ষষ্ঠ শ্রেণির ইংরেজি বইয়ে ৪৮ ভুল

শিক্ষাবার্তা ডেস্ক, ঢাকাঃ প্রতি বছরই নানা ধরনের পরিমার্জন করা হলেও পাঠ্যবইয়ে থেকেই যাচ্ছে ভুল আর অসংগতি। কিন্তু দীর্ঘ পরিকল্পনা ও যাচাই-বাছাই শেষে এ বছর থেকে চালু হওয়া নতুন শিক্ষাক্রমের বইয়ে ভুলত্রুটি খুবই কম থাকবে সেটাই আশা ছিল সবার। কিন্তু নতুন শিক্ষাক্রম চালু হওয়ার ১৫ দিনের মধ্যেই বিভিন্ন ধরনের ভুল আর অসংগতি চোখে পড়ছে। এতে অনেকটাই হতাশ শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা।

এ বছরের মাধ্যমিক স্তরের ইংরেজি ভার্সনের সপ্তম শ্রেণির ‘Science Exercise Book’ বইয়ের প্রথম অধ্যায়ের অনেক প্যারাগ্রাফ ন্যাশনাল জিওগ্রাফিক এডুকেশনাল সাইট ‘nationalgeographic.org’ থেকে নেওয়া হয়েছে। কিছু প্যারাগ্রাফ ওয়ার্ড-বাই-ওয়ার্ড কপি করা হয়েছে। এ বইয়ের প্রথম অধ্যায়ে ‘বায়োডায়ভারসিটি’ অধ্যায়ে ৫ নম্বর পৃষ্ঠার প্রায় বেশিরভাগ লেখাই হুবহু কপি করা হয়েছে। আর ৩ নম্বর পৃষ্ঠার কিছু অংশও কপি করা হয়েছে। এভাবে নতুন শিক্ষাক্রমের বিভিন্ন বইতে অসংখ্য বানান ভুল ও বাক্য গঠনে অসংগতি পাওয়া গেছে।

এ বইটির লেখক প্যানেলে ছিলেন ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল, ড. হাসিনা খান, ড. মোহাম্মদ মিজানুর রহমান খান, ড. মুশতাক ইবনে আইয়ূব ও রনি বসাক। আর সম্পাদনা করেছেন ড. মুহাম্মদ জাফর ইকবাল। নতুন শিক্ষাক্রমের আলোকে লেখা সপ্তম শ্রেণির ‘Science Exercise Book’ বইয়ের একটি অংশ ‘ইন্টারনেট থেকে হুবহু কপি করা হয়েছে’ বলে যে অভিযোগ উঠেছে তার দায় স্বীকার করেছেন বইটির রচনা ও সম্পাদনার সঙ্গে যুক্ত অধ্যাপক মুহম্মদ জাফর ইকবাল ও অধ্যাপক হাসিনা খান। যদিও এর দায় স্বীকার করে বিবৃতি দিয়েছেন ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল, ড. হাসিনা খান।

জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডের (এনসিটিবি) সদস্য (শিক্ষাক্রম) অধ্যাপক মো. মশিউজ্জামান বলেন, ‘পাঠ্যবইয়ের কোথায় কোথায় ভুলত্রুটি আছে তা খুঁজতে ইতিমধ্যে একটি কমিটি কাজ শুরু করেছে। এ ছাড়া নতুন শিক্ষাক্রমের ব্যাপারে একাধিক কমিটি মার্চ মাসে স্কুলে স্কুলে ঘুরে শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের মতামত সংগ্রহ করবে। আগামী বছরের বই পরিমার্জনে তাদের মতামতকে গুরুত্ব সহকারে বিবেচনা করা হবে। যতটা নির্ভুল পরিমার্জন করা যায়, সেটা আমরা করব।’

