website page counter কেমন হবে মুমিন নারীর পোশাক - শিক্ষাবার্তা ডট কম

সোমবার, ১৪ই অক্টোবর, ২০১৯ ইং, ২৯শে আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

কেমন হবে মুমিন নারীর পোশাক

আতাউর রহমান খসরু ।।

পোশাক আল্লাহর বিশেষ দান ও অনুগ্রহ। আল্লাহ তাআলা মানবজাতিকে পোশাকের মাধ্যমে সম্মানিত ও বৈশিষ্ট্যমণ্ডিত করেছেন। আল্লাহ তাআলা পবিত্র কোরআনে পোশাককে তাঁর বিশেষ অনুগ্রহ হিসেবে উল্লেখ করেছেন। ইরশাদ হয়েছে, ‘হে মানব সন্তান, আমি তোমাদের পোশাক দান করেছি, যেন তোমরা তোমাদের আব্রু ঢাকতে পারো এবং তা (তোমাদের জন্য) সৌন্দর্য। আর খোদাভীতির পোশাকই উত্তম। এটা (পোশাক) আল্লাহর নিদর্শন, যদি তারা উপদেশ গ্রহণ করে।’ (সুরা আরাফ, আয়াত : ২৬)

তাফসিরবিদগণ এ আয়াতের ব্যাখ্যায় বলেন, আল্লাহ এই আয়াতে পোশাককে যেমন তাঁর অনুগ্রহ হিসেবে উল্লেখ করেছেন, তেমনি মুমিন নারী ও পুরুষের পোশাক কেমন হবে সে নির্দেশনাও দিয়েছেন। তা হলো, তাদের পোশাক হবে শালীন ও সুন্দর। তাদের পোশাকে আল্লাহর ভয় প্রকাশ পাবে। ‘খোদাভীতির পোশাক’-এর ব্যাখ্যায় তাঁরা এমন পোশাকের কথা বলেন, যাতে শালীনতা, বিনয়, সংযম, পরকালমুখিতা প্রকাশ পায় এবং যা কোনোভাবেই অপব্যয়, অপচয়, অহংকার ও লজ্জাহীনতার পরিচায়ক হবে না।

শালীন ও সুন্দর পোশাকের ক্ষেত্রে আল্লাহ নারী ও পুরুষে কোনো তারতম্য করেননি; বরং উভয়কে তা মান্য করার নির্দেশ দিয়েছেন। যারা লজ্জা ও শালীনতার এই সীমা অমান্য করবে, আল্লাহ তাদের শয়তানের প্ররোচনার শিকার হিসেবে উল্লেখ করেছেন। পরের আয়াতেই আল্লাহ মানবজাতিকে সতর্ক করে বলেছেন, ‘হে মানব সন্তান, শয়তান যেন তোমাদের প্রলুব্ধ না করে, যেমন সে তোমাদের পিতা-মাতাকে (আদম ও হাওয়া আ.) করেছিল। তাঁদের বিবস্ত্র করেছিল যেন পরস্পরের সামনে তাঁদের লজ্জাস্থান প্রকাশ পায়।’ (সুরা আরাফ, আয়াত : ২৭)

রাসুলুল্লাহ (সা.)-এর একটি হাদিস থেকেও পোশাকের ব্যাপারে ইসলামের দৃষ্টিভঙ্গি বোঝা যায়, যাতে পোশাককে আল্লাহর অনুগ্রহ এবং তার উদ্দেশ্য লজ্জা নিবারণ ও সৌন্দর্য গ্রহণ বলা হয়েছে। উমর ইবনে খাত্তাব (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, ‘যখন তোমাদের কেউ নতুন পোশাক বানায়, তা তৈরি হওয়ার পর তা পরিধান করে, তখন সে বলবে, সব প্রশংসা মহান আল্লাহর জন্য, যিনি আমাকে এমন পোশাক দান করেছেন, যার মাধ্যমে আমি লজ্জাস্থান আবৃত করতে পারি এবং জীবনে সৌন্দর্য গ্রহণ করতে পারি।’ (সুনানে তিরমিজি, হাদিস : ৩৫৬০)

মৌলিকভাবে নারী ও পুরুষ উভয়কে লজ্জা ও শালীনতা রক্ষাকারী পোশাক পরিধান করার নির্দেশ দিলেও পোশাকের ক্ষেত্রে উভয়কে স্বাতন্ত্র্য বজায় রাখার নির্দেশ দিয়েছে। যেন নারী ও পুরুষ দুজনই আপন সীমানায় থেকে লজ্জা ও শালীনতা রক্ষা করতে পারে। প্রাকৃতিকভাবে ও প্রাগৈতিহাসিককাল থেকে চলে আসা মানব আচরণ থেকেও এটা স্পষ্ট যে নারী ও পুরুষের ‘আব্রু’র ব্যাখ্যা ভিন্ন ভিন্ন। পুরুষের তুলনায় নারী অনেক বেশি মোহনীয় ও কমনীয়। তাই পুরুষের তুলনায় নারীর ‘আব্রু’ রক্ষায় ইসলাম বাড়তি সতর্কতা অবলম্বন করেছে। নারীর প্রতি ইসলামের মমত্ব ও দায়বোধ থেকেই ইসলাম নারীকে পোশাকে বেশি সংযত হওয়ার আদেশ দিয়েছে। যেন পৃথিবীতে তার পথচলা মসৃণ হয়, সে নিরাপদে জীবনযাপন করতে পারে, পুরুষের লালসার শিকার না হয়। চিন্তাশীল আলেমরা মনে করেন, বর্তমান সমাজে ক্রমবর্ধমান নারী নিগ্রহের ঘটনা ইসলামের পোশাকনীতিকে যৌক্তিক ও অপরিহার্য প্রমাণ করে। কোরআন ও হাদিসের আলোকে ইসলামবেত্তাগণ মুমিন নারীর পোশাকের যে বৈশিষ্ট্য বর্ণনা করেছেন, তার কয়েকটি এখানে তুলে ধরা হলো—

১. শরীর ও সৌন্দর্যকে আড়াল করবে : মুমিন নারীর পোশাকের প্রধান বৈশিষ্ট্য হলো, তা তার শরীর ও সৌন্দর্যকে আড়াল করবে। যেন তা পুরুষের কামুক দৃষ্টির শিকার না হয়। পবিত্র কোরআনে ইরশাদ হয়েছে, ‘তারা তাদের সৌন্দর্য প্রকাশ করবে না, তবে যা স্বাভাবিকভাবে প্রকাশ পায়।’ (সুরা নুর, আয়াত : ৩১)

২. খুব বেশি পাতলা বা মোটা হবে না : মুমিন নারী এমন পাতলা পোশাক পরিধান করবে না, যা পরিধানের পরও শরীর দেখা যায়। আব্রু প্রকাশ পায়। আবার এমন মোটা পোশাক পরিধান করবে না, যাতে গরমে তার কষ্ট হয়; বরং অস্বচ্ছ মধ্যম পোশাক পরিধান করবে। একাধিক হাদিসে অতিরিক্ত পাতলা পোশাক পরিধানকে কেয়ামতের নিদর্শন বলা হয়েছে।

৩. ঢিলেঢালা হবে : ইসলাম নারী ও পুরুষ উভয়কে ঢিলেঢালা পোশাক পরিধানের নির্দেশ দিয়েছে। শরীরের অবয়ব প্রকাশ পায়—এমন আঁটসাঁট পোশাক মুমিন পুরুষও পরিধান করবে না। আর নারী তো নয়ই। কেননা এমন পোশাক অন্যকে প্রলুব্ধ করতে পারে। অনেক সময় তা বোরকা, হিজাব ও পর্দার উদ্দেশ্যকেও ব্যাহত করে।

৪. পুরো শরীর ঢেকে রাখবে : ইসলাম নারীকে এমন পোশাক পরিধান করতে বলেছে, যা তার পুরো শরীরকে ঢেকে রাখবে। শরীর বের হয়ে থাকে—এমন পোশাক পরিধান করতে নিষেধ করেছে। পবিত্র কোরআনে ইরশাদ হয়েছে, ‘হে নবী, আপনি আপনার স্ত্রী, কন্যা ও মুমিনদের স্ত্রীদের বলে দিন, যেন তাদের চাদর নিজেদের ওপর টেনে দেয়। এতে তাদের চেনা সহজ হবে এবং তাদের উত্ত্যক্ত করা হবে না। আল্লাহ ক্ষমাশীল ও দয়ালু।’ (সুরা আহজাব, আয়াত : ৫৯)

আলোচ্য আয়াতে ইসলাম নারীকে যে শালীন ও সংযত পোশাক পরিধান করতে বলেছে, তার কারণ বিবৃত হয়েছে। তা হলো, পুরুষের কামুক দৃষ্টি, অশালীন মন্তব্য ও যৌন সহিংসতা থেকে নারীকে রক্ষা করা।

৫. পুরুষের পোশাকের মতো হবে না : ইসলাম নারীকে নারীসুলভ এবং পুরুষকে পুরুষসুলভ পোশাক পরিধানের নির্দেশ দিয়েছে। শরিয়তের বিধানমতে, নারী যেমন পুরুষের পোশাক পরিধান করবে না, তেমন পুরুষও নারীর মতো পোশাক পরিধান করবে না। উভয় পোশাক ও সাজসজ্জা হবে ভিন্ন ভিন্ন। রাসুলুল্লাহ (সা.) মুমিন নারী-পুরুষকে সতর্ক করেছেন। আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস (রা.) থেকে বর্ণিত, ‘রাসুলুল্লাহ (সা.) নারীর বেশভূষা গ্রহণকারী পুরুষকে এবং পুরুষের বেশভূষা গ্রহণকারী নারীকে অভিশাপ করেছেন। তিনি বলেছেন, তাদের তোমাদের ঘর থেকে বের করে দাও।’ (সহিহ বুখারি, হাদিস : ১৫৮৫)

অন্য হাদিসে ইরশাদ হয়েছে, ‘রাসুল্লাহ (সা.) নারীর সাদৃশ্য গ্রহণকারী পুরুষকে এবং পুরুষের সাদৃশ্য গ্রহণকারী নারীকে অভিশাপ করেছেন।’ (সহিহ বুখারি, হাদিস : ১৬৩১)

উল্লিখিত বৈশিষ্ট্যের পোশাকগুলোই মূলত নারীর জন্য আল্লাহভীতির পোশাক। ইসলাম মুমিন নারীকে এমন পোশাক পরিধানেরই নির্দেশ দেয়।

এই বিভাগের আরও খবরঃ