website page counter চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ডেঙ্গু টেস্ট নয়: স্বাস্থ্য অধিদপ্তর - শিক্ষাবার্তা ডট কম

সোমবার, ১৮ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং, ৩রা অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ডেঙ্গু টেস্ট নয়: স্বাস্থ্য অধিদপ্তর

ঢালাওভাবে ডেঙ্গু পরীক্ষায় কিটের অপচয় হওয়ায় চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া এই পরীক্ষা না করাতে হাসপাতালগুলোর প্রতি নির্দেশ দিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখার কনফারেন্স কক্ষে রোববার স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদের সভাপতিত্বে আয়োজিত নিয়মিত সভায় এ সিদ্ধান্ত হয়।

জাতীয় ম্যালেরিয়া নির্মূল ও এডিসবাহিত রোগ নিয়ন্ত্রণ কর্মসূচির আওতায় রাজধানী ঢাকায় ক্রমবর্ধমান ডেঙ্গু জ্বরের প্রকোপ মোকাবিলার লক্ষে এ সভা হয়। সভায় এডিস মশার উৎসস্থল ধ্বংসের দিকে বেশি গুরুত্ব দিতে বলা হয়।

আলোচকরা বলেন, সারা দেশের বিভিন্ন হাসপাতাল ও ক্লিনিকে ঢালাওভাবে সব ধরনের রোগীর এনএস-ওয়ান পরীক্ষা করা হচ্ছে। এ কারণে পরীক্ষায় ব্যবহৃত কিটের অপচয় হচ্ছে। এ কারণে চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ডেঙ্গু রোগের পরীক্ষা না করার অনুরোধ জানানো হচ্ছে।

তারা আরো বলেন, ঢাকা শহরে সর্বশেষ মশক সার্ভে রিপোর্ট অনুযায়ী ঢাকার বিভিন্ন এলাকায় ডেঙ্গু বিস্তারের সহায়ক ব্রটো ইন্ডেক্সি (বিআই) ২০ এর উপরে আছে। যেহেতু মানুষ এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় চলাচল করে সেহেতু যে এলাকায় বিআই কম সে এলাকায় মানুষ ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হতে পারে।

আগামীকাল সোমবার স্বাস্থ্য অধিদফতরের রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখায় সারাদেশের ১৩টি সরকারি মেডিকেল কলেজের মেডিসিন কনসালটেন্ট, পেডিয়াট্রিক কনসালটেন্ট ও জেলা সদর হাসপাতালে কর্মরত চিকিৎসকদের ন্যাশনাল গাইডলাইন অনুযায়ী ব্যবস্থাপনা বিষয়ক প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত হবে। এ ছাড়া আগামী ৭ ও ৮ আগস্ট ভিডিও কনফারেন্সে স্বাস্থ্য অধিদফতর থেকে বাকি ৫১টি জেলার সদর হাসপাতাল ও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আরএমও, মেডিসিন কনসালটেন্ট ও পেডিয়াট্রিক কনসালটেন্টদের ন্যাশনাল গাইডলাইন অনুযায়ী ডেঙ্গুর ব্যবস্থাপনা বিষয়ক প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।

সভায় ওষুধ প্রশাসন অধিদফতরের তথ্য অনুসারে জানানো হয়, গত ৩১ জুলাই থেকে ৩ আগস্ট পর্যন্ত বিভিন্ন আমদানিকারক মোট ৩ লাখ ৬৮ হাজার ২০০ কিট আমদানি করেছেন। যার মধ্যে ৩ আগস্ট ১ লাখ ৫৭ হাজার। শিগগিরই বিভিন্ন আমদানিকারক আরও কিট আনার ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে যার জন্য ওষুধ প্রশাসন অধিদফতর অনাপত্তিপত্র প্রদান করেছে।

সভায় অন্যান্যের মধ্যেপরিচালক রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখা অধ্যাপক ডাক্তার সানিয়া তাহমিনা, পরিচালক এম আই এস ডাক্তার সমীর কান্তি, পরিচালক ওষুধ প্রশাসন অধিদফতর মোহাম্মদ রুহুল আমিন ও ম্যালেরিয়া নির্মূলে বাহিত রোগ নিয়ন্ত্রণ কর্মসূচির প্রোগ্রাম ম্যানেজার ডাক্তার এমএম আক্তারুজ্জামানসহ স্বাস্থ্য অধিদফতরের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

এই বিভাগের আরও খবরঃ