website page counter শিক্ষক সংগঠন গুলোর নেতৃবৃন্দের অনৈক্যের কারণে দাবি আদায়ে পিছিয়ে পড়েছি - শিক্ষাবার্তা ডট কম

শনিবার, ২০শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং, ৬ই আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

শিক্ষক সংগঠন গুলোর নেতৃবৃন্দের অনৈক্যের কারণে দাবি আদায়ে পিছিয়ে পড়েছি

মোঃ আবুল হোসেন।।

আজ বেসরকারি এমপিওভুক্ত শিক্ষকদের মধ্যে বদলি এবং জাতীয়করণ নিয়ে যে মিশ্র প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হচ্ছে তা মোটেও শুভলক্ষণ নয়। আমাদের দাবি দাওয়া আদায় যেহেতু মূুল লক্ষ। সেহেতু আমাদের মধ্যে বিভাজন থাকা উচিৎ নয়। আমাদের মধ্যে বিভাজন থাকলে সুবিধা নিবে সরকার পক্ষ। তর্ক এবং বির্তক কোন সমাধান নয়। আলাপ আলোচনার মাধ্যমে সিদ্ধান্ত নিয়ে কাজ করে এগিয়ে গেলে সফলতা আসবে নতুবা নয়। আজ বেসরকারি এমপিওভুক্ত শিক্ষকদের মাঝে নেই কোন ঐক্য। যে যার মত এগুচ্ছে। নেই কোন পরিকল্পনা। বাস্তবতা হলো খন্ড খন্ড আন্দোলন আমাদের দাবি দাওয়া আদায় নিয়ে সংশয় দেখা দিচ্ছে। কোন দাবিটা আগে কোন দাবিটা পরে এ নিয়ে চলছে পরস্পর বিরোধী তর্ক এবং বির্তক।

কেউ বলছে জাতীয়করণ আবার কেউ বলছে বদলি এ নিয়ে যা শুরু হচ্ছে মনে হয় কোনটাই আদায় হবার নয়। সরকার কিন্তু সব বিচার বিশ্লেষণ করছে। আসলে আমাদের লক্ষ্য কোনটা এটা আজ মনে হয় আমরা বুঝাতে সক্ষম হচ্ছি না। জাতীয়করণে আছে সব কিছু এ নিয়ে আজ গণমাধ্যম গরম। আসলে জাতীয়করণ আদায় করতে হলে সমগ্র বেসরকারি এমপিওভুক্ত শিক্ষক বৃন্দ এক প্লাটফর্মে আসতে হবে। কিন্তু দুঃখের বিষয় বিগত দিনগুলো যদি বিবেচনা করা হয় তাহলে দেখা যাচ্ছে বিভিন্ন সংগঠনের নেতৃবৃন্দ যে যার মত করে আন্দোলন করে আসছে। কেউ বাড়ি ভাড়া, চিকিৎসা ভাতা, পেনশন, অতিরিক্ত ৪% কর্তন বন্ধ, বদলি এবং জাতীয়করণ। আসলে আমরা যদি নির্দিষ্ট লক্ষ্য নিয়ে আন্দোলন না করি তাহলে আমাদের কোন দাবি দাওয়া আদায় হবার নয়। সকল নেতৃবৃন্দ যদি গোলটেবিল বৈঠকের মাধ্যমে এক প্লাটফর্মে এসে আন্দোলনের ডাক দিত তাহলে মনে হয় আমরা সফলকাম হতাম। যদি ও এটা অসম্ভব কল্পনা ছাড়া কিছুই নয়। তবুও আমার অনুরোধ রইল বৃহত্তর ঐক্য গড়ে তুলতে সকলে এগিয়ে আসুন। যেহেতু কেউ এগিয়ে আসছে না ঐক্য গড়ে তুলার জন্য। সেহেতু আজ সাধারণ শিক্ষকরা হতাশ।

তাইতো আজ সাধারণ শিক্ষকরা বদলি আদায়ের পক্ষে অবস্থান নিয়েছে। তাদের কি দোষ বলুন? বিভিন্ন সংগঠনের নেতৃবৃন্দ নিরব ভূমিকা পালন করে আসছে। নেই কোন জোরালো কর্মসূচি। বদলি সিস্টেম যেহেতু জাতীয়করণের একটি অংশ সেহেতু এর বিরুদ্ধে যাবার ও কোন অপশন নেই। এক একটি করে দাবি আদায় তো জাতীয়করণ আদায়ের দিকেই নিয়ে যাবে। যদি জাতীয়করণই মূখ্য বিষয় হয় তাহলে কেন এত সংগঠন? কেন আমরা এক প্লাটফর্মে আসতে পারি নাই? শিক্ষক নেতারা কি তাহলে জাতীয়করণকে ঢাল হিসেবে ব্যবহার করছে কিনা বোধগম্য নয়? সংগঠন তো দাবি আদায় করার জন্য। তবে এক প্লাটফর্মে এসে আন্দোলন করতে এত বিবেদ কেন? আসুন আমরা বৃহত্তর ঐক্য গড়ে নির্দিষ্ট লক্ষ্যে পৌঁছাতে চেষ্টা করি।

এই বিভাগের আরও খবরঃ