মোড়েলগঞ্জে পুটিখালীতে ১কিলোমিটার রাস্তার বেহাল দশা, ভোগান্তি চরমে

এম.পলাশ শরীফ,মোড়েলগঞ্জ থেকে।। 
বাগেরহাটের মোড়েলগঞ্জের পুটিখালী হয়ে সোনাখালী অভিমুখি ১ কিলোমিটার ইট সোলিং রাস্তাটির বেহাল দশার ফলে জনভোগান্তি এখন চরমে। স্থানীয় সংসদ সদস্যের কর্তৃক ওই রাস্তাটিতে কার্পেটিং কাজের বরাদ্ধ হলেও অদৃশ্য কারনে কাজটি স্থগিত রয়েছে। কর্তৃপক্ষ সরেজমিনে একাধিকবার পরিমাপ করলেও এখনও বরাদ্ধতৃক এক কিলোমিটার রাস্তার কার্পেটিং কাজ শুরু হয়নি ।

বুধবার সরেজমিনে দেখা গেছে, উপজেলার পুটিখালী ইউনিয়নের পুটিখালী হয়ে সোনাখালী অভিমুখী ইট সোলিং রাস্তাটি দীর্ঘদিন ধরে বেহাল অবস্থায় যাতাযাতে অনুপোযোগি হয়ে পড়েছে, খানা খন্দে পরিনত হয়েছে রাস্তাটির বিভিন্ন স্থান। সামান্য বৃষ্টি হলেই রাস্তাটির খানা খন্দে পানি জমে পথচারী, শিক্ষার্থী, ভ্যান, ইজিবাইক, সাইকেল চলাচলে দুর্ভোগের অন্ত নেই ।

ওই ইউনিয়নের প্রাচীন জনপদের প্রাণকেন্দ্র এ রাস্তাটি। ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামের সাথে যোগাযোগসহ পাশ্ববর্তী ইউনিয়নের যোগাযোগের জনগুরুত্বর্পূন এ রাস্তাটি এখন চলাচল অনুপযোগি। স্কুল-কলেজ মাদরাসার শিক্ষার্থীসহ প্রতিদিন গড়ে দু’ হাজার লোকের যাতায়াতের মাধ্যম এ রাস্তাটি । এ রাস্তা দিয়েই প্রতিদিন চক পুটিখালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, সোনাখালী আজিজিয়া সিনিয়র মাদ্রাসা, পুটিখালী ইসলামীয়া (আলিম) মাদ্রাসা, সোনাখালী মহব্বত আলী মাধ্যমিক বিদ্যালয়, সোনাখালী মোহসিনিয়া আলিম মাদ্রাসা ও সোনাখালী বিজনেস ম্যানেজমেন্ট কলেজ শিক্ষার্থীদেরকে স্ব-স্ব বিদ্যাপিঠে যাতায়াত করতে হয়।

এ ছাড়াও মঙ্গলেরহাট বাজার, সোনাখালী বাজার, ভাটখালী বাজার, খালের দু’ পাড়ে ৬টি মসজিদ, একটি মন্দিরসহ বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠান রয়েছে। জনসাধারণের চলাচলের একমাত্র এ রাস্তাটির বরাদ্ধকৃত প্রকল্পের কাজ জরুরী ভিত্তিতে চালু করার জোর দাবি জানান এলাকাবাসী।

এ বিষয় পুটিখালী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মাওলানা আব্দুল কাদের বলেন, ১ কিলোমিটার কাপেটিং এ রাস্তাটি নির্মাণের জন্য ইতোপূর্বে মোড়েলগঞ্জ-শরণখোলা সংসদ সদস্য আলহাজ্ব ডা. মোজাম্মেল হোসেন বরাদ্ধ দিয়েছেন। উপজেলা এলজিইডি দপ্তরের মাধ্যমে ইঞ্জিনিয়ার এসে কয়েকবার পরিমাপ করে গেছে। পরবর্তীতে কাজের আর কোন অগ্রগিত নেই।

কথা হয় ভগ্নদশা এ রাস্তাটি থেকে প্রতিদিনের ন্যায় চলাচলের পথচারি ব্যবসায়ী মনির দর্জি, হাসান হাওলাদার, শিক্ষক জাহিদুর রহমান, মাওলানা সুলতান আহম্মেদ, জলিল হাওলাদার, ৬ষ্ট শ্রেণীর ছাত্রী ফারজানা ও ১০ম শ্রেণীর মিম আক্তারের সঙ্গে তারা ক্ষোভ প্রকাশ করে প্রশ্ন রাখেন, কবে শুরু হবে এ রাস্তার কাজ, আর কবেই বা শেষ হবে আমাদের দুর্ভোগ, সামান্য বৃষ্টি হলেই আামাদেরকে ঝুঁকি নিয়ে এ পথ চলতে হয় । অনেকদিন থেকেই শুনে আসছি রাস্তাটি কার্পেটিং হচ্ছে কিন্তু বাস্তবে তা দেখছিনা। আর কত অপেক্ষায় থাকতে হবে।

ব্যাপারে মোড়েলগঞ্জ উপজেলা প্রকৌশলী মো. আশিক ইয়ামিন বলেন, পুটিখালী ইউনিয়নের ওই ১ কিলোমিটার কার্পেটিং রাস্তাটি বরাদ্ধ অনুযায়ী পরিমাপ নির্ধাতির হয়েছে। কাগজপত্র মন্ত্রনালয়ে পাঠানো হয়েছে। এখন টেন্ডারের অপেক্ষায়। তবে নভেম্বরের শেষ দিকে কাজ শুরুর সম্ভাবনা রয়েছে। ##