শূন্য যেভাবে “০” হলো

নিজস্ব প্রতিবেদক।।

মানুষ যখন সংখ্যা বা অঙ্ক শেখা শুরু করে, তখন নিশ্চয় ভেবে দেখেনা, এগুলো আসলে কোথা থেকে এলো? আসলে ১,২.৩…এ রকম প্রতিটি অঙ্কের পেছনে একেকটি ঘটনা আছে। ‘শূন্য’ও তেমনি একটি অঙ্ক। ‘শূন্য‘ কীভাবে শূন্য হলো, তা জানানোর প্রয়াস থাকবে এ লেখায়।

শূন্যের ইতিহাস
শুরুতে ‘শূন্যে’র ব্যবহার ছিল ভিন্ন। এখনকার মতো শূন্য গণিতের অবিচ্ছেদ্য অংশ তখনো ছিল না। সাধারণত: কোনো সংখ্যা নেই, এমন সব জায়গায় শূন্যের ব্যবহার হতো। কিন্তু এখন গণিতে শূন্যের ব্যবহার অসীম। সংখ্যা এবং অঙ্কে এর ব্যবহার এখন প্রচলিত। ইংরেজীতে শূন্যকে “nought”, “zero”, “nil” or the “naught” ও বলা হয়। ইংরেজী ‘জিরো’ শব্দটির মূল উৎপত্তি আবরি ‘সাফিরা’ থেকে। এরপর ইটালিয়ান ‘জেফিরো’, তারপর ভেনেশীয় ‘জিরো’ এবং শেষে ফ্রেঞ্জ ‘জি’রো’ থেকে ইংরেজী ‘জিরো’ শব্দের আবির্ভাব। সাফিরা শব্দটির উৎপত্তি আবার ‘সিফর’ থেকে, যার অর্থ হচ্ছে ‘কিছুনা’। ১৫৯৮ সালে ইংরেজীতে সর্বপ্রথম ‘জিরো’ অঙ্কটি ব্যবহৃত হয়। সংস্কৃতে একে ‘শূন্য’ বলা হয়।

শূন্য কে আবিষ্কার করেন?

শূন্য আবিষ্কারের আগে ম্যাথমেটিকোসের সংখ্যা গণনা এবং অনেক গাণিতিক প্রশ্ন সমাধানে অসুবিধা ছিল। যদি দেখা যায়, শূন্যের আবিষ্কার গণিতের ক্ষেত্রে একটি বিপ্লবের মতো। যদি শূন্য আবিষ্কার না করা হত তবে গণিত আজকের তুলনায় অনেকগুণ বেশি কঠিন হত। আজ, আমরা যেভাবে “০ “ব্যবহার করছি এবং আমাদের যে শূন্যের সঠিক সংজ্ঞা রয়েছে, এর পিছনে অনেক গণিতবিদ এবং বিজ্ঞানীদের অবদান রয়েছে। তবে জিরো জে আবিষ্কারের মূল কৃতিত্ব ভারতীয় পণ্ডিত ‘ব্রহ্মগুপ্ত‘ এর কাছে। কারণ তিনি শুরুতে নীতিগুলি সহ শূন্যের পরিচয় দিয়েছিলেন।

ভারতের মহান গণিতবিদ ও জ্যোতিষী ব্রহ্মগুপ্তের আগে আর্যভট্ট শূন্য ব্যবহার করেছিলেন, তাই বহু লোক আর্যভট্টকেও শূন্যের জনক বলে বিবেচনা করেছিলেন। কিন্তু তত্ত্ব না দেওয়ার কারণে তাকে শূন্যের প্রধান উদ্ভাবক হিসাবে বিবেচনা করা হয় না। শূন্য আবিষ্কার সম্পর্কে প্রথম থেকেই ভিন্নতা ছিল। কারণ গণনাটি অনেক দিন আগে করা হচ্ছে তবে শূন্য ছাড়া এটি অসম্ভব বলে মনে হয়। তবে এটি এমনটি নয়, এর আগেও, মানুষ কোনও নীতি ছাড়াই বিভিন্ন উপায়ে শূন্য ব্যবহার করত এবং এর কোনও চিহ্নও ছিল না। ব্রহ্মগুপ্ত এটি প্রতীক এবং নীতিগুলির সাথে পরিচয় করিয়েছিলেন এবং এটি গণিতবিদ এবং জ্যোতিষী আর্যভট্ট ব্যবহার করেছিলেন।

শূন্যে আবিষ্কারের গল্প
শূন্যের আবিষ্কার ঠিক কবে, কোথায় হয়েছিল তা নিয়ে নানা মুনীর নানা মত। তবে বহুল স্বীকৃত মত হল শূন্য আবিষ্কার হয়েছে আমাদের ভারতীয় উপমহাদেশে। এবং আবিষ্কারক হলেন আর্যভট্ট। শূন্য আবিষ্কারের ফলে গণিত শাস্ত্র অনেক সহজ হল। দশমিক পদ্ধতিতে অঙ্ক সহজ হল। পাটীগণিত পদ্ধতিতে নির্ভুল সমাধান করা যেতে লাগল, এখন কেউ কেউ ভাববেন শূন্য সংখ্যাটি আবিষ্কারের আগে কি অঙ্ক শাস্ত্র ছিল না ? অঙ্ক শাস্ত্র শূন্য আবিষ্কারের বহু আগে থেকেই ছিল। গণিত শব্দটি এসেছে গণনা থেকে। আগে বিভিন্ন সভ্যতায় ১ থেকে ১০ পর্যন্ত সংখ্যামালা ছিল। মেসোপটেমিয়া সভ্যতাতে ১ থেকে ৬০ অব্দি সংখ্যাগুলিকে বিভিন্ন অক্ষর দিয়ে প্রকাশ করা হত।

শূন্য আবিষ্কারে আর্যভট্টের অবদান
প্রচুর লোক বিশ্বাস করেন যে শ্রবণের উদ্ভাবন হয়েছিল ভারতের জনপ্রিয় গণিতবিদ এবং জ্যোতিষী আর্যভট্ট দ্বারা। এটি অনেকাংশে সত্যও কারণ আর্যভট্টই প্রথম ব্যক্তি যিনি শূন্য ধারণাটি দিয়েছিলেন। আর্যভট্ট বিশ্বাস করেছিলেন যে এমন একটি সংখ্যা থাকা উচিত যা দশ-অঙ্কের প্রতীক হিসাবে দশটি এবং একক অঙ্ক হিসাবে শূন্যকে (কোনও মূল্য ছাড়াই) উপস্থাপন করতে পারে।অর্থাৎ, আর্যভট্ট শূন্য ধারণাটি দিয়েছিলেন এবং তারপরে ষষ্ঠ শতাব্দীতে ০ নীতিটি দিয়েছিলেন। আর্যভট্ট ব্রহ্মগুপ্ত ছাড়াও চুন্নির আবিষ্কারের কৃতিত্ব অন্য এক ভারতীয় গণিতবিদ, যার নাম ছিল শ্রীধরাচার্য। শ্রীধরচার্য ৮ ম শতাব্দীতে ভারতে শূন্যের ক্রিয়াকলাপ আবিষ্কার করেছিলেন এবং এর বৈশিষ্ট্যগুলি ব্যাখ্যা করেছিলেন।