সঞ্চয়পত্র বিক্রি কম ভাঙছেন বেশি

নিজস্ব প্রতিবেদক।।

দেশে সঞ্চয়পত্র বিক্রি কমেছে। অন্যদিকে ভাঙছে বেশি। সেপ্টেম্বরে সঞ্চয়পত্রের নিট বিক্রি ৭০ কোটি ৬৩ হাজার টাকা ঋণাত্মক (নেগেটিভ) হয়েছে। অর্থাৎ সঞ্চয়পত্র ভাঙানোর কারণে এই টাকা সরকার তার কোষাগার থেকে গ্রাহকদের সুদ-আসল বাবদ প্রদান করেছে। গত বছরের সেপ্টেম্বরে নিট বিক্রির পরিমাণ ছিল ২ হাজার ৮২৫ কোটি টাকা। সূত্র জানায়, উন্নয়ন কর্মকাণ্ডসহ বাজেটের অন্যান্য খরচ মেটাতে বছরের পর বছর ধরে সঞ্চয়পত্র থেকে ঋণ নিয়ে আসছিল সরকার। কিন্তু এখন ঋণ বা ধারের পরিবর্তে যে টাকার সঞ্চয়পত্র বিক্রি হচ্ছে, তা দিয়ে আগে বিক্রি হওয়া সঞ্চয়পত্রের সুদ-আসলই মেটানো যাচ্ছে না। বিক্রির চেয়ে সুদ-আসল পরিশোধেই চলে যাচ্ছে বেশি। সংশ্লিষ্টরা জানান, সাধারণত সঞ্চয়পত্র রাখে মধ্যবিত্ত মানুষ। দেশের মূল্যস্ফীতি যে পরিমাণে বাড়ছে এর জন্য মধ্যবিত্তদের খরচ বেড়ে গেছে।

বাজারে জিনিসপত্রের দাম বাড়ায় মানুষের সঞ্চয় করার ক্ষমতা কমে গেছে। এ কারণে মানুষ আর আগের মতো সঞ্চয়পত্র কিনতে পারছে না। একইসঙ্গে গ্রাহক ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে অধিক পরিমাণে হাতে টাকা রাখছে যার কারণে সঞ্চয়পত্র বিক্রি কমেছে।
বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) তথ্য বলছে, পয়েন্ট-টু-পয়েন্ট ভিত্তিতে (মাসভিত্তিক) সেপ্টেম্বর মাসে মূল্যস্ফীতির হার ছিল ৯.১০ শতাংশ। আগস্টে এই হার ছিল আরও বেশি ৯.৫২ শতাংশ। অন্যদিকে সেপ্টেম্বরে মজুরি সূচক ছিল ৬.৮৬ শতাংশ। বিবিএসের এই তথ্যই বলছে, দেশের মানুষ যা আয় করছে, তা তার সংসারই চলছে না; সঞ্চয় করবে কীভাবে? জাতীয় সঞ্চয় অধিদপ্তর সঞ্চয়পত্র বিক্রির হালনাগাদ তথ্যে দেখা গেছে, সেপ্টেম্বর মাসে যে টাকার সঞ্চয়পত্র সরকার বিক্রি করেছে, তারচেয়ে ৭০ কোটি ৬৩ লাখ টাকা বেশি খরচ হয়েছে সুদ-আসল পরিশোধে। এই মাসে সব মিলিয়ে ৬ হাজার ৯৭৩ কোটি টাকার বিভিন্ন ধরনের সঞ্চয়পত্র বিক্রি করেছে সরকার। আর আগে বিক্রি হওয়া সঞ্চয়পত্রের সুদ-আসল বাবদ ৭ হাজার ৪৩ কোটি ৮৬ লাখ টাকা শোধ করা হয়েছে। এই হিসাবে দেখা যাচ্ছে, সেপ্টেম্বর মাসে সঞ্চয়পত্রের নিট বিক্রি ৭০ কোটি ৬৩ হাজার টাকা ঋণাত্মক (নেগেটিভ) হয়েছে। এই টাকা সরকার তার কোষাগার থেকে গ্রাহকদের সুদ-আসল বাবদ দিয়েছে। পিআরআই নির্বাহী পরিচালক আহসান এইচ মনসুর বলেন, সুদের হার হ্রাস ও নানা ধরনের কড়াকড়ি আরোপের কারণে সাধারণ মানুষের সবচেয়ে নিরাপদ বিনিয়োগ সঞ্চয়পত্র বিক্রি কমে গেছে। সে কারণেই নিট বিক্রি নেগেটিভ হয়েছে। সরকারকে কোষাগার থেকে সুদ-আসল পরিশোধ করতে হচ্ছে। তিনি বলেন, বাজারে সব জিনিসের দামই চড়া। মূল্যস্ফীতি ৯ শতাংশের উপরে। পরিবহন, শিক্ষা, চিকিৎসাসহ অন্য সব খাতেই খরচ বেড়েছে। এতে মানুষের সঞ্চয় করার ক্ষমতা কমে গেছে। ফলে সঞ্চয়পত্র কিনছে কম, ভাঙছে বেশি।

