শিক্ষকের বিরুদ্ধে ছাত্রীদের যৌন হয়রানির অভিযোগ

দিনাজপুরের খানসামা উপজেলার মধ্য আঙ্গারপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের এক সহকারী শিক্ষকের বিরুদ্ধে স্কুলের ছাত্রীদের যৌন হয়রানির অভিযোগ উঠেছে। বুধবার (২৫ জানুয়ারি) বিকালে এ বিষয়ে ভুক্তভোগী ওই স্কুলের ছাত্রীদের অভিভাবকরা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) বরাবর লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, ৪২ নং মধ্য আঙ্গারপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক সিরাজুল ইসলাম মাহমুদ (৫৩) দীর্ঘদিন ধরে ছাত্রীদের উত্ত্যক্ত করছেন। পাঠদানের অজুহাতে বিভিন্ন ভঙ্গিমায় ছাত্রীদেরকে অশ্লীল ভিডিও দেখিয়ে যৌন হয়রানি করে থাকেন। এসব অপকর্মের কথা অভিভাবকদের জানাতে চাইলে বেত্রাঘাত ও পরীক্ষায় ফেল করার হুমকি দিয়ে ছাত্রীদের জিম্মি করে রাখেন।

ঘটনা ছাত্রীদের মাধ্যমে অভিভাবকরা জানতে পারলে সোমবার (২৩ জানুয়ারি) প্রধান শিক্ষককে মৌখিকভাবে জানিয়ে বিচার দাবি করেন। কিন্তু এতে সুরাহা না হওয়ায় তারা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা বরাবর অভিযোগ দেন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, এর আগেও ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে এমন অনেক অভিযোগ ছিল।

এক ছাত্রীর অভিভাবক দাবি করেন, আমরা শ্রমজীবী মানুষ। বাচ্চাকে স্কুলে রেখে কাজে যাই। কিন্তু শিক্ষকের কাছে ছাত্রী নিরাপদ না থাকায় হতবাক ও লজ্জিত। আমার এর সুষ্ঠু বিচার চাই।

অভিযুক্ত সহকারী শিক্ষক সিরাজুল ইসলাম মাহমুদ দাবি করেন, পারিবারিক বিষয়কে কেন্দ্র করে এলাকার কিছু ব্যক্তির ইন্ধনে এই অভিযোগ করানো হচ্ছে। অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যা।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক গোপী চাঁদ রায় বলেন, যৌন হয়রানির বিষয়ে ছাত্রী ও অভিভাবকদের পক্ষ থেকে লিখিত অভিযোগ দেওয়া হয়েছে। বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে।

খানসামা উপজেলার সংশ্লিষ্ট ক্লাস্টারের দায়িত্বপ্রাপ্ত সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা অনুপম ঘোষ বলেন, এমন অভিযোগ সত্যিই ন্যক্কারজনক। অভিযোগের সত্যতা যাচাই করা হচ্ছে।

ইউএনও রাশিদা আক্তার বলেন, লিখিত অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তাকে তদন্তের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।