মহামারিতে ই-ক্যাবের ভূমিকায় খুশি সদস্যরা

নিউজ ডেস্ক।।

মহামারি করোনাকালীন বিশেষ পাশের ব্যবস্থা এবং ব্যবসায় ঘুরে দাঁড়াতে ১৫ লাখ টাকা পর্যন্ত ব্যাংক ঋণের সুবিধা ও ‘ই-বাণিজ্য করবো নিজের ব্যবসা গড়বো’ এই প্রশিক্ষণ কার্যক্রম শুরু হয়েছিল বর্তমান ই-ক্যাব কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্যদের নেতৃত্বে । এ পদক্ষেপের তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেছেন ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোক্তারা।

নিজেদের অভিজ্ঞতাকে আরো শানিত করে তারুণ্যদ্বীপ্ত শক্তিতে আগামী ১৮ জুন অনুষ্ঠিতব্য ইক্যাবের ২০২২-২৪ দ্বি-বার্ষিক কার্যনির্বাহী কমিটি নির্বাচনে ‘অগ্রগামী’প্যানেল এই কার্যক্রমকে আরো এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার পাশাপাশি ই-ক্যাবের জন্য স্থায়ী অফিস, সিসি ও টিম লোন এবং ব্যবসায় উন্নয়নে সহায়তার হাত প্রসারিত করবে বলে প্রত্যাশা করছেন তারা।

সম্প্রতি খিলগাঁও-রামপুরা ই-ক্যাব আড্ডায় এমন প্রত্যাশার কথা তুলে ধরেন অংশগ্রহণকারীরা। স্থানীয় চায়না পার্ক চাইনিজ রেস্টুরেন্টে অনুষ্ঠিত এই আড্ডায় উপস্থিত প্রত্যেক সদস্যই তাদের মত তুলে ধরেন।

‘ছোট বা বড় নয়; প্রতিষ্ঠিত বা ক্ষুদ্র নয়, সকল সদস্যই সমান ভাবে ই-ক্যাবের প্রাণ’ উল্লেখ করে অনুষ্ঠানে ই-ক্যাব সাধারণ সম্পাদক আব্দুল ওয়াহেদ তমাল জানান, স্থায়ী অফিসের জন্য সরকারের সঙ্গে আলোচনার প্ররিপ্রেক্ষিতে ইতিমধ্যেই সবুজ সঙ্কেত মিলেছে। তবে স্থান চূড়ান্ত না হওয়া পর্যন্ত সদস্যদের প্রতি দায়বদ্ধতার জায়গা থেকেই আগামী ৩ মাসের মধ্যে বড় পরিসরের একটি স্মার্ট অফিস স্থাপনের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

এ সময় ই-ক্যাব সভাপতি শমী কায়সার ফোনে অংশগ্রহণ করে সকলের কাছে দোআ চান এবং সদস্যদের প্রত্যাশা পূরণে আগামীতেও তার সর্বাত্মক প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখার প্রতিশ্রুতি দেন।

অগ্রগামী দলের সদস্য ফুডপান্ডার সহ-প্রতিষ্ঠাতা আম্বারিন রেজা বলেন, আমরা সকল সদস্যদেরকে একসাথে নিয়ে এগিয়ে যেতে চাই। তাদের স্বপ্ন পূরণে এই যাত্রাতে আমি অংশগ্রহণ করেছি । আশা করি আমাদের অভিজ্ঞতা আর প্রাণশক্তিতে ই-ক্যাব শিগগিরই নতুন আরেকটি মাইলফলক অতিক্রম করতে পারবে। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি