতার ইতিহাসে নজিরবিহীন চড়া মূল্যের মাধ্যমে অর্জিত হয় আমাদের স্বাধীনতা সংগ্রামের চূড়ান্ত বিজয়।

 

সদ্য স্বাধীনতালব্ধ যে বাংলাদেশকে এক সময় তলাবিহীন ঝুঁড়ি হিসেবে উপহাস করা হয়েছিল, দুর্ভিক্ষ, বন্যা, খরা, মহামারীর দেশ নামে যার পরিচিতি ছিল বিশ্ব মাঝে, সেই বাংলাদেশ মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সুযোগ্য, বলিষ্ঠ এবং প্রজ্ঞাপূর্ণ নেতৃত্বে আজ এক দৃষ্টান্তমূলক উন্নয়নের রোল মডেল হিসেবে বিশ্ব দরবারে স্বীকৃতি ও সুখ্যাতি অর্জন করেছে। আসুন, আমরা  সমাজ ও রাষ্ট্রের প্রতিটি ক্ষেত্রে মুক্তিযুদ্ধের প্রকৃত আদর্শ ও চেতনা যথাযথভাবে সঞ্চালিত করে ‘রূপকল্প-২০২১’, রূপকল্প-২০৪১’ এবং শতবর্ষী ডেল্টা প্ল্যান (ব-দ্বীপ পরিকল্পনা) বাস্তবায়নের মাধ্যমে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে একটি ক্ষুধামুক্ত, দারিদ্রমুক্ত, অশিক্ষা, কুশিক্ষা, জঙ্গীবাদ, সন্ত্রাসবাদ, সাম্প্রদায়িকতা মুক্ত বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মাণে দৃঢ়ভাবে অঙ্গীকারাবদ্ধ হই।

 

মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবসের এই মাহেন্দ্রক্ষণে আত্মোৎসর্গীকৃত সকল বীর শহীদ এবং মহান মুক্তি সংগ্রামে যারা বিভিন্নভাবে অবদান রেখেছেন, তাদের প্রতি জ্ঞাপন করছি বিনম্র শ্রদ্ধা ও অভিবাদন । বাগেরহাট জেলায় বিপুল উৎসাহ উদ্দীপনা ও বর্ণিল, বর্নাঢ্য আয়োজনে মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস-২০১৯ উদযাপিত হয়েছে।

 

মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস-২০১৯ এর এ শুভলগ্নে সকলের প্রতি জানাই প্রাণঢালা অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা।

এই বিভাগের আরও খবর