বাজে ব্যাটিংয়ে বড় হারের লজ্জা

প্রকাশিত: ৩:০২ অপরাহ্ণ, সোম, ৩ মে ২১

নিজস্ব প্রতিবেদক।।

হারতে হবে এটা ছিল অনুমেয়। তবে ব্যবধান কেমন হবে, সেটারই ছিল অপেক্ষা। বাকি পাঁচ উইকেটে কোনো চমক দেখাতে পারেনি বাংলাদেশ। সোমবার পাল্লেকেলে টেস্টে বাজে ব্যাটিংয়ের প্রদর্শনীতে ২০৯ রানের বড় ব্যবধানে হেরেছে মুমিনুলরা। প্রথম টেস্ট হয়েছিল ড্র। দুই ম্যাচের সিরিজ শ্রীলঙ্কা জিতল ১-০ ব্যবধানে।

প্রথম ইনিংসে শ্রীলঙ্কায় ডিক্লিয়ার দেয় ৭ উইকেটে ৪৯৩ রানে। জবাবে বাংলাদেশ প্রথম ইনিংসে অল আউট হয় ২৫১ রানে। দ্বিতীয় ইনিংসে শ্রীলঙ্কা করে ৯ উইকেটে ১৯৪ রান, ডিক্লি.। বাংলাদেশের সামনে জয়ের টার্গেট দাঁড়ায় ৪৩৭ রান। এ লক্ষ্যে খেলতে নেমে রোববার চতুর্থ দিন শেষে বাংলাদেশ করে ৫ উইকেটে ১৭৭ রানে। পঞ্চম দিনে বাকি ৫ উইকেটে বাংলাদেশ করতে পারে মাত্র ৫০ রান। অল আউট ২২৭ রানে। কপালে জোটে লজ্জার হার।

মিরাজ-তাইজুল পঞ্চম দিনে একটু ধরে খেলার চেষ্টা করলেও জয়াবিক্রমার তোপে সব ভণ্ডুল হয়ে যায়। দিনের শুরুতে বিদায় নেন লিটন দাস। ৪৬ বলে ১৭ রানে তিনি জয়াবিক্রমার শিকার। ৮৬ বলে ৩৯ রান মিরাজও আউট হন অভিষিক্ত জয়াবিক্রমার বলে। ৩০ বলে ২ রান তাইজুলের।

পেসার তাসকিন আহমেদ চেষ্টা করেছেন উইকেটে থাকতে। খেলেছেন ৩৩ বল। রান ৭। শরিফুল ও রাহী রানের খাতা খুলতে পারেনি। বল হাতে শ্রীলঙ্কার ইতিহাসে অভিষেক রেকর্ড গড়েছেন জয়াবিক্রমা। দুই ইনিংস মিলিয়ে ১১ উইকেট নেন এই স্পিনার। বাংলাদেশকে ধসিয়ে দেয়া এই বোলারই জিতেছেন ম্যাচ সেরার পুরস্কার।

প্রথম টেস্টে দুই দলের রান উৎসবে ম্যাচ হয়েছিল ড্র। দ্বিতীয় ম্যাচে রান উৎসব শ্রীলঙ্কা ঠিকই করলো, পারলো না শুধু বাংলাদেশ। প্রথম ইনিংসে মাত্র ২৫১ রানে অল আউটই গড়ে দেয় ম্যাচের পার্থক্য।

এই ইনিংসে ৩৭ রানের মধ্যে পড়েছিল শেষ সাত উইকেট। এমন বাজে ব্যাটিং হলে রেজাল্ট আসবে কী করে। আর দ্বিতীয় ইনিংসের ব্যাটিং তো আরো ন্যাক্কারজনক। তামিম-সাইফদের আউট হওয়ার ধরণ দেখে মনে হচ্ছিল মাত্র কদিন আগেই টেস্ট অভিষেক হয়েছে বাংলাদেশের। অথচ সময়ের হিসেবে তা দুই দশক। টেস্টে কবে ভালো খেলবে বাংলাদেশ?

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়.