শুন্য আসনে ভোটের বিষয়ে ইসির নতুন নির্দেশনা

অনলাইন ডেস্ক।।

বিএনপি এমপিদের পদত্যাগে শূন্য হওয়া জাতীয় সংসদের ৫টি আসনের আসন্ন উপ-নির্বাচন উপলক্ষে ভোটার এলাকায় অনুমতি ছাড়া সরকারি কর্মচারীদের বদলি না করার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষগুলোকে নির্দেশনা দিয়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)।

আগামী ১ ফেব্রুয়ারি ঠাকুরগাঁও-৩, বগুড়া-৪, বগুড়া-৬, চাঁপাইনবাবগঞ্জ-২ ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ আসনে এই উপ-নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

ইসির উপ-সচিব মো. আতিয়ার রহমান ওই নির্দেশনাটি ইতোমধ্যে রিটার্নিং কর্মকর্তা, জেলা প্রশাসক ও আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তাকে পাঠিয়েছেন। নির্দেশনার অনুলিপি মন্ত্রিপরিষদ সচিব, প্রধানমন্ত্রীর মূখ্য সচিবসহ সংশ্লিষ্ট সব দফতরে পাঠানো হয়েছে।

এতে উল্লেখ করা হয়েছে- গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশ ১৯৭২-এর বিধান অনুসারে নির্বাচনী তফসিল ঘোষণার পর থেকে ফলাফল ঘোষণার পরবর্তী ১৫ দিনের মধ্যে নির্বাচন কমিশনের পূর্বানুমতি ছাড়া ৪৪ই অনুচ্ছেদে উল্লিখিত কর্মকর্তাদের স্ব-স্ব কর্মস্থল থেকে বদলি করা যাবে না।

সংবিধানের ১২৬ অনুচ্ছেদ এবং গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশ ১৯৭২-এর ৫(২) অনুচ্ছেদ অনুযায়ী নির্বাচন কমিশনের দায়িত্ব পালনে সহায়তা করা সব নির্বাহী কর্তৃপক্ষের অবশ্য কর্তব্য। নির্বাচনী সময়সূচি জারির পর নির্বাচন কর্মকর্তা (বিশেষ বিধান) আইন, ১৯৯১ (১৯৯১ সনের ১৩নং আইন) এর ৪(৩) ধারা অনুসারে নির্বাচনী দায়িত্বে নিয়োজিত কর্মকর্তা/কর্মচারী স্বীয় চাকরির অতিরিক্ত দায়িত্ব হিসেবে নির্বাচন কমিশনের অধীনে প্রেষণে নিয়োজিত আছেন বলে বিবেচিত হবেন।

ওই আইনের ৪(২) ধারা অনুযায়ী কোনো ব্যক্তি নির্বাচন কর্মকর্তা নিযুক্ত হলে তার নিয়োগকারী কর্তৃপক্ষ দায়িত্ব পালনের ব্যাপারে তাকে বাধা দিতে বা বিরত রাখতে পারবেন না।

প্রসঙ্গত, একজন সংরক্ষিত আসনের নারী সদস্যসহ বিএনপির ৬ সংসদ সদস্য গত ১১ ডিসেম্বর পদত্যাগ করলে আসনগুলো শূন্য ঘোষণা করে সংসদ সচিবালয়। পরবর্তীতে শূন্য পাঁচটি সাধারণ আসনে উপ-নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হয়। আর একটি সংরক্ষিত নারী আসন বিধায় সেটিতে পরবর্তীতে নির্বাচন দেবে ইসি।