বদলে যাচ্ছে পৃথিবীর মানচিত্র

প্রকাশিত: ১০:২৮ পূর্বাহ্ণ, বৃহঃ, ১০ জুন ২১

নিউজ ডেস্ক।।

ন্যাশনাল জিওগ্রাফিক সোসাইটির হাত ধরে পরিবর্তন হচ্ছে বিশ্বের মানচিত্র। ১৩০ বছরের অন্বেষণের পর মঙ্গলবার বিশ্ব মহাসাগর দিবসের দিন ন্যাশনাল জিওগ্রাফিক সোসাইটি জানিয়েছে, অ্যান্টার্কটিকার চারপাশের যে জলাশয় তাই এখন দক্ষিণ মহাসাগর অর্থাৎ এই গ্রহের পঞ্চম মহাসমুদ্র হিসেবে পরিচিত হবে। ন্যাশনাল জিওগ্রাফিক সোসাইটির ভূগোলবিদ অ্যালেক্স টেইট বলেছেন, ‘দক্ষিণ মহাসাগর দীর্ঘকাল বিজ্ঞানীদের দ্বারা স্বীকৃত, কিন্তু আন্তর্জাতিকভাবে কখনো চুক্তি হয়নি বলে আমরা আনুষ্ঠানিকভাবে এটিকে স্বীকৃতি দিতে পারিনি।’

অ্যালেক্স টেইট জানিয়েছেন, দক্ষিণ মহাসাগরকে তার ভৌগোলিক বিশেষত্বের জন্য আলাদা তালিকাভুক্ত করেই গবেষণা করা হচ্ছিল, কারণ এর সঙ্গে পৃথিবীর অন্যান্য মহাসাগরের বেশকিছু পার্থক্য আছে এবং এই মহাসাগরের পরিবেশগত পার্থক্যের জন্যই একে পঞ্চম মহাসমুদ্রের স্বীকৃতি দেয়া হয়েছে। ১৯১৫ সালে মানচিত্র নির্ধারণের সময় থেকে এতদিন পর্যন্ত ন্যাশনাল জিওগ্রাফিক কার্টোগ্রাফাররা পৃথিবীতে চারটি মহাসাগর তালিকাভুক্ত করেছেন।

সেগুলো হলো- আটলান্টিক মহাসাগর, প্রশান্ত মহাসাগর, ভারত মহাসাগর এবং আর্কটিক মহাসাগর। দক্ষিণ-মহাদেশে চারপাশের বিশাল জলাশয় আটলান্টিক, প্রশান্ত মহাসাগর এবং ভারতীয় মহাসাগরের সম্প্রসারণ হিসাবে দেখা হয়েছিল। তবে সামপ্রতিক বছরগুলোতে বিজ্ঞানীরা অ্যান্টার্কটিকের পানিতে বিশেষ বৈশিষ্ট্যের পরিচয় পেয়েছেন।

ন্যাশনাল জিওগ্রাফিক ম্যাগাজিন বলছে, মূলত সেখানে যে পানির স্রোত তা অ্যান্টার্কটিক সার্কোপোলার কারেন্ট নামে পরিচিত। তাই এর অনন্য বৈশিষ্ট্য একে অন্য মহাসাগর থেকে বিচ্ছিন্ন করেছে।

অ্যান্টার্কটিক সার্কোপোলার কারেন্ট পানিকে ঠাণ্ডা এবং কিছুটা কম লবণাক্ত করে তোলে যা সমুদ্রের গভীরে কার্বন সংরক্ষণে সহায়তা করে এবং পৃথিবীর জলবায়ুতে একটি গুরুতর প্রভাব ফেলে। ন্যাশনাল জিওগ্রাফিক এক্সপ্লোরার তথা সামুদ্রিক বিজ্ঞানী সেঠ সিকোড়া-বডি জানিয়েছেন, বিশ্বের পঞ্চম মহাসাগরের বৈশিষ্ট্যের সঙ্গে যে পরিচিত হয়েছে সে মন্ত্রমুগ্ধের মতো তা উপলব্ধি করতে পেরেছে। চারপাশের হিমবাহ, ঠাণ্ডা বাতাস এবং হিমশীতল পাহাড়ের মাঝে দক্ষিণ মহাসাগরের নীল জলরাশি স্বর্গীয় দৃশ্যের থেকে কোনো অংশে কম নয়।

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়.