শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরে লিখিত পরীক্ষা শুক্রবার

শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরের লিখিত পরীক্ষা শুক্রবার
শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরের লিখিত পরীক্ষা শুক্রবার

ঢাকা: শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধীনস্ত শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরের নিয়োগ পরীক্ষা দ্রুত শেষ করা হচ্ছে। আগামীকাল ১৯ নভেম্বর (শুক্রবার) ঢাকা মহানগরের ৭৫টি কেন্দ্রে চতুর্থ ধাপে নিয়োগ পরীক্ষা আয়োজন করা হবে।

আর ডিসেম্বরে মৌখিক পরীক্ষা শুরু করা হতে পারে বলে জানা গেছে। তবে, এর আগে ডিসেম্বরে শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরে নিয়োগের লিখিত পরীক্ষার ফল প্রকাশ করা হবে।
সংশ্লিষ্ট দপ্তর থেকে জানা গেছে, শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরে তৃতীয়-চতুর্থ শ্রেণির ১২৬৫টি পদে নিয়োগের জন্য লিখিত পরীক্ষা শুরু করা হয়েছে। এ পর্যন্ত তিন ধাপে লিখিত পরীক্ষা নেওয়া হয়েছে। আগামীকাল ১৯ নভেম্বর বিকেল ৪টায় ডাটা অ্যান্ট্রি ৪৬৪টি পদের জন্য লিখিত পরীক্ষা নেওয়া হবে। এ জন্য ১ লাখ ৭৮ হাজার ৫৪৪ জন আবেদন করেছেন। ৩ ডিসেম্বর পঞ্চম ধাপে ১৩টি ক্যাটাগরিতে ৭১টি শূন্য পদের জন্যও পরীক্ষা নেওয়া হবে। এজন্য ১৬ হাজার ১৫৩ জন আবেদন করেছেন। ২০১৫ সালে এ নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হলেও মামলার কারণে তা স্থগিত ছিল।

জানা গেছে, আগামী ২৯ ডিসেম্বর ৩১ হিসাবরক্ষক পদের জন্য লিখিত পরীক্ষা আয়োজন করা হবে। এ জন্য ৪৮ হাজার ৯০৬ জন আবেদন করেছেন।

সংশ্লিষ্ট এক কর্মকর্তা জানান, শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরে তীব্র জনবল সংকট কাটাতে নিয়োগ প্রক্রিয়া দ্রুত শেষ করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এ প্রতিষ্ঠানে দ্বিতীয় শ্রেণির কর্মকর্তা পদের ৭৫ শতাংশই ফাঁকা। এর মধ্যে উপসহকারী প্রকৌশলী (সিভিল) ৬৭৮টি পদের বিপরীতে শূন্য ৩৯৯টি। দ্বিতীয় শ্রেণির ৮৩৪টি পদ থাকলেও কর্মরত রয়েছেন মাত্র ৩০৪ জন।

তৃতীয় শ্রেণিতে জনবল সংকট ৮৩ শতাংশ। অধিদপ্তরে তৃতীয় শ্রেণির ১১১৫টি পদের বিপরীতে শূন্য ৯৩৩টি। নেই কোনো ইলেকট্রিশিয়ান, স্টোরকিপার, কম্পিউটার অপারেটর ও সুপারভাইজার। এছাড়া ডাটা অ্যান্ট্রি অপারেটরের ৫২৬টি পদের বিপরীতে শূন্য ৫২১টি।

এ বিষয়ে শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক (প্রশাসন) আসাদুজ্জামান সংবাদ মাধ্যমকে বলেন, আগামী শুক্রবার (১৯ নভেম্বর) নিয়োগের চতুর্থ ধাপের লিখিত পরীক্ষা হবে। এজন্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করে সুষ্ঠুভাবে পরীক্ষা আয়োজন করা হবে। পরীক্ষা কেন্দ্রে স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করে এ পরীক্ষা নেওয়া হবে।