সূত্র জানায়, ২০২৩ শিক্ষাবর্ষ থেকে প্রথম, ষষ্ঠ ও সপ্তম শ্রেণিতে নতুন শিক্ষাক্রম চালু হয়েছে। আগামী বছর দ্বিতীয় ও তৃতীয় শ্রেণি এবং অষ্টম ও নবম শ্রেণি এ শিক্ষাক্রমের আওতায় আসবে। ২০২৫ সালে চতুর্থ ও পঞ্চম শ্রেণি এবং দশম শ্রেণি যুক্ত হবে। ২০২৬ সালে একাদশ ও ২০২৭ সালে দ্বাদশ শ্রেণি যুক্ত হবে।

সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা বলছেন, নতুন শিক্ষাক্রম নিয়ে প্রায় তিন বছর আগে কাজ শুরু হয়। ২০২২ সাল থেকে নতুন শিক্ষাক্রম চালুর কথা ছিল। কিন্তু প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি ও যথাযথ পা-ুলিপি তৈরি না হওয়ায় তা শুরু করা যায়নি। তবে ওই বছর কিছু স্কুলে পাইলটিং করা হয়। এরপর এ বছর থেকে তিনটি শ্রেণিতে তা চালু করা হয়।

নতুন শিক্ষাক্রমের একাধিক বই বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, ষষ্ঠ শ্রেণির ইংরেজি বইয়ের ব্যাক কভারে লেখা হয়েছে, ‘Government of the Peoples’ Republic of Bangladesh’. কিন্তু বাংলাদেশের অফিশিয়াল নাম ‘Government of the People’s Republic of Bangladesh’. এ ছাড়া এই শ্রেণির একাধিক বইয়ের অনেক জায়গায় একই শব্দের একেকভাবে লেখা হয়েছে। যেমন কেন/কেনো, পড়/পড়ো, নিচে/নীচে, যে কোন/যেকোন ইত্যাদি।

নতুন শিক্ষাক্রমের ষষ্ঠ শ্রেণির ইংরেজি বইয়ের নানা ভুলত্রুটি খুঁজে বের করেছেন মাসুম হাসান নামের একজন শিক্ষক। তিনি এতে ৪৮টি ভুল পেয়েছেন। এই বইয়ের ১৫ পৃষ্ঠায় ‘লিটল থিংস’ কবিতাটি দেওয়া হয়েছে। কিন্তু এতে কবির নাম দেওয়া হয়নি। অথচ এই বহুল প্রচলিত কবিতাটি লিখেছেন আমেরিকান কবি জুলিয়া অ্যাবিগেল ফ্লেচার কার্নি। একইভাবে ১০১ পৃষ্ঠায় ‘মাই বুকস’ কবিতাটিতেও কবির নাম নেই।

