তিন যুগের অপেক্ষা মিটিয়ে বিশ্বকাপের শিরোপা জিতেছে আর্জেন্টিনা। ফাইনালে ফ্রান্সকে হারিয়ে এই শিরোপার দেখা পেল আলবিসেলেস্তারা। শিরোপা জয়ের পর থেকেই দেশে মেসি-ডি মারিয়াদের বরণ করে নিতে অপেক্ষায় হাজারো আর্জেন্টাইন। জয় উদযাপন করতে লাখ লাখ মানুষ রাস্তায় নেমেছে। আর্জেন্টিনার রাজধানী দেখলে মনে হবে যেন মানুষের ঝড় শুরু হয়েছে।

তবে অর্জনের বিশ্বকাপ জিতেও আসল ট্রফি নিয়ে দেশে ফিরতে পারেনি আর্জেন্টিনার এই দল। আর্জেন্টিনা একা নয়, ফিফার নিয়মানুযায়ী বিশ্বকাপ জেতার পরেও ট্রফি নিজেদের কাছে রাখতে পারে না কোনও দলই। জয়ী দলকে ব্রোঞ্জের একটি প্রতিমূর্তি দেওয়া হয়। আর্জেন্টিনা দলের কাছেও সেটা আছে। ২০০৬ সালের আগ পর্যন্ত চ্যাম্পিয়ন দেশের কাছে এই ট্রফিটি থাকতো পরবর্তী বিশ্বকাপ মূল পর্বের ড্র না হওয়া পর্যন্ত। কিন্তু এখন আর এমনটি করা হয় না।

আসল ফুটবল ট্রফিটি ২০১৬ সাল থেকে সুইজারল্যান্ডের জুরিখের ফিফা ওয়ার্ল্ড ফুটবল মিউজিয়ামে প্রদর্শিত হয়ে থাকে। তাছাড়া এটি শুধু কোকাকোলার সৌজন্যে বিশ্ব ট্রফি পরিভ্রমণে সামিল হয়ে থাকে। ২০০৬ সালে প্রথম বিশ্ব ট্যুরে বের হয় বিশ্বকাপ ট্রফি।

আগে ফিফার নিয়ম ছিল কোনো দেশ তিন বার বিশ্বকাপ জিতলে তাদের আসল ট্রফিটি দিয়ে দেওয়া হবে। ১৯৭০ সালে তৃতীয় বার বিশ্বকাপ জিতেছিল ব্রাজিল। আসল জুলে রিমে ট্রফি দেওয়া হয়েছিল পেলেদের।

আসল ট্রফি নিজ দেশে নিয়েও সেটা ধরে রাখতে পারেনি পেলের ব্রাজিল। ১৯৮৩ সালের ১৯ ডিসেম্বর সেই ট্রফি চুরি হয়ে যায়। অনেক খোঁজার পরেও সেটা আর ফেরত পাওয়া যায়নি। ধারণা করা হয়, ট্রফির সোনা গলিয়ে বিক্রি করে দেওয়া হয়েছিল সেটা। কারণ চুরি যাওয়ার কয়েকদিন পরে পাওয়া গিয়েছিল ট্রফির নিচের অংশটা যেটা কিনা সোনার নয়। সেই অংশটিও এখন রাখা আছে সুইজারল্যান্ডের ফুটবল মিউজিয়ামে। এই ঘটনার পর বিশ্বকাপে এসেছে নতুন ট্রফি।

এখনকার ট্রফিটা প্রথম দেওয়া হয়েছিল ১৯৭৪ সালে। কিন্তু ১৯৮৩ সালে ট্রফি হারিয়ে যাওয়ার ঘটনার পর থেকে কোনও দেশকেই আসল ট্রফি নিয়ে যেতে দেওয়া হয় না। তাই ৩৬ বছর পর ট্রফি জিতেও মেসিরা নিয়ে যাবেন ‘নকল’ ট্রফি। যেটি আসল ট্রফির মতো দেখতে হলেও আসল ব্রোঞ্জের তৈরি একটি প্রতিমূর্তি।