অধিকার ও সত্যের পক্ষে

“শিক্ষার্থীদের চাপ সামলাতে দুই শিফটে পাঠদান”

 নিজস্ব প্রতিবেদক ॥

শিক্ষা উপমন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল বলেছেন, নতুন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বানিয়ে সেটিকে প্রতিষ্ঠিত করতে যে সময় ও অর্থ ব্যয় হবে, তার চাইতে বিভিন্ন এলাকার ঐতিহ্যবাহি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর অবকাঠামোগত উন্নয়ন করে শিক্ষক সংখ্যা বাড়ানোর দিকেই নজর দিচ্ছে সরকার।

শনিবার (১২ জানুয়ারি) সকালে নগরের চশমা হিলের বাসভবনে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, বিভিন্ন এলাকার ঐতিহ্যবাহি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর অবকাঠামোগত উন্নয়ন করে শিক্ষক সংখ্যা বাড়ানোর দিকেই নজর দিচ্ছে সরকার।

শিক্ষা উপমন্ত্রী বলেন, এই সরকারের আমলেই শিক্ষার মানোন্নয়নে বিভিন্ন পদক্ষেপ নেয়া হয়। শিক্ষাখাতে বৈপ্লবিক পরিবর্তন হয়েছে। ভবিষ্যতেও এই ধারাবাহিকতা রক্ষা করতে আমাদের চেষ্টা থাকবে।

তিনি বলেন, বর্তমান আমদের দেশেও শিক্ষার মান উন্নত হয়েছে এবং সনদও আন্তর্জাতিক মানের হওয়ায় বিশ্বের বিভিন্ন দেশে সহজেই মেধাবী শিক্ষার্থীরা উচ্চশিক্ষা নিতে পারছে। এই মান ধরে রাখতে আমরা চেষ্টা চালিয়ে যাবো।

পাঠ্যপুস্তকে প্রগতিশীলদের লেখা বাদ দিয়ে সাম্প্রদায়িক মনোভাবাপন্ন লেখা সংযুক্তির বিষয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে শিক্ষা উপমন্ত্রী বলেন, এ প্রক্রিয়ায় জড়িতদের শাস্তির আওতায় আনা হয়েছে। ভবিষ্যতে এই ধরণের অপতৎপরতা রোধে বিশেষ সতর্কতা অবলম্বন করা হবে।

নামি-দামী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর প্রতি অভিভাবকদের নির্ভরশীলতা কমাতে প্রান্তিক এলাকার শিক্ষাঙ্গনে লেখাপড়ার মান বৃদ্ধিতে যোগ্যতাসম্পন্ন শিক্ষক নিয়োগ ও প্রশিক্ষণ কার্যক্রম জোরদার করার ওপরও গুরুত্ব দেয়া হবে বলেও জানান শিক্ষা উপমন্ত্রী।

শিক্ষা বার্তা-আ.আ.হ/মৃধা

একই ধরনের আরও সংবাদ

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.