সন্তান না নিতে চাওয়া ভারতীয়র সংখ্যা বাড়ছে

নিজস্ব প্রতিবেদক।।

ভারতে যৌথ পরিবারের সংস্কৃতি এখনো বিদ্যমান রয়েছে। বিয়ের পর সন্তানের জন্ম দেওয়াটাই স্বাভাবিক হিসেবে ধরে নেওয়া হয়। আগের দিনে বেশি সংখ্যক সন্তানের জন্ম দিলেও এখনকার দম্পতিরা কম সংখ্যক সন্তান নিচ্ছেন। দেশটিতে কন্যাভ্রুণ হত্যার ঘটনা অহরহ ঘটে।

এজন্য কন্যাভ্রুণ হত্যা বিরোধী আন্দোলন থেকে শুরু করে নারীদের সমান অধিকার নিয়েও বহু প্রচার হয়েছে। সোশ্যাল মিডিয়া থেকে শুরু করে সমস্ত রকমের ‘মাধ্যমে’ গ্রামেগঞ্জে কন্যা সন্তানকে রক্ষার জন্য বার্তা দিয়েছে সরকার।

এই ইস্যুতে ক্রমাগত লড়ে যাচ্ছে বিভিন্ন সমাজসেবী সংগঠন। বিভিন্ন সমীক্ষায় দেখা গেছে, প্রথমবার কন্যা সন্তান হলে তাকে মেনে নিতে যতটা গড়িমসি করেন দম্পতিরা, পুত্রসন্তান জন্মের পর কন্যাসন্তান হলে কিন্তু তেমনটা করেন না।

ইদানীং বহু ভারতীয় দম্পতি সন্তানের জন্মই দিতে চান না। বিবিসির নিকিতা মান্দানি কয়েকজন ভারতীয় দম্পতির সঙ্গে কথা বলেছেন, তাদের কাছ থেকে এ ব্যাপারে জানতে চেয়েছেন। এক নারী জানান, আমি বাচ্চাদের সঙ্গে ভালো থাকতে পারি না। আমি জানি না যে, পাঁচ মিনিট পরে তাদের কী বলবো।

আরেক যুবক বলেন, আমার বন্ধুর যখন সন্তান জন্ম নিল। সে পুরোপুরি পরিবর্তন হতে শুরু করল। মজার মানুষ থেকে সে বিরক্তিকর মানুষে রূপান্তরিত হলো। এসব দেখে আমার বাচ্চা নেওয়ার ইচ্ছা নেই।

আরেক যুবক জানান, আমার মা-বাবার বৈবাহিক সম্পর্ক সুখকর নয়। অভিভাবক হিসেবেও তারা আদর্শ নয়। আমার মনে হয়, আমিও বাবা হিসেবে ভালো হবো না। সে কারণে সন্তান নিতে চাই না। সূত্র: বিবিসি।