২৫% বোনাসের জিও জারিতে শিক্ষকদের ক্ষোভ চরমে

প্রকাশিত: ২:৩৫ অপরাহ্ণ, শুক্র, ৩০ এপ্রিল ২১

বেসরকারি শিক্ষকদের বৈষম্য মূলক ২৫% বোনাস দেয়া হয়েছিলো চারদলীয় জোট সরকারের আমলে আজ থেকে প্রায় ১৮ বছর আগে। এ বোনাস শতভাগ করার দাবি দীর্ঘ দিনের।

এমপিও নীতিমালা ২০২১ জারি হওয়ার পর বেসরকারি শিক্ষকরা আশায় বুক বেঁধেছিল যে এবার হয়তো তারা শতভাগ বোনাস পেতে যাচ্ছেন। শিক্ষক সংগঠনের বেশ কয়েকজন নেতা সরকারকে অভিনন্দন ও জানিয়েছিলেন। দেশের শীর্ষস্থানীয় কয়েকটি জাতীয় দৈনিকও এ সম্পর্কিত নিউজ করেছিল। কিন্তু গতকাল ২৮-০৪-২০২১ ইং তারিখে বেসরকারি শিক্ষকদের ২৫% বোনাসের জিও জারি হওয়ায় দেশের ৫ লক্ষাধিক বেসরকারি শিক্ষকরা হতাশ হয়েছেন। তারা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম গুলোতে চরম ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।

চারদলীয় জোট সরকারের পতনের পর বর্তমান ক্ষমতাধর আওয়ামী লীগ সরকার গঠন করেছিলো। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সরকার প্রধানের দায়িত্ব হাতে নেয়ার পর দেশের অন্যান্য সেক্টরের ন্যায় শিক্ষা ক্ষেত্রেও ব্যাপক পরিবর্তন সাধিত হয়েছে। শিক্ষকদের বেতন বৃদ্ধি পেয়ে দ্বিগুণ হয়েছে। সরকারি কর্মচারীদের ন্যায় ৫% প্রবৃদ্ধি তাদেরকে দেয়া হয়েছে। সরকারিদের ন্যায় ২০% বৈশাখী ভাতাও তাদেরকে দেয়া হয়েছে। অল্প করে হলেও বাড়িভাড়া ও মেডিকেল ভাতাও বৃদ্ধি পেয়েছে। কিন্তু অত্যন্ত দুঃখজনক হলেও সত্য যে চারদলীয় জোট সরকারের দেয়া ২৫% বোনাসের আজও কোনো পরিবর্তন হয়নি।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশের উন্নয়নে কত ব্যয় বহুল পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করে যাচ্ছেন। সে ক্ষেত্রে বেসরকারি শিক্ষকদের বছরে দুইটি উৎসব ভাতা শতভাগ করে দিতে আর বাড়তি কয়টি টাকা ই বা লাগে। সাধারণ শিক্ষকরা মনে করেন শিক্ষক সংগঠন গুলোর বিচ্ছিন্নতাই এ জন্য দায়ী। তারা একত্রিত হয়ে যদি বিষয়টি যদি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টিতে আনতে পারতেন তাহলে এটা পাওয়া কোন বিষয় ই ছিলো না।

বর্তমানে মহামারী করোনার ভয়াল ছোবলে অন্যান্য পেশার লোকদের মতো বেসরকারি শিক্ষকরাও কষ্টে তাদের দিনাতিপাত করছেন। এর মধ্যে সামনে আসছে পবিত্র ঈদ উল ফিতর। এ ঈদে পরিবার পরিজনদের বাড়তি খরচ মেটানোর জন্য শতভাগ বোনাস অতীব প্রয়োজন। তাই বেসরকারি শিক্ষকরা এখনও আশা করছেন যে, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপে বেসরকারি শিক্ষকরা এ ঈদে ই শতভাগ বোনাস পাবেন।

লেখকঃ
মুহাম্মদ জসিম উদ্দীন

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়.