৫৮০ বছর পর দীর্ঘতম চন্দ্রগ্রহণ আগামীকাল শুক্রবার। স্থায়ী হবে সাড়ে ৩ ঘন্টা

গত ছয় শতাব্দীতেও এত সময় ধরে চন্দ্রগ্রহণ দেখা যায়নি। এই শতাব্দীতেও এত দীর্ঘ সময় চন্দ্রগ্রহণ হবে না। বিরল এই চন্দ্রগ্রহণ হতে যাচ্ছে আগামী শুক্রবার। তবে এটি খণ্ডগ্রাস চন্দ্রগ্রহণ। টানা তিন ঘণ্টা ২৮ মিনিট ২৩ সেকেন্ড স্থায়ী হবে এবং চাঁদের রঙ হবে রক্তের মতো লাল। তাই এর নাম ‘ব্লাড মুন’ বা ‘বিভার মুন’।

এই চন্দ্রগ্রহণ এ বছরের দ্বিতীয় ও সর্বশেষ। প্রথমটি হয়েছিল গত ২৬ মে। এ বছরে দুইটি সূর্যগ্রহণও হওয়ার কথা। একটি হয়েছে গত জানুয়ারিতে। দ্বিতীয়টি ডিসেম্বরের শুরুতে।

আমেরিকার ইন্ডিয়ানায় বাটলার বিশ্ববিদ্যালয়ের হলকোম্ব অবজারভেটরি ও নাসা জানিয়েছে, দীর্ঘতম খণ্ডগ্রাস চন্দ্রগ্রহণটি দেখা যাবে চীন, জাপান, উত্তর ও দক্ষিণ কোরিয়া, তাইওয়ান, হংকং, মঙ্গোলিয়া, ম্যাকাওসহ গোটা পূর্ব এশিয়ায়। এ ছাড়া অস্ট্রেলিয়া, উত্তর ইউরোপ, উত্তর ও দক্ষিণ আমেরিকা, প্রশান্ত মহাসাগর ও লাগোয়া দেশগুলোতে দেখা যাবে। বাংলাদেশ সময় বিকেলে ৩টা ২ মিনিটে চন্দ্রগ্রহণ হবে।

পূর্ণিমার চাঁদের আকারের চেয়ে কিছুটা ছোট হবে শুক্রবারের চাঁদ। পৃথিবীর ছায়ায় সেই চাঁদের ৯৭ দশমিক ৪ শতাংশই ঢাকা পড়ে যাবে। ফলে আক্ষরিক অর্থে খণ্ডগ্রাস হলেও শুক্রবারের চন্দ্রগ্রহণ অনেকটা যেন পূর্ণগ্রাস চন্দ্রগ্রহণ।

শুক্রবারের পূর্ণিমার চাঁদের রঙ অবশ্য পুরোপুরি লাল হবে না। পৃথিবীর ছায়া ঢাকতে পারবে না বলে চাঁদের মাত্র ৩ শতাংশ আলোকিত হবে সূর্যালোকে। প্রদক্ষিণের পথে পূর্ণিমার চাঁদ পৃথিবীর ছায়ার মধ্যে পুরোপুরি ঢুকে গেলেই হয় পূর্ণগ্রাস চন্দ্রগ্রহণ।