সব মাদরাসায় বিজয় দিবস উদযাপনের নির্দেশ

নিজস্ব প্রতিনিধি।।

দেশের প্রতিটি সরকারি ও বেসরকারি মাদরাসা যথাযোগ্য মর্যাদায় মহান বিজয় দিবস পালনের নির্দেশ দিয়েছে মাদরাসা শিক্ষা অধিদপ্তর। সোমবার শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষা বিভাগের সিনিয়র সহকারী সচিব ফুয়ারা খাতুনের সই করা আদেশে এই নির্দেশ দেয়া হয়।

শিক্ষা মন্ত্রণালয় ও মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা অনুযায়ী এই নির্দেশ জারির করার বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া গেছে। তবে এটি আলিয়ার পাশাপাশি কওমি মাদরাসার জন্যও প্রযোজ্য হবে কি না, এ বিষয়ে নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

এই নির্দেশনায় নতুন জাতীয় পতাকা উত্তোলন, বীর মুক্তিযোদ্ধাদের বীরত্মগাঁথা ইতিহাস শিশু কিশোরদেরকে শোনানো, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার প্রতিনিধিদের উপস্থিতিতে নানা অনুষ্ঠান, এমনকি মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক সিনেমা প্রদর্শন করতেও বলা হয়েছে।

বিজয় দিবস পালন সংক্রান্ত শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কোন অফিস আদেশ পাননি বলে জানান কওমি মাদরাসা শিক্ষা বোর্ড- বেফাকুল মাদরাসায়ি আরাবিয়া বাংলাদেশের মহাপরিচালক মাওলানা মোহাম্মদ জুবায়ের। তিনি বলেন, ‘এখন পর্যন্ত এ সংক্রান্ত কোনো অফিস আদেশ পাইনি।’

অফিস আদেশ পেলে কওমি মাদরাসায় বিজয় দিবস পালনের উদ্যোগ নেয়া হবে কি না এমন প্রশ্নে তিনি রাগান্বিত হয়ে বলেন, ‘ফোন রাখেন।’ এরপর তিনি নিজেই ফোনলাইন কেটে দেন।

বাংলাদেশে কওমি বা আলিয়া- কোনো ধরনের মাদরাসাতেই জাতীয় দিবস পালনের চল নেই। জাতীয় সঙ্গীত গাওয়ার ব্যাপারেও আপত্তি আছে বহু জনের। তবে গত বছর বেশ কিছু কওমি মাদরাসায় জাতীয় দিবস পালিত হতে দেখা গেছে।

গত বছর বিজয় দিবসে জাতীয় স্মৃতিসৌধে শ্রদ্ধা জানিয়েছে ধামরাইয়ের মাদরাসাতুল আল-নুর থেকে একদল শিক্ষার্থী। কয়েক দশক আগে শেখ মুজিবুর রহমান ছাড়া সম্বোধন না করলেও ইদানীং বঙ্গবন্ধু বলা হচ্ছে প্রকাশ্যেই। একসময় কঠোর নিন্দা করলেও প্রশংসা করা হচ্ছে তার।

আরো কয়েকটি ছবি সে বছর সামাজিক মাধ্যমে ব্যাপক আকারে ছড়ায়। এগুলোতে দেখা যায়, কওমি মাদরাসার শিশুরা তাদের বুকে জাতীয় পতাকা নিয়ে পড়াশোনা করছে।

আবার জাতীয় পতাকা নিয়ে কওমি শিশুদের মিছিলও দেখা গেছে গতবারের বিজয় দিবস এবং চলতি বছরের স্বাধীনতা দিবসে।

সরকারি নির্দেশনায় যা আছে

মাদরাসা শিক্ষা অধিদফতর স্টিয়ারিং কমিটির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, জেলা ও উপজেলা সদরে স্কুল কলেজ ও মাদরাসার ছাত্র-ছাত্রীদের জাতীয় কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ, সমাবেশ, ক্রীড়া অনুষ্ঠানের আয়োজন করতে হবে। বিকেলে নারীদের ক্রীড়া অনুষ্ঠানেরও ব্যবস্থা করতে হবে।

‘জাতির পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মাণে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ধারণ ও ডিজিটাল প্রযুক্তির সর্বোত্তম ব্যবহার’ শীর্ষক আলোচনা ও সিম্পোজিয়াম অনুষ্ঠানের বিষয়ে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগকে অনুরোধ জানাতে হবে।

জাতীয় পর্যায়ে রচনা ও আবৃত্তি প্রতিযোগিতার আয়োজনসহ সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের উপস্থিতিতে তাদের বীরত্বগাথা মুক্তিযুদ্ধের গুরুত্বপূর্ণ ঘটনার স্মৃতিচারণ শিক্ষার্থীদের সামনে উপস্থাপনের ব্যবস্থা করতে হবে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাসহ সংশ্লিষ্টরা প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন।

ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য বিনা টিকেটে উন্মুক্ত স্থানে মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক সিনেমা প্রদর্শন করতে হবে।

যথাযোগ্য মর্যাদায় ১৬ ডিসেম্বর, মহান বিজয় দিবস-২০২১ উদযাপন উপলক্ষে সূর্যোদয়ের সঙ্গে সঙ্গে নতুন জাতীয় পতাকা (বিধি মোতাবেক সঠিক মাপ ও রংয়ের) উত্তোলন করতে হবে। কোনোক্রমেই পুরনো পতাকা উত্তোলন করা যাবে না।