যে কারণে বিশ্ববিদ্যালয় মাইগ্রেশন চালু করল গুচ্ছ কমিটি

নিউজ ডেস্ক।।

গুচ্ছভুক্ত ২২ বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০২১-২২ শিক্ষাবর্ষে বিশ্ববিদ্যালয় মাইগ্রেশন চালু রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ভর্তি পরীক্ষা আয়োজক কমিটি। বুধবার রাতে এক ভার্চুয়াল সভায় এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। হঠাৎ করে মাইগ্রেশন বন্ধের সিদ্ধান্ত নেওয়ার পর পুনরায় তা কেন চালু করা হলো সেই প্রশ্ন ভর্তিচ্ছুদের মুখে মুখে।

বুধবার রাতে অনুষ্ঠিত সভা সূত্রে জানা গেছে, মূলত আদালতের নির্দেশনার প্রেক্ষিতে বিশ্ববিদ্যালয় মাইগ্রেশন প্রক্রিয়া চালু রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। ভর্তি প্রক্রিয়া দীর্ঘায়িত না করাও মাইগ্রেশন চালু রাখার অন্যতম কারণ।

সভায় উপস্থিত একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য জানান, সভায় উপস্থিত কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য আদালতে হওয়া রিটের জবাব দিয়ে আইনি লড়াই চালিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দিয়েছিলেন। তবে এটি করা হলে ভর্তি প্রক্রিয়া অনেক পিছিয়ে যেত। রিটের বিরুদ্ধে আপিল করা হলে পরবর্তী শুনানী হওয়া, আদালতের রায় না আসা পর্যন্ত কোনো কিছুই ঠিকভাবে করা যেত না। এই বিষয়গুলো বিবেচনায় নিয়েই বিশ্ববিদ্যালয় মাইগ্রেশন চালু রাখার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. ইমদাদুল হক জানান, আদালত ও শিক্ষার্থীদের কথা চিন্তা করে বিশ্ববিদ্যালয় পরিবর্তনের সুযোগ পুনরায় চালু করা হয়েছে। খুব বেশি শিক্ষার্থী ভর্তি বাকি নেই। কাজেই মাইগ্রেশন চালু রাখলে খুব একটা অসুবিধা হবে না।