পাহাড়ীদের বসত বাড়িতে এবার জ্বলবে ১২২৪টি সোলার বিদ্যুৎ

মাহফুজ আলম,রাজস্থলী( রাঙ্গামাটি) থেকে।।

রাঙামাটির রাজস্থলী উপজেলাধীন দুর্গম পাহাড়ি পল্লীর ২ টি ইউনিয়নে যথাক্রমে ১ নং ঘিলাছড়ি ও ২ নং গাইন্দ্যা ইউনিয়নের ১২২৪ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী পরিবার পেলো প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ প্রকল্পের উপহারের ১২২৪ সোলার বিদ্যুৎ প্যানেল। প্রতিটি পরিবারকে ১০০ ওয়াট ক্ষমতাসম্পন্ন সোলার প্যানেলের সঙ্গে ফিটিংস স্থাপন এবং প্রশিক্ষণ ভাতা দেওয়া হয় ৬৫০ টাকা। বৃহস্পতিবার (৩০ জুন) পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের চেয়ারম্যান নিখিল কুমার চাকমা নিজ হাতে বিতরণ করেন এসব সোলার প্যানেল।

এ ব্যাপারর নিখিল কুমার চাকমা বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর আন্তরিকতায় ঘোষিত ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ সুবিধা নিশ্চিতকরণ কর্মসূচির আওতায় বিদ্যুৎবিহীন দুর্গম পাহাড়ি পল্লীর বাসিন্দাদের এ সোলার দেওয়া হচ্ছে। ১০০ ওয়াট ক্ষমতাসম্পন্ন সোলারের সাহায্যে বাতির আলো ছাড়াও ফ্যান চালানো ও মোবাইল ফোন চার্জ ইত্যাদি সুবিধাও ভোগ করা যাবে।’
তিনি বলেন, ‘দুর্গম এলাকার বিক্ষিপ্ত ও বিচ্ছিন্ন পাহাড়ি পল্লী, যেখানে সহজে বিদ্যুৎ লাইন সম্প্রসারণ সম্ভব নয়, ওইসব পাহাড়ের বাসিন্দাদের সোলারের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর ঘরে ঘরে বিদ্যুতের এ ঘোষণার বাস্তবায়ন করা হচ্ছে।’
রাজস্থলী উপজেলা চেয়ারম্যান উবাচ মারমা বলেন, ‘রাজস্থলী উপজেলার ১ নম্বর ঘিলাছড়ি ইউনিয়ন ও গাইন্দ্যা ইