অধিকার ও সত্যের পক্ষে

অভিবাসী নাজমার আহ্বানে ‘বিশ্ব হিজাব দিবস’ পালিত

 ধর্ম ডেস্ক ||

পশ্চিমা সংস্কৃতিতে বেড়ে ওঠা বাংলাদেশি নারী নাজমা খান। ১১ বছর বয়সে পাড়ি জমান মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে। কয়েক বছর আগে জ্যামাইকায় এ অভিবাসী নারী হিজাব পরিধানের কারণে আক্রমণের শিকার হন। তার আহ্বানেই ১ ফেব্রুয়ারি বিশ্বের প্রায় দেড়শ’ দেশ বিশ্ব হিজাব দিবস পালন করছে। অমুসলিমরাও এ দিবসে হিজাব পরিধান করে অংশগ্রহণ করেছে।

১১ বছরের কিশোরী নাজমা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে গিয়ে পশ্চিমা সংস্কৃতিতে বড় হলেও প্রাথমিক শিক্ষার শুরু থেকেই মুসলিম সন্তান হিসেবে পর্দার বিধান পালন করতেন। আর এ পর্দার বিধান পালনে হিজাব পরিধান করতে গিয়ে বিভিন্ন সময় অপমানিত ও লাঞ্ছিত হন।

হিজাব পরিধানের কারণে ১/১১’র সময় তাকে শুনতে হয়েছে টেরোরিস্ট, ওসামা বিন লাদেন, ব্যাটম্যান ও নিনজাসহ নানান কটু কথা। অতঃপর এ হিজাব পরিধানের কারণেই ২০১৩ সালে তাকে আক্রমণের শিকার হতে হয়েছিল।

নাজমা খান যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থানের শুরু দিকেই নিজের মনে এ ইচ্ছা পোষণ করতেন যে, যদি একটি দিনের জন্য হলেও মুসলিম-অমুসলিম সবাই হিজাব পরিধান করে পর্দার বিধানকে সম্মান জানাতো তবে মুসলিম নারীদের হিজাব পরিধানের পরিবেশ হয়ে ওঠতো সহয়াক। সে সময় থেকেই তিনি তার ইচ্ছার কথা অনলাইন ও সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে দিতে থাকেন।

জ্যামাইকায় আক্রমণের শিকার হওয়ার পর নাজমা খানের সে ইচ্ছার প্রতিফলন শুরু হয়। ২০১৩ সালের ১ ফেব্রুয়ারি যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, অস্ট্রেলিয়া, ভারত, পাকিস্তান, ফ্রান্স এবং জার্মানিসহ বিশ্বের ৪৫টি দেশের রাষ্ট্রদূত, খ্যাতনামা রাজনীতিক, স্কলার, বিশ্ববিখ্যাত গণমাধ্যম সিএনএন ও টাইম ম্যাগাজিনসহ বিভিন্ন দেশের নারীরা হিজাব দিবস পালন করে।

এবার ১ ফেব্রুয়ারি বিশ্ব হিজাব দিবস পালনে নাজমা খানের পাশে দাঁড়িয়েছে বাংলাদেশি অ্যাক্টিভিস্ট মাজেদাসহ অনেক নারী।

উল্লেখ্য যে, ‘হিজাব আমার স্বাধীনতা, হিজাব আমার নিরাপত্তা, হিজাব আমার পছন্দ, হিজাব আমার আচ্ছাদন’-এ স্লোগানে বিশ্বের প্রায় দেড়শ’ দেশের মুসলিম-অমুসলিম নারীদের অংশগ্রহণে পালিত হয়েছে এবারের ‘ওয়াল্ড হিজাব ডে’।

‘বিশ্ব হিজাব দিবস’ সব নারীকে এ কথাই মনে করিয়ে দেয় যে, হিজাব শুধু মুসলিমরাই পড়বে এমনটি নয়, বরং মুসলিম-অমুসলিম সবার জন্যই হিজাব নিরাপত্তা ও সম্মানের প্রতীক। যা ব্যবহারে নারী থাকে নিরাপদ।

নাজমা খানের এ কর্মসূচি বিশ্বব্যাপী পর্দার বিধান পালনে মুসলিম নারীদের যেমন অনুপ্রাণিত করবে তেমনি অমুসলিম নারীদের মাঝেও হিজাব পরিধানে নিরাপত্তা লাভের আগ্রহ তৈরি হবে।

একই ধরনের আরও সংবাদ

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.