এ ছাড়া বইটির বিভিন্ন পৃষ্ঠায় বানান, বাক্য গঠন ও গ্রামারের ব্যবহারে অসংখ্য ভুল রয়েছে। ১৭ নম্বর পৃষ্ঠার ৮ নম্বর লাইনে লেখা হয়েছে agesz, সঠিক হবে ধমবং. ১৮ পৃষ্ঠার ১১ নম্বর লাইনে আছে things, হবে Things. ২৩ পৃষ্ঠার ৭ নম্বর লাইনে লেখা হয়েছে ‘প্রাত্যাহিক’, সঠিক হবে ‘প্রাত্যহিক’। ৩৫ নম্বর পৃষ্ঠায় মোটা অক্ষরে লেখা হয়েছে anoter, সঠিক হবে other. ৪০ পৃষ্ঠায় ১১ ও ১২ নম্বর লাইনে লেখা হয়েছে dinner, হবে supper. ৪৪ পৃষ্ঠায় ৭ নম্বর লাইনে আছে hand, হবে hands. ৫২ পৃষ্ঠায় ২ নম্বর লাইনে আছে his head, হবে her head. ৬৯ পৃষ্ঠায় ২৩ নম্বর লাইনে আছে Modal verb, হবে Modal verbs. ৮০ পৃষ্ঠায় ১ নম্বর লাইনে আছে has recently transferred, হবে has recently been transferred এবং ৫ নম্বর লাইনে আছে যব attends, হবে she attends. ৮২ পৃষ্ঠায় ১৭ নম্বর লাইনে আছে conversion, হবে conversation. ৮৪ পৃষ্ঠায় ১৮ নম্বর লাইনে আছে younger, হবে youngers. ৮৫ পৃষ্ঠায় ৬ নম্বর লাইনে আছে word means, হবে words mean. ৯২ পৃষ্ঠার নিচ থেকে ৩ নম্বর লাইনে লেখা parent’s, হবে parents. ১০২ পৃষ্ঠার নিচ থেকে ২ নম্বর লাইনে লেখা word, হবে words. ১০৪ পৃষ্ঠার ১০ নম্বর লাইনে লেখা ‘You’, হবে ‘you’ এবং শেষ লাইনে আছে ণড়ঁ, হবে ুড়ঁ. ১০৬ পৃষ্ঠার চিঠিতে শুরুতেই লেখা হয়েছে Assalamu Alaaikum, স্বাভাবিকভাবেই মুসলিম বাদে অন্যান্য ধর্মের শিক্ষার্থী এ শব্দটি গ্রহণ করবে না। একই পৃষ্ঠায় নিচ থেকে ৩ নম্বর লাইনে আছে ঈড়ারফ, হবে ঈঙঠওউ.

১০৮ পৃষ্ঠায় ২ নম্বর লাইনে লেখা ওভ, হবে রভ এবং ৪ নম্বর লাইনে আছে Dear madam/sir, হবে Dear Madam/Sir. ১০৯ পৃষ্ঠায় ৫ ও ১৮ নম্বর লাইনে আছে expressions, হবে Expression. ১১০ পৃষ্ঠার নিচ থেকে ৭ নম্বর লাইনে আছে ‘অংশ গ্রহণ’ হবে ‘অংশগ্রহণ’। ১৩১ পৃষ্ঠায় নিচ থেকে ৯ নম্বর লাইনে আছে oldest, হবে eldest. ১৩৩ পৃষ্ঠায় নিচ থেকে ২ নম্বর লাইনে লেখা ‘কার্য্যক্রম’, লেখা উচিত ‘কার্যকলাপ বা কর্মকা-’ এবং নিচ থেকে ১ নম্বর লাইনে আছে ‘শ্রেনি’, হবে ‘শ্রেণি’। ১৩৪ পৃষ্ঠায় ৯ নম্বর লাইনে আছে ‘তাছাড়াও’, লেখা উচিত ‘এছাড়াও বা তাছাড়া’ এবং একই লাইনে আছে ‘বৈশিষ্ট্যবলী’ তবে লেখা উচিত ‘বৈশিষ্ট্যগুলো’।

