শিক্ষার্থী ভর্তি না হওয়ায় বিভাগ বন্ধ, শিক্ষকদেরও বাদ দেয়া হচ্ছে

প্রকাশিত: ১১:৩০ অপরাহ্ণ, শনি, ২৮ নভেম্বর ২০

নিউজ ডেস্ক।।

যুগের সঙ্গে তালমিলিয়ে চলছে শিক্ষা কার্যক্রম। একসময় সরকারি ও বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে যেসব বিভাগে শিক্ষার্থীদের লেখাপড়ার চাহিদা ছিল তুঙ্গে। এখন যুগের পরিক্রমায় সেসব বিভাগে পড়তে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করছেন না শিক্ষার্থীরা। কারণ আধুনিক যুগে মানুষ তথ্যপ্রযুক্তি নির্ভর হওয়ায় অভিভাবক থেকে শুরু করে আশপাশের আত্মীয়-স্বজন বাংলা, ইসলামিক স্টাডিজ কিংবা ইতিহাসের মতো বিভাগে শিক্ষার্থীদের লেখাপড়া করাতেও চান না।

জানা গেছে, সরকারি-বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ইসলামিক স্টাডিজ, সমাজকর্ম ও বাংলা বিভাগের চাহিদা কমেছে। ইতোমধ্যে কিছু বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ইসলামিক স্টাডিজসহ বেশকিছু বিভাগ বন্ধ করে দিয়েছে। বছরজুড়ে শিক্ষার্থী সংকট থাকায় এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়গুলো। এতে বেকার হয়ে পড়েছেন সংশ্লিষ্ট বিভাগের শিক্ষকরা।

এশিয়ান ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশের বাংলা, ইসলামিক স্টাডিজ ও ইসলামিক হিস্ট্রি অ্যান্ড সিভিলাইজেশন। এসব বিভাগে শিক্ষার্থী ভর্তি না হওয়ায় শিক্ষকদেরও বাদ দেওয়া হচ্ছে। বিশ্ববিদ্যালয়টির ইসলামিক হিস্ট্রি অ্যান্ড সিভিলাইজেশনে শিক্ষক রয়েছেন মাত্র একজন। আর ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগে শিক্ষক রয়েছেন দুজন।

বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের কয়েকজন শিক্ষক বলেন, আধুনিক যুগে চাকরির বাজারে তথ্যপ্রযুক্তি সংশ্লিষ্ট বিভাগগুলোর চাহিদা বেড়েছে। একই সঙ্গে ইসলামিক স্টাডিজসহ বেশকিছু বিভাগের শিক্ষার্থীদের লেখাপড়ার চাহিদা কমেছে। ফলে এখন যেসব শিক্ষার্থী ইসলামিক স্টাডিজ, সমাজকর্ম কিংবা বাংলা বিভাগে লেখাপড়া করছেন, তারা এক পর্যায় বাধ্য হয়েই লেখাপড়া করছেন।

ড্যাফোডিল বিশ্ববিদ্যালয়ের আরিফুর ইসলাম নামে এক শিক্ষার্থী বলেন, বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে বেশকিছু বিভাগ রয়েছে সেগুলোর চাকরির বাজারে চাহিদা নেই। কিন্তু বিভাগগুলো চালু করা হয়েছে। আবার এক সময় কিছু বিভাগের চাহিদা থাকলেও সময়ের পরিক্রমায় তা আবেদন হারিয়েছে।

দেশের অন্যতম শীর্ষ বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটির উপাচার্য অধ্যাপক ড. আতিকুল ইসলাম বলেন, যুগের চাহিদা অনুযায়ী বিশ্ববিদ্যালয়ে নতুন নতুন বিভাগ খোলা হয়। যখন এসব বিভাগে শিক্ষার্থীদের ভর্তি কমে যায় তখন স্বাভাবিকভাবেই বিভাগটি বন্ধ হয়ে যায়। বিশ্বজুড়ে শিক্ষাব্যবস্থা পরিবর্তনশীল।

সাউথইস্ট বিশ্ববিদ্যালয়ে ইসলামিক স্টাডিজ চালু থাকলেও শিক্ষার্থী ভর্তি না হওয়ায় বিভাগটি ২০১৭ সালে বন্ধ করে দেওয়া হয়। শুধু সাউথইস্ট বিশ্ববিদ্যালয় সরকারি-বেসরকারি বেশকিছু বিশ্ববিদ্যালয়ে কিছু বিভাগ রয়েছে যেখানে বাধ্য হয়ে শিক্ষার্থীরা ভর্তি হন। কিছু বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের মতো আরও কিছু বিভাগ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

দেশে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় আছে ১০৭টি। উচ্চশিক্ষার জন্য ৬৩ শতাংশ শিক্ষার্থী পড়ছেন বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে, কিন্তু এসব বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে মাত্র ১০টি মান ভালো। বাকিগুলোর মান ‘মোটামুটি, অনেকগুলোর মান ‘খুব খারাপ’। তবে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে যুগের পরিক্রমায় নতুন নতুন বিভাগ চালু হলেও বর্তমানে সেগুলো বিভাগে ভাটা পড়েছে।

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়.