সহনশীলতা কমেছে শিক্ষার্থীদের মধ্যে- নেহাল আহমেদ

নিজস্ব প্রতিবেদক।।

মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা (মাউশি) অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক নেহাল আহমেদ বলেছেন, ছাত্রের ক্রিকেট স্টাম্পের আঘাতে শিক্ষকের মৃত্যুর ঘটনাটি একটি হত্যাকান্ড। আর নড়াইলে শিক্ষকের গলায় জুতার মালা পরানোর ঘটনায় মনে হয়েছে, কেউ উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে এসব করছে। আসলে করোনাকালে শিক্ষার্থীদের ঘরবন্দি থাকাটা তাদের অসামাজিক হওয়ার সুযোগ তৈরি করেছিল। সেটিই এখন প্রভাব ফেলছে। শিক্ষার্থীদের মধ্যে এখন সহনশীলতা কমে গেছে।

গতকাল বাংলাদেশ প্রতিদিনের সঙ্গে আলাপে এসব কথা বলেন তিনি। মাউশি মহাপরিচালক বলেন, সামাজিক অবক্ষয়ের কারণে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষকের ওপর হামলা, লাঞ্ছনার ঘটনা ঘটছে। এসব দেখে মনে হচ্ছে সমাজটাই বোধ হয় নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। আমাদের নীতি-নৈতিকতা, দেশপ্রেম, সহনশীলতা কমে যাচ্ছে।

তিনি বলেন, অপ্রীতিকর পরিস্থিতির উদ্ভব হতে পারে ভেবে নড়াইলে পুলিশকে খবর দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু তারপরও লাঞ্ছনার মতো ঘটনা ঘটেছে। আমার মনে হয়েছে উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে কেউ এসব ঘটনা তৈরি করছে। বিষয়টি সহজভাবে নেওয়ার সুযোগ নেই। শিক্ষার্থীরা ভুল করলে শিক্ষকরা শাসন করবে এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু আশুলিয়ায় ছাত্রের হামলায় শিক্ষক মারা গেলেন! ঘটনাটি ঘটেছে ইভ টিজিংয়ের দায়ে ওই ছাত্রকে শাসন করার জন্য। শিক্ষকরা দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে যদি হামলার শিকার হন তা মেনে নেওয়া যায় না। এমন ঘটনা কারও কাম্য নয়।