১৩৮ পৃষ্ঠার নিচ থেকে প্রথম লাইনে আছে Eid-al-Azha, হবে Eid-al-Adha. ১৩৯ পৃষ্ঠার ৩ ও ৪ নম্বর লাইনে আছে each other, হবে one another. ১৪২ পৃষ্ঠার ৬ নম্বর লাইনে আছে I ate, হবে I have eaten. ১৪৫ পৃষ্ঠার ১০ নম্বর লাইনে আছে each othe’s, হবে one another’s. ১৪৮ পৃষ্ঠার ১৪ নম্বর লাইনে আছে ‘শব্দলোর’, হবে ‘শব্দগুলোর’। ১৪৯ পৃষ্ঠার ১৪ নম্বর লাইনে আছে Four Friend’s, হবে Four Friends এবং একই লাইনে আছে ‘খুজে’, হবে ‘খুঁজে’। ১৫১ পৃষ্ঠার ৭ নম্বর লাইনে লেখা আছে ‘সব বন্ধু-বান্ধবদেরকে’, লেখা উচিত ‘সব বন্ধুকে’ এবং একই লাইনে আছে ‘উৎসবমূখর’, হবে ‘উৎসবমুখর’। ১৫৬ পৃষ্ঠার নিচ থেকে ১০ নম্বর লাইনে আছে it’s paws, হবে its paws. ১৬০ পৃষ্ঠার ৫ নম্বর লাইনে লেখা religion, হবে religions. ১৬৪ পৃষ্ঠার ৬ নম্বর লাইনে listening, হবে listening to. ১৬৫ পৃষ্ঠায় নিচ থেকে ২ নম্বর লাইনে লেখা ‘কৃত্তিমভাবে’, হবে ‘কৃত্রিমভাবে’। আর ১৬৭ পৃষ্ঠার ৫ নম্বর লাইনে আছে Celerate, হবে Celebrate এবং নিচ থেকে ২ নম্বর লাইনে আছে Starring, হবে Staring.

শুধু নতুন শিক্ষাক্রমই নয় পুরনো কারিকুলামের বইতেও রয়েছে অনেক ভুল। ২০২৩ শিক্ষাবর্ষের নবম-দশম শ্রেণির ‘বাংলাদেশ ও বিশ্বপরিচয়’ পাঠ্যবইয়ের ১৬ নম্বর পৃষ্ঠায় বলা হয়েছে ‘পাকিস্তানি বাহিনী ঢাকার রাজারবাগ পুলিশ ক্যাম্প, পিলখানা ইপিআর ক্যাম্প ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ জায়গায় আক্রমণ চালায় ও নৃশংসভাবে গণহত্যা ঘটায়।’ এখানে তথ্যগত দুটি ভুল আছে। প্রকৃতপক্ষে রাজারবাগে ছিল পুলিশ লাইনস, আর পিলখানায় ছিল ইপিআর সদর দপ্তর। গত বছরের বইয়েও একই ভুল ছিল। একই শ্রেণির ‘বাংলাদেশের ইতিহাস ও বিশ্বসভ্যতা’ বইয়ের ২০০ নম্বর পৃষ্ঠায় বলা আছে, ‘১২ই জানুয়ারি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান প্রধান বিচারপতি আবু সাদাত মোহাম্মদ সায়েমের নিকট প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথগ্রহণ করেন।’ এ তথ্যও সঠিক নয়। প্রকৃতপক্ষে বঙ্গবন্ধুকে শপথ পড়িয়েছিলেন তৎকালীন রাষ্ট্রপতি বিচারপতি আবু সাঈদ চৌধুরী। একই বইয়ের ১৮১ পৃষ্ঠায় ‘অবরুদ্ধ বাংলাদেশ ও গণহত্যা’ অনুচ্ছেদে উল্লেখ আছে, ‘২৬ মার্চ থেকে ১৬ ডিসেম্বর বাংলাদেশজুড়ে পাকিস্তান সামরিক বাহিনী নির্যাতন, গণহত্যা আর ধ্বংসলীলায় মেতে ওঠে।’ প্রকৃত তথ্য হলো, পাকিস্তান সামরিক বাহিনীর নির্যাতন, গণহত্যা ও ধ্বংসলীলা শুরু হয় ২৫ মার্চ কালরাতে।

এর আগে নবম-দশম শ্রেণির বাংলাদেশের ইতিহাস ও বিশ্বসভ্যতা, বাংলাদেশ ও বিশ্ব পরিচয় এবং পৌরনীতি ও নাগরিকতা বিষয়ে মোট ৯টি সংশোধনী দিয়েছে এনসিটিবি। এতে মূলত ইতিহাসভিত্তিক কিছু তথ্যের সংশো

শিক্ষাবার্তা ডট কম/এএইচএম/০১/২২/২৩    

ধন করা হয়েছে।