সংখ্যালঘু হত্যা তথ্যের জন্য জাতীয় হিন্দু মহাজোটের দুঃখ প্রকাশ

অনলাইন ডেস্ক।।

দেশের সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের ওপর নির্যাতনবিষয়ক সংগঠনের প্রতিবেদনে প্রকাশিত ‘বিগত ২০২২ সালে ১৫৪ জন সংখ্যালঘুকে হত্যা করা হয়’ শীর্ষক বক্তব্যের জন্য দুঃখ প্রকাশ করেছে বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু মহাজোট। সংগঠনটি বলেছে, অনিচ্ছাকৃত ভুল এবং পরবর্তী বিশদ বিবরণের অভাবে খুব সহজে ১৫৪ জন নিহতের বিষয়টি অতি সরলীকরণ করা হয়েছে। এ জন্য আমরা আন্তরিকভাবে দুঃখ প্রকাশ করছি।

আজ শুক্রবার রাজধানীর সেগুনবাগিচায় ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) সাগর-রুনি মিলনায়তনে এক সংবাদ সম্মেলনে এই দুঃখ প্রকাশ করা হয়। এর আগে গত ৬ জানুয়ারি জাতীয় হিন্দু মহাজোটের আরেকটি সংবাদ সম্মেলনে প্রকাশিত সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের ওপর নির্যাতনবিষয়ক প্রতিবেদন নিয়ে ‘জনমনে সৃষ্ট বিভ্রান্তি নিরসনে এই সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে জাতীয় হিন্দু মহাজোটের মহাসচিব অ্যাডভোকেট গোবিন্দ চন্দ্র প্রামাণিক বলেন, অনিচ্ছাকৃত ভুলবশত হিন্দু মহাজোটের প্রতিবেদনের শুরুতে দেশে ২০২২ সালে ১৫৪ জন সংখ্যালঘুকে হত্যা করা হয় মর্মে উদ্ধৃত করা হয়। মূলত আমরা বলতে চেয়েছি ২০২২ সালে বিভিন্ন কারণে ১৫৪ জন সংখ্যালঘু নিহত হন। এসব নিহতের ঘটনার সবগুলো সাম্প্রদায়িক সহিংসতার সঙ্গে সম্পৃক্ত নয়। বরং বেশ কিছু ক্ষেত্রে জমিজমার বিরোধ, অর্থনৈতিক ও ব্যবসায়িক দ্বন্দ্ব, পূর্বশত্রুতার ঘটনা, স্থানীয় দ্বন্দ্ব ও কলহ, রাজনৈতিক সংঘাত এবং দৈনন্দিন জীবনের ঘটনাবলির কারণে সংঘটিত হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন হিন্দু মহাজোটের নির্বাহী সভাপতি অ্যাডভোকেট দীনবন্ধু রায়, কেন্দ্রীয় নেতা অভয় কুমার রায়, সুজন দে, সুশান্ত কুমার চক্রবর্তী, প্রদীপ চন্দ্র, হিন্দু মহিলা মহাজোটের সভাপতি অ্যাডভোকেট লাকী বাছাড় ও সাধারণ সম্পাদক মুক্তা বিশ্বাসসহ অন্যান্য নেতা।