website page counter যেভাবে সেরা স্কুল নির্বাচিত হলো চরপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় - শিক্ষাবার্তা ডট কম

বুধবার, ৮ই এপ্রিল, ২০২০ ইং, ২৫শে চৈত্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | বসন্তকাল | ⏰ রাত ২:৪৫

যেভাবে সেরা স্কুল নির্বাচিত হলো চরপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়

প্রতিষ্ঠার মাত্র পাঁচ বছরের মধ্যেই করিমগঞ্জ পৌর এলাকার চরপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কিশোরগঞ্জ জেলার শ্রেষ্ঠ প্রাথমিক বিদ্যালয় নির্বাচিত হয়েছে। কিশোরগঞ্জ জেলার শ্রেষ্ঠ শিক্ষক/শিক্ষিকা, বিদ্যালয়, ব্যক্তি, প্রতিষ্ঠান, কর্মকর্তা ও কর্মচারী বাছাই কমিটি যাচাই-বাছাই শেষে চরপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়কে কিশোরগঞ্জ জেলার শ্রেষ্ঠ প্রাথমিক বিদ্যালয় হিসেবে স্বীকৃতি দেয়।

কিশোরগঞ্জ জেলার শ্রেষ্ঠ শিক্ষক/শিক্ষিকা, বিদ্যালয়, ব্যক্তি, প্রতিষ্ঠান, কর্মকর্তা ও কর্মচারী বাছাই কমিটির সভাপতি জেলা প্রশাসক মো. সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরী, সদস্য সচিব জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার সুব্রত কুমার বণিক ও সদস্যগণের স্বাক্ষরিত তালিকার মাধ্যমে বিষয়টি জানা গেছে। কিশোরগঞ্জ জেলা শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা যায়, একটি আদর্শ ও শ্রেষ্ঠ বিদ্যালয় নির্বাচনের ক্ষেত্রে প্রাক-প্রাথমিকের শ্রেণিকক্ষ সাজানো, বিদ্যালয়ের আঙিনায় বাগান সৃজন, শিক্ষকদের উন্নত পাঠদান, শিক্ষার্থীদের উপস্থিতির হার, নিয়মিত খেলাধুলা, শিক্ষকদের নৈমিত্তিক ছুটি ও ভালো ফলাফল বিবেচনায় নেয়া হয়। বিদ্যালয়ের সামগ্রিক কর্মকাণ্ড বিবেচনায় এবার (২০১৯) জেলার করিমগঞ্জ পৌর এলাকার চরপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টিকে জেলার শ্রেষ্ঠ প্রাথমিক বিদ্যালয় হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে।

ফাতেমা খায়রুন নাহার প্রতিষ্ঠানটির প্রধান শিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ২০১৪ সালে ১৫০০ বিদ্যালয় প্রকল্পের আওতায় করিমগঞ্জ পৌরসভার চরপাড়া এলাকায় চরপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠিত হয়। ২০১৮ সালের ২২শে মার্চ ফাতেমা খায়রুন নাহার প্রতিষ্ঠানটির প্রধান শিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব নেন। যোগদানে পর পরই তিনি বিদ্যালয়টির সামগ্রিক পরিবেশের উন্নয়নসহ শিক্ষার মানোন্নয়নের দিকে মনোনিবেশ করেন। শিক্ষার্থীদের স্কুলমুখী করাসহ শিক্ষার্থীদের আনন্দময় পাঠদান নিশ্চিত করতে উদ্যোগী হন। এর স্বীকৃতি হিসেবে ২০১৮ সালে ফাতেমা খায়রুন নাহার প্রথমে উপজেলা ও পরে জেলা পর্যায়ের শ্রেষ্ঠ শিক্ষক (মহিলা) নির্বাচিত হন। এছাড়া ২০১৮ সালে বিদ্যালয়টি থেকে ১৮ জন শিক্ষার্থী প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষায় অংশ নিয়ে শতভাগ পাশ ছাড়াও ৬ জন বৃত্তি লাভ করে। তাদের বেশির ভাগই ছিল ঝরেপড়া শিক্ষার্থী। ২০১৮ সালে বিদ্যালয়টিতে ১২২ জন শিক্ষার্থী থাকলেও ২০১৯ সালে শিক্ষার্থীর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ায় ১৯২ জনে। সরজমিন বিদ্যালয়টি ঘুরে দেখা গেছে, সু-সজ্জিত শিক্ষাপোযোগী সুন্দর পরিবেশে বিদ্যালয়টিতে মোট পাঁচজন শিক্ষক পাঠদান করছেন। শতভাগ শিশুই স্কুল ইউনিফর্ম পরিহিত।

প্রতি মাসে নির্বাচন করা হয় ‘স্টুডেন্ট অব দ্য মান্থ’। বিদ্যালয়টিতে স্থাপন করা হয়েছে বঙ্গবন্ধু স্মৃতি গ্যালারি, মুক্তিযুদ্ধ কর্নার, বঙ্গবন্ধু বুক কর্নার, মহানুভবতার দেয়াল, সততা স্টোর ও শহীদ মিনার। চরপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ফাতেমা খায়রুন নাহার বলেন, নানা প্রতিকূলতা অতিক্রম করে আমাদের বিদ্যালয়টি কিশোরগঞ্জ জেলার সেরা বিদ্যালয়ের স্বীকৃতি লাভ করেছে। নিঃসন্দেহে এটি আমাদের জন্য গর্বের ও আনন্দের বিষয়। এই স্বীকৃতি আমাদের কর্তব্য ও দায়িত্ববোধ আরো বাড়িয়ে দিয়েছে।

মানসম্মত প্রাথমিক শিক্ষা নিশ্চিত করতে আগামী দিনেও আমাদের আন্তরিক প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে।

এই বিভাগের আরও খবরঃ