ভারতকে হারিয়ে বাংলাদেশের জয়

অনুর্ধ্ব ২০ সাফ ফুটবল

ভারতের বিপক্ষে গোলের পর বাঁধভাঙা উল্লাস বাংলাদেশের ফুটবলারদের

ভারতের বিপক্ষে গোলের পর বাঁধভাঙা উল্লাস বাংলাদেশের ফুটবলারদের
ছবি:বাফুফে

২ ম্যাচে বাংলাদেশের পয়েন্ট ৬। মালদ্বীপকে ৪-০ গোলে উড়িয়ে শুরু করা নেপালের পয়েন্ট ৩। সাফ যুব ফুটবলে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন ভারত এক ম্যাচ খেলে পয়েন্ট-শূন্য।

আজ আক্রমণ-পাল্টা আক্রমণে উপভোগ্য ম্যাচই খেলেছে দুই দল। বাংলাদেশের যুবারা মাঠে নেমেছিলেন জয়ের আশায়। ভারতকে কখনোই তারা প্রাধান্য বিস্তার করতে দেয়নি। নিজেরা বরং মাঠ বড় করে খেলেছে। আক্রমণ তৈরি করে চাপে ফেলেছে ভারতকে।

শুরুতেই বাংলাদেশ দলের ‘নাম্বার নাইন’ বসুন্ধরা কিংসের তরুণ প্রতিভা পিয়াস আহমেদ দারুণভাবে বল তুলে দিয়েছিলেন ভারতীয় গোলকিপারের মাথার ওপর দিয়ে। দুর্ভাগ্যক্রমে বল লাগল সাইডপোস্টে। এর পরপরই মইনুল ইসলামের হেড লাগে ক্রসবারে। ভারত কিছুটা গুছিয়ে উঠে পাল্টা আক্রমণে এসেছে। গোলের সুযোগ তৈরি করেছে তারাও।

টানা দুই ম্যাচ জিতল বাংলাদেশের যুব দল

টানা দুই ম্যাচ জিতল বাংলাদেশের যু

তবে প্রথমে গোল করে এগিয়ে যায় বাংলাদেশই। ২৮ মিনিটে বাংলাদেশ দলের পিয়াস আহমেদ ১-০ করেন। বাংলাদেশের সীমানা থেকে লম্বা বল আসে ভারতের বক্সের ওপর। ভারতের রক্ষণ বল ক্লিয়ার করতে পারেনি। পিয়াস নিজের বল নিয়ে ঢোকেন। এক খেলোয়াড়কে কাটিয়ে কোনাকুনি চলে যান। তারপর বাঁ পায়ের কোনাকুনি প্লেসিং। এর পরপরই ক্রস থেকে মইনুল ইসলামের হেড অল্পের জন্য চলে যায় বাইরে।

৩৫ মিনিটে ভারত সমতা ফেরায়। ফ্রি কিক থেকে বক্সে উড়ে আসে বল। ডিফেন্ডারদের মাঝখানে লুকিয়ে থাকা গুরকিরাত সিংয়ের হেডে বল চলে যায় জালে । তবে বিরতির ঠিক আগে বাংলাদেশ এগিয়ে যায় আবার। পেনাল্টিতে ২-১ করেন পিয়াস আহমেদ। বিরতির পর ম্যাচে ফেরার চেষ্টা করেও আর গোল পায়নি ভারত। সেই হতাশা থেকেই কি না দুবার ভারতের খেলোয়াড়েরা মেজাজ হারিয়ে বসেছিলেন। তা নিয়ে দুই দল ধাক্কাধাক্কিতে জড়ায় দুবার।

আর সেটিই যেন বলে দিচ্ছিল মাঠে লড়ছে ভারত-বাংলাদেশ। সেই লড়াইয়ে বাংলাদেশের জয়ের পর টিভি পর্দায় দেখা গেল গ্যালারিতে বাংলাদেশের পতাকা হাতে ৭-৮ জন সমর্থক আনন্দ করছেন।