website page counter কেন বই পড়বো? - শিক্ষাবার্তা ডট কম

সোমবার, ১৮ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং, ৩রা অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

কেন বই পড়বো?

সিয়াম আহমেদ, ঢাবি শিক্ষার্থী।।

প্রযুক্তির এক অপার কল্যাণময় সময়ে বসবাস করছি আমরা। বিজ্ঞানের আশির্বাদে আমাদের হাতে হাতে স্মার্টফোন। আমাদের চিন্তা চেতনা সবকিছু আটকে গেছে চারকোণা স্মার্ট বক্সে। ফলে আমাদের মানসিক বিকাশ ও আত্মোন্নয়ন বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। এরকম পরিস্থিতিতে স্মার্টফোন এবং ফেসবুকে অযথা সময় অপচয় না করে বই পড়ার মাধ্যমে জীবনযুদ্ধে নিজেকে আরো একধাপ সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়াটাই কার্যকরী সমাধান।

আমরা কেন বই পড়বো? কেনই-বা নিজের পকেটের টাকা খরচ করে অন্যের লেখা বই কিনবো?? উত্তরটা বিস্তৃত এবং সুদৃঢ়। মানব সভ্যতার এক শ্বাসত ও চীর কল্যাণময় উপাদান হচ্ছে বই। একটি বইয়ের প্রভাব এতই ব্যাপক যে, একটি ভাল বই একজন মূর্খ অন্ধকারাচ্ছন্ন বর্বরকেও মানবিক গুণসম্পন্ন একজন আদর্শ মানুষে রূপান্তরিত করতে পারে।

বই পড়ার অসংখ্য ভালো দিক রয়েছে। মানুষ যখন কোন বই পড়ে তখন তার গল্প বা কাহিনীর প্রেক্ষাপটে এমন ভাবে ঢুকে পরে যে, তার কাছে মনে হয় বইয়ে বলা ঘটনাগুলো যেন তার সামনেই ঘটছে….. বই পড়তে পড়তে কাহিনীর প্রেক্ষিতে মানুষের মস্তিষ্ক উত্তেজিত ও শিথিল হয়। এভাবে মস্তিষ্ক চারপাশের প্রতিদিনের মানসিক চাপ থেকে অনেকাংশে মুক্তি লাভ করে। বিজ্ঞানীরা হার্টবিট এবং মাসল টেনশনের মনিটরিং করে দেখেছেন, ছয় মিনিট বই পড়লে স্টেস লেভেল ৬৮ শতাংশ পর্যন্ত কমে যায়। অবিশ্বাস্য হলেও সত্য যে, গবেষণায় দেখা গেছে নিয়মিত বই পড়ার অভ্যাস Dementia এবং Alzheimer’s নামক দুটি মানসিক রোগ প্রতিরোধে অনেকাংশেই সক্ষম।

পৃথিবীতে যত সফল ব্যক্তি রয়েছেন। আমরা যাদেরকে নিজেদের জীবনের আইডল মনে করি, তাদের সকলের মধ্যে একটি ব্যপার খুব কমন ছিল। সেটি হচ্ছে বই পড়া। আপনি কি জানেন ওয়ারেন বাফেট তার পেশা জীবনের শুরুতে প্রতিদিন ৬০০-১০০০ পৃষ্ঠা বই পড়তেন। মাইক্রোসফটের প্রতিষ্ঠাতা বিল গেইটস প্রতিবছর ৫০টি বই শেষ করতেন। তারা সফল হওয়ার পরও তাদের এই বই পড়ার অভ্যাস অব্যাহত রেখেছেন।

বই পড়ার সবচেয়ে বড় ও মুখ্য উপকারিতাটি হচ্ছে জ্ঞান অর্জন। নিত্য নতুন বই পড়ার মাধ্যমে আমরা নিজেদের জানার পরিধিকে আরো বৃদ্ধি করতে পারি। দেশি-বিদেশি লেখকদের নানান বই পড়ে আমরা নিজেদের সভ্যতা, সংস্কৃতি, ইতিহাস, স্বাধীনতার পাশাপাশি বিজাতীদের সাহিত্য সংস্কৃতি ও ইতিহাস সম্পর্কে জ্ঞান অর্জন করতে পারি। যার ফলে আমাদের চিন্তা, চেতনা এবং দৃষ্টিভঙ্গির প্রসার ঘটবে এবং বৈশ্বিক পরিমন্ডলে আমাদের গ্রহণযোগ্যতা বাড়বে।

বই পড়ার মাধ্যমে স্মৃতি শক্তি বৃদ্ধি পায়। শব্দভাণ্ডার সমৃদ্ধ হয়। একজন পাঠক যখন বই পড়ে তখন তার স্মৃতি ভান্ডারে অসংখ্য নতুন শব্দ যোগ হয়। যার ফলে সে সঠিক ভাবে মানুষের সাথে যোগাযোগ স্থাপন করতে এবং নিজের মতামত প্রকাশ করতে পারে। এছাড়াও বই পড়ার সময় গল্পের খাতিরে আমাদেরকে অনেকগুলো চরিত্র এবং তাদের ব্যাপারে খুটিনাটি তথ্য মাথায় রাখতে হয়। এর ফলে আমাদের মস্তিষ্কের স্মৃতি ভান্ডারকে ব্যবহার করার ক্ষমতা বৃদ্ধি পায়।

নতুন নতুন বই পড়ার মাধ্যমে আমাদের সৃজনশীলতার বিকাশ ঘটে। আমরা বাক্সের বাইরে গিয়ে চিন্তা করতে শিখি। ফলে নতুন কিছু আবিষ্কারের পথ সুগম হয়। বই পড়ার অভ্যাস আমাদের মনোযোগ শক্তি বৃদ্ধা করে। মানসিক দূর্বলতা দূর করে আমাদের আত্মবিশ্বাসী করে তোলে। বই পড়ার মাধ্যমেই মানুষ অজানাকে জানতে পারে মানুষের মধ্যে নেতৃত্বের গুণাবলি সৃষ্টি হয়।

তবে একটি ভালো বই যেমন মানুষের জীবনকে সাজিয়ে দিতে পারে তেমনি একটি মন্দ বই মানুষের মস্তিষ্ক নেতিবাচক প্রভাব ফেলতে সক্ষম। তাই সব সময় ভাল বই পড়তে হবে। কবি ওমর খৈয়াম যথার্থই বলেছেন, “রুটি, মদ ফুরিয়ে যাবে; প্রিয়ার কলো চোখ ঘোলাটে হয়ে যাবে, কিন্তু একখানা বই অনন্ত যৌবনা। যদি তেমন বই হয়।” সর্বোপরি মানবিক গুণসম্পন্ন, নৈতিক, চরিত্রবান মানুষ হওয়ার জন্য বই পড়ার বিকল্প নাই।

এই বিভাগের আরও খবরঃ