website page counter বেসরকারি শিক্ষকদের বদলি প্রসঙ্গ - শিক্ষাবার্তা ডট কম

বুধবার, ২০শে নভেম্বর, ২০১৯ ইং, ৫ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

বেসরকারি শিক্ষকদের বদলি প্রসঙ্গ

 মো. রহমত উল্লাহ্।।

নিয়োজিত কর্মীদের সুবিধা-অসুবিধা বিবেচনা করে প্রতিটি প্রতিষ্ঠানেই বদলি ব্যবস্থা বিদ্যমান। এই বিধানের আওতায় একই প্রতিষ্ঠানের কর্মীরা এক স্থান বা অফিস থেকে অন্যস্থানে বা অফিসে ইচ্ছায়-অনিচ্ছায় বদলি হয়ে থাকেন। এই বদলি নিয়ে প্রতিষ্ঠানের থাকে অনেক কাজ, কর্মীদের থাকে অনেক সন্তোষ-অসন্তোষ, থাকে অনেক তদ্বির এবং আরো অনেক অনেক না-বলা কথা। তথাপি বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি ও প্রাইভেট প্রতিষ্ঠানে বিদ্যমান বদলি ব্যবস্থা। কেননা, নিজের সুবিধাজনক স্থানে বদলির সুযোগ পাওয়া কর্মীর অধিকার এবং প্রতিষ্ঠানের প্রয়োজনে বা সুবিধার্থে কর্মীকে বদলি করা প্রতিষ্ঠানের ক্ষমতা। অথচ বেসরকারি শিক্ষকদের এমন বদলির কোনো সুযোগ নেই। তাই বদলির সুযোগ চেয়ে আন্দোলন করছেন বেশ কিছু এমপিওভুক্ত বেসরকারি শিক্ষক। ভুক্তভোগী শিক্ষক-কর্মচারীদের কষ্ট লাঘব ও প্রতিষ্ঠানভিত্তিক শিক্ষার মানোন্নয়ন—এ দুটি বিষয় বিবেচনায় রেখে যথাশিগিগর সম্ভব সুষ্ঠু বদলি বিধি প্রণয়ন করে তা বাস্তবায়ন করা উচিত।

বিশ্লেষণ করা প্রয়োজন, আমাদের বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসমূহের বিদ্যমান অবস্থায় এক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান থেকে অন্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষক-কর্মচারী বদলির বিধানটি কেমন হলে ভালো হবে? যেখানে একটি প্রতিষ্ঠান থেকে অন্য একটি প্রতিষ্ঠান সম্পূর্ণ আলাদা, পরিচালনা কমিটি আলাদা, কর্মরত শিক্ষক-কর্মচারীদের প্রতিষ্ঠান অংশের আর্থিক-অনার্থিক সুবিধাদি আলাদা, নিয়োগের শর্ত কম-বেশি আলাদা এবং নিয়োগকর্তাও আলাদা। সরকারি কিছু বিধিবিধান মেনে বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান পরিচালিত হলেও শিক্ষক-কর্মচারীদের নিয়োগ, পদোন্নতি, পদাবনতি, শাস্তি, বরখাস্ত, অবসর ইত্যাদি কার্যকর করার ক্ষমতা কিন্তু সংশ্লিষ্ট পরিচালনা কমিটির হাতেই। অপরদিকে সরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-কর্মচারীদের নিয়োগকর্তা সরকার। সব প্রতিষ্ঠানের বেতন, ভাতা, সিপিএফ ও অন্যান্য সুবিধা সমান। পদোন্নতি ব্যবস্থা কেন্দ্রীয়। তাই সেখানে এক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান থেকে অন্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে বদলি কার্যকর করা সম্ভব। তবুও বাস্তবায়ন হচ্ছে না তিন বছর পরপর বদলির সেই বিধান।

বেসরকারি একেক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের তহবিল ও সুযোগ সুবিধা একেক রকম বিধায় এখানে শিক্ষক-কর্মচারীদের বদলির সুযোগ দেওয়া হলে কেউ কেউ যেমন নিজের এলাকায় অবস্থিত ভালো প্রতিষ্ঠানে যেতে চাইবেন তেমনি অধিকাংশই অধিক সুযোগ সুবিধা বিদ্যমান ও শহরে/অনুকূলে অবস্থিত প্রতিষ্ঠানে যাওয়ার জন্য তদ্বির করবেন। একটা পদের বিপরীতে আবেদন আসবে হাজারটা। কোন বিবেচনায় গ্রহণ করা হবে কার একটি আবেদন, আর বাদ দেওয়া হবে বাকি সব? তখন হয়তো সেখানে হবে হাজারো অনিয়ম। শুরু হবে ধাক্কাধাক্কি ও ক্ষমতার অপব্যবহার। আবার কাউকে ফোর্স ট্রান্সফার দেওয়া হলে সে দায়ের করবে রিট। বলবে, আমি যে প্রতিষ্ঠানে চাকরি নিয়েছি সেই প্রতিষ্ঠানেই থাকব। নিয়োগের সময় আমাকে বদলি করা হবে এমন কোনো শর্ত ছিল না।

এসব বাস্তব অবস্থার ওপর দাঁড়িয়ে বেসরকারি শিক্ষক-কর্মচারীদের বদলির জন্য সর্বজন গৃহীত একটি সুষ্ঠু বিধিমালা প্রণয়ন ও বাস্তবায়ন করা বর্তমানে প্রায় অসম্ভব। অবশ্য যখন সব বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-কর্মচারীদের শতভাগ বেতন, ভাতা, বোনাস ও অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা সরকার প্রদান করবে এবং পরিচালনা কমিটির ক্ষমতা আরো হ্রাস করবে তখন বিষয়টি এত বেশি জটিল থাকবে না।

বর্তমানে বাধ্যতামূলক বদলির (ফোর্স ট্রান্সফারের) সুযোগ দেওয়া হলে অধিক সচ্ছল ও সুবিধাজনক প্রতিষ্ঠানে যাওয়ার জন্য অধিকাংশ শিক্ষকের মধ্যে শুরু হবে অসুস্থ প্রতিযোগিতা। ফলে বেড়ে যেতে পারে অসত্ শিক্ষা কর্মকর্তাদের অবৈধ আয়। শুরু হতে পারে ক্ষমতার অপব্যবহার। অধিক যোগ্য, দক্ষ ও নিরীহদের হটিয়ে ভালো প্রতিষ্ঠানে চলে আসতে পারে তুলনামূলক কম যোগ্যরা বা সরকার দলীয়রা। তখন হয়তো বার বার বদলি হওয়ার জন্য বা বদলি ঠেকাবার জন্য আমলা, মন্ত্রী, নেতাদের কাছে ছুটতে থাকবেন শিক্ষকগণ। আর সারা বছর যদি চলমান থাকে এইরূপ অশান্তি, তো নিশ্চয়ই অনুমান করা যায় কেমন হবে প্রতিষ্ঠানিক শিক্ষার মান। এমতাবস্থায় এমপিওভুক্ত সব বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ন্যূনতম মান, শিক্ষক-কর্মচারীদের শতভাগ বেতন, ভাতা, বোনাস ও অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত না করে ফোর্স ট্রান্সফারের সুযোগ দেওয়া যুক্তিযুক্ত নয়।

তবে বর্তমান বা বিদ্যমান অবস্থায়ও নিম্নরূপ নীতিমালা প্রণয়ন করে অতি সহজেই বেসরকারি শিক্ষকদের দেওয়া যেতে পারে দুই ধরনের বদলির সুযোগ।

(ক) পারস্পরিক বদলি, (মিউচুয়াল ট্রান্সফার): সমজাতীয় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে সমপদে ও একই বিষয়ে কর্মরত ইনডেক্সধারী শিক্ষকগণ যথাযথ কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে এনটিআরসিএ-এর বরাবরে যে কোনো সময় আবেদন করে পারস্পরিক বদলি (মিউচুয়াল ট্রান্সফার) নিতে পারবে।

খ) স্বেচ্ছায় বদলি (উইলিং ট্রান্সফার): বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে বিদ্যমান শূন্য আসনে নতুন নিয়োগের আগে স্বেচ্ছায় বদলির আবেদন চেয়ে এনটিআরসিএ প্রয়োজনমতো বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করবে। বিজ্ঞপ্তি অনুসারে সমজাতীয় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে সম-পদে ও একই বিষয়ে কর্মরত ইনডেক্সধারী আগ্রহী শিক্ষকগণ যথাযথ কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে অনলাইনে চয়েজ দিয়ে আবেদন করতে করবেন। তবে কোনো প্রতিষ্ঠানে কারো চাকরি নিরবিচ্ছিন্ন ও সন্তোষজনকভাবে পাঁচ বছর পূর্ণ না হলে তিনি বদলির বা পুনঃবদলির আবেদন করতে পারবেন না। একই প্রতিষ্ঠানের একই বিষয়ে ও পদে একাধিক আবেদনকারীর মধ্যে শিক্ষাগত যোগ্যতা, অভিজ্ঞতা, প্রশিক্ষণ, সহশিক্ষা ইত্যাদি (জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহে শ্রেষ্ঠ শিক্ষক নির্বাচনের নীতি অনুসারে) বিবেচনা করে অধিক পয়েন্ট প্রাপ্ত শিক্ষক অগ্রাধিকার ভিত্তিতে বদলির সুযোগ পাবেন। এভাবে বদলি কার্যকর হওয়ার পর যেসব প্রতিষ্ঠানে শূন্য আসন সৃষ্টি হবে সেগুলোতে বিধিমোতাবেক নতুন নিয়োগ প্রদান করা হবে।

আগ্রহী ভুক্তভোগী শিক্ষকদের সুবিধার্থে এই দুই ধরনের বদলির সুযোগ দেওয়া হলে যেহেতু অনিয়ম ও অশান্তির সম্ভাবনা তুলনামূলক কম থাকে এবং ভালো শিক্ষকগণের ভালো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে যাওয়ার সুযোগ বা সম্ভাবনা বেশি থাকে, সেহেতু এই বিষয়টি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ বিশেষভাবে বিবেচনা করবেন আশাকরি।

  লেখক: অধ্যক্ষ, কিশলয় বালিকা বিদ্যালয় ও কলেজ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা।

এই বিভাগের আরও খবরঃ