জানা গেছে, বিক্রির চাপ কমাতে ২০১৯ সালের ১লা জুলাই থেকে মুনাফার ওপর উৎসে করের হার ৫ শতাংশ থেকে বাড়িয়ে ১০ শতাংশ করা হয়। একই সঙ্গে এক লাখ টাকার বেশি সঞ্চয়পত্র কিনতে টিআইএন (কর শনাক্তকরণ নম্বর) বাধ্যতামূলক করা হয়। ব্যাংক অ্যাকাউন্ট না থাকলে সঞ্চয়পত্র বিক্রি না করার শর্ত আরোপসহ আরও কিছু কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হয়। তারপরও বাড়তে থাকে বিক্রি। সবশেষ সঞ্চয়পত্র খাতে সরকারকে যাতে বেশি সুদ পরিশোধ করতে না হয়, সে জন্য বিক্রি কমাতে গত বছরের ২২শে সেপ্টেম্বর থেকে ১৫ লাখ টাকার বেশি বিনিয়োগের ক্ষেত্রে সব ধরনের সঞ্চয়পত্রের সুদের হার ২ শতাংশের মতো কমিয়ে দেয় সরকার। এর পর থেকেই বিক্রি কমছে। সঞ্চয় অধিদপ্তরের তথ্যমতে, ২০২২-২৩ অর্থবছরের প্রথম তিন মাসে (জুলাই-সেপ্টেম্বর) মোট ২১ হাজার ৫১১ কোটি ৩৫ লাখ টাকার সঞ্চয়পত্র বিক্রি হয়েছে। এরমধ্যে আগে বিক্রি হওয়া সঞ্চয়পত্রের সুদ-আসল বাবদ ২১ হাজার ১৮০ কোটি ৭৮ লাখ টাকা শোধ করা হয়েছে। এ হিসাবে এই তিন মাসে নিট বিক্রির পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৩৩০ কোটি ৫৭ লাখ টাকা। অথচ গত বছরের জুলাই-সেপ্টেম্বর সময়ে ৮ হাজার ৫৫৮ কোটি টাকার নিট সঞ্চয়পত্র বিক্রি হয়েছিল। চলতি অর্থবছরের প্রথম মাস জুলাইয়ে ৩৯৩ কোটি ১১ লাখ টাকার নিট সঞ্চয়পত্র বিক্রি হয়েছিল।

গত বছরের জুলাইয়ে বিক্রির অঙ্ক ছিল ২ হাজার ১০৪ কোটি টাকা। এই বছরের জুলাইয়ের চেয়ে গত বছরের জুলাইয়ে সাড়ে পাঁচ গুণ বেশি নিট সঞ্চয়পত্র বিক্রি হয়েছে। আগস্টে নিট বিক্রির পরিমাণ ছিল মাত্র ৮ কোটি টাকা। গত বছরের আগস্টে নিট বিক্রির পরিমাণ ছিল ৩ হাজার ৬২৮ কোটি ৫৮ লাখ টাকা। এ হিসাবে দেখা যাচ্ছে, এই আগস্টের চেয়ে গত বছরের আগস্টে ৪৪৯ গুণ বেশি সঞ্চয়পত্র বিক্রি হয়েছিল। বাজেট ঘাটতি মেটাতে চলতি অর্থবছর সঞ্চয়পত্র থেকে সরকারের ৩৫ হাজার কোটি টাকা ঋণ নেয়ার লক্ষ্যমাত্রা ধরেছে সরকার। এর বিপরীতে প্রথম তিন মাসে পেয়েছে মাত্র ৩৩০ কোটি ৫৭ লাখ টাকা। আগে বিক্রি হওয়া সঞ্চয়পত্রের সুদ-আসল গ্রাহকদের পরিশোধের পর যেটা অবশিষ্ট থাকে, তাকে বলা হয় নিট বিক্রি। ওই অর্থ সরকারের কোষাগারে জমা থাকে এবং সরকার তা রাষ্ট্রীয় কর্মসূচি বাস্তবায়নে কাজে লাগায়। বিনিময়ে সঞ্চয়পত্রের গ্রাহকদের প্রতি মাসে সুদ দিতে হয়। এ কারণে অর্থনীতির পরিভাষায় সঞ্চয়পত্রের নিট বিক্রিকে সরকারের ‘ঋণ’ বা ‘ধার’ হিসেবে গণ্য করা হয়।