অধিকার ও সত্যের পক্ষে

কলেজ ছাত্রকে অপহরণ,খুনের ভয়ঙ্কর পরিকল্পনা!

 নিজস্ব প্রতিবেদক ॥

চট্টগ্রামে অপহরণের তিনদিন পর মো. সাদেক ছোবহান সাকিব (১৭) নামে এক কলেজ পড়ুয়া ছাত্রকে উদ্ধার করেছে নগর গোয়েন্দা পুলিশ। পারিবারিক শত্রুতাকে পুঁজি করে মুক্তিপণ আদায়ের জন্য সাকিবকে তার আপন খালাতো ভাই অপহরণ করেছিল। পুলিশ জানিয়েছে, এরপর তাকে ঘুমের ওষুধ খাইয়ে খুনের পরিকল্পনা করা হয়।

সোমবার (১৪ জানুয়ারি) ভোর পর্যন্ত প্রায় ২৪ ঘণ্টা অভিযান চালিয়ে সাকিবকে গ্রেফতার করা হয়। এই ঘটনায় জড়িত আরও একজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তবে মূল পরিকল্পনাকারী ও অপহরণে প্রত্যক্ষ অংশগ্রহণকারী খালাতো ভাইকে এখনও পাওয়া যায়নি বলে সারাবাংলাকে জানিয়েছেন নগর গোয়েন্দা পুলিশের সহকারী কমিশনার (এসি/ডিবি-পশ্চিম) মইনুল ইসলাম।

সাকিব বিজিসি ট্রাস্ট ইউনিভার্সিটি কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্র। বেসরকারি এই বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাস চট্টগ্রামের চন্দনাইশ উপজেলায়।

নগর গোয়েন্দা পুলিশের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, গত ১০ ডিসেম্বর বাসা থেকে কলেজে যাওয়ার পথে চন্দনাইশের ঠাকুরদিঘী এলাকায় সাকিবকে মাইক্রোবাসে তুলে নিয়ে যায় তার খালাতো ভাই জাহাঙ্গীর আলম জয় এবং জয়ের কয়েকজন সহযোগী। এরপর তাকে লোহাগাড়া থানার বটতলী এলাকায় এম কে শপিং সেন্টার নামে ভবনের তৃতীয় তলায় একটি আবাসিক হোটেলের ৩০৪ নম্বর কক্ষে আটকে রাখা হয়। রোববার (১৩ ডিসেম্বর) সন্ধ্যায় সাকিবকে ওই কক্ষে জিম্মিবস্থা থেকে উদ্ধার করে ডিবি।

এরপর ঘটনায় জড়িত মো. হোসেনকে (৩০) গ্রেফতার করা হয়। তার কাছে একটি খেলনা রিভলবার, দু‘টি চাকু এবং ৩০টি চেতনানাশক ওষুধ পাওয়া গেছে।

গোয়েন্দা কর্মকর্তা মইনুল ইসলাম সারাবাংলাকে বলেন, জয় ও সাকিবের মধ্যে পারিবারিকভাবে বিরোধ চলে আসছিল। তারই জের ধরে জয় সুপরিকল্পিতভাবে সাকিবকে অপহরণ করে। এরপর ৫০ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করে।

তবে সাকিব জয়কে চিনে ফেলায় তাকে ঘুমের ওষুধ খাইয়ে মেরে ফেলার পরিকল্পনা করেছিল, বলেন মইনুল।

সাকিবকে অপহরণের পর তার বাবা নগর পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের শরণাপন্ন হলে ডিবি তাকে দ্রুত উদ্ধারে নামে বলে জানিয়েছেন গোয়েন্দা কর্মকর্তারা।

শিক্ষা বার্তা-আ.আ.হ/মৃধা

একই ধরনের আরও সংবাদ

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.