website page counter বেতন বৈষম্য নেই বলে অর্থ মন্ত্রনালয়ের পত্রে সারা দেশের প্রাথমিক শিক্ষকরা ক্ষুদ্ধ - শিক্ষাবার্তা ডট কম

শনিবার, ২০শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং, ৬ই আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

বেতন বৈষম্য নেই বলে অর্থ মন্ত্রনালয়ের পত্রে সারা দেশের প্রাথমিক শিক্ষকরা ক্ষুদ্ধ

নিউজ ডেস্ক।।

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের বেতন বাড়ানোর সুযোগ নেই বলে জানিয়েছে অর্থ মন্ত্রণালয়। প্রাথমিকের শিক্ষকদের বিদ্যমান বেতন যথাযথ রয়েছে বলে জানানো হয়েছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়কে। গত রোববার অর্থমন্ত্রণালয় থেকে এ সংক্রান্ত চিঠি গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়।

অর্থ মন্ত্রণালয়ে উপসচিব সাদিয়া শারমিন স্বাক্ষরিত চিঠিতে বলা হয়, ‘সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও সহকারী শিক্ষক পদে বেতন গ্রেড যথাযথও সঠিক থাকায় প্রধান শিক্ষক পদের বেতন গ্রেড-১০ ও সহকারী শিক্ষক পদের বেতন গ্রেড-১২তে উন্নীতকরণের সুযোগ নেই।’

জানা গেছে, প্রাথমিক শিক্ষকদের দীর্ঘ আন্দোলনের পর গ্রেড পরিবর্তনের প্রস্তাবনা গত ২৯ জুলাই অর্থ মন্ত্রণালয়ে পাঠায় প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। শিক্ষকদের দাবির মুখে এ প্রস্তাবনায় প্রধান শিক্ষকদের দশম গ্রেড ও সহকারি শিক্ষকদের ১২তম গ্রেডে উন্নীত করার সুপারিশ করা হয়েছিল। যদিও সহকারি শিক্ষকদের দাবি ছিল ১১তম গ্রেডে বেতন ভাতা। তাই অর্থ মন্ত্রণালয়ে পাঠানো গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের প্রস্তাবটি সমালোচিত হয়েছিল শিক্ষক মহলে।

বেতন বাড়ানোর প্রস্তাব অর্থ মন্ত্রণালয় প্রত্যাখ্যান করায় ক্ষুব্ধ সারা দেশের প্রাথমিক শিক্ষকরা। বাংলাদেশ প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির সহ কাব স্কাউট সম্পাদক মোহাম্মদ নাছিম ফারুকী দৈনিক শিক্ষাবার্তাডটকমকে বলেন, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের সংগঠন বাংলাদেশ প্রাথমিক সমিতি জাতির পিতার সুযোগ্য উত্তরসূরী জননেত্রী শেখ হাসিনা শিক্ষকদের বেতন বৈষম্যের বিষয়ে ভয়েজ কলে আশ্বস্ত হয়ে দ্বিগুন আন্তরিকতা নিয়ে সারা দেশে নৌকা প্রতিকের পক্ষে কাজ করেছিরেন। আমরা শিক্ষকরা দীর্ঘ সময় ধরে প্রধান শিক্ষকের ১০ গ্রেড ও সহকারি শিক্ষকদের ১১তম গ্রেড দাবি করে আসছিলাম। আমরা সেই ১০ম ও ১১তম গ্রেডের দাবিতেই আছি। এ দাবি আদায়ে খুব শীঘ্রই সমিতির কেন্দ্রীয় নীতি নির্ধারক কমিটির সিদ্ধান্ত নিয়ে কঠোর কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে।

এই বিভাগের আরও খবরঃ