৩০ বছর আগের রেকর্ড স্পর্শ জহির রায়হানের

প্রকাশিত: ১১:৫৮ অপরাহ্ণ, শনি, ১৬ জানুয়ারি ২১

স্পোর্টস ডেস্ক :

জাতীয় ও সামার অ্যাথলেটিক্স মিলিয়ে ২০১৭ সাল থেকে ৪০০ মিটার স্প্রিন্টে একক প্রাধান্য জহির রায়হানের। বাংলাদেশ নৌবাহিনীর এই অ্যাথলেট ৫ বছরের ৭ বার চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন এ ইভেন্টে। এর মধ্যে শনিবার তো স্বর্ণ জিতলেন ৩০ বছর আগের জাতীয় রেকর্ড স্পর্শ করেই।

১৯৯১ সালে কাস্টমসের অ্যাথলেট মেহেদী হাসান হ্যান্ড টাইমিংয়ে ৪৭.২০ সেকেন্ড সময় নিয়ে নতুন জাতীয় রেকর্ড গড়ে স্বর্ণ জিতেছিলেন। ৩০ বছর আগের সেই রেকর্ড (৪৭.২০ সেকেন্ড) স্পর্শ করে শনিবার স্বর্ণ জিতলেন বাংলাদেশ নৌবাহিনীর জহির রায়হান।

২০১৯ সালে এই ইভেন্টের ইলেক্ট্রনিক টাইমের (৪৬.৮৬ সেকেন্ড) রেকর্ড করেছিলেন জহির রায়হান। এবার হ্যান্ড টাইমিংয়ের রেকর্ডও করলেন তিনি। দুটি রেকর্ডই এখন বিকেএসপির সাবেক এ অ্যাথলেটের ঝুলিতে।

দান দান সাত দান। তাইতো স্বর্ণ ধরে রাখার পর বাংলাদেশ নৌবাহিনীর এই পেটি অফিসার বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে দাঁড়িয়ে বললেন ‘লাকি সেভেন।’

jagonews24

‘জাতীয় পর্যায়ে হ্যান্ড টাইমিংয়ের ক্ষেত্রে এটাই আমার ক্যারিয়ারের সেরা। ইভেন্ট শুরুর আগে টাইমিং ভালো করার চিন্তা ছিল মাথায়। কারণ, অলিম্পিক- ছোটবেলা থেকেই আমার স্বপ্ন বিশ্বের সবচেয়ে বড় ও ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় অংশ নেয়া। করোনার কারণে সেভাবে ট্রেনিংয়ের সুযোগ-সুবিধা পাইনি। যতটুকু পেরেছি, নিজের চেষ্টায় অনুশীলন করেছি। নৌবাহিনী এবং ফেডারেশনও আমাকে অনেক সাপোর্ট করেছে। সবার সমন্বয়ের ফলেই আমার আজকের এই টাইমিং’- বলেছেন জহির রায়হান।

সর্বশেষ এসএ গেমসে স্বর্ণ জয়ের প্রত্যাশা নিয়ে কাঠমান্ডু গিয়েছিলেন জহির রায়হান। কিন্তু শ্বাসকষ্টের কারণে তিনি খেলতেই পারেননি। সে আপসোস এখনো পোড়াচ্ছে দেশের অন্যতম সেরা এ অ্যাথলেটকে, ‘আমি এখন যে সময়ে দৌড়াই, তাতে এসএ গেমসে গোল্ড পাবো। আগামী এসএ গেমসে স্বর্ণজয়ই আমার লক্ষ্য। এছাড়া অলিম্পিকে অংশ নিয়ে দেশের জন্য সুনাম বয়ে আনতে চাই। করতে চাই ক্যারিয়ারের সেরা টাইমিং।’

কেবল এসএ গেমসে স্বর্ণ ও অলিম্পিকে অংশ নেয়াই জহিরের লক্ষ্য নয়, এশিয়ান গেমস পদকেও তার চোখ, ‘৪০০ মিটারে এশিয়ান গেমস থেকে একটি পদক জিততে চাই। এজন্য আমাকে ৪৫ সেকেন্ডের মধ্যে দৌড় শেষ করতে হবে। বিদেশে গিয়ে উন্নত ও দীর্ঘয়োদী প্রশিক্ষণ পেলে এটা অবশ্যই সম্ভব। এজন্য আমার উর্ধতন কর্মকর্তাদের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে চাই। বাংলাদেশে থেকে প্রশিক্ষণ নিলে সাফল্য পাওয়া সম্ভব না।’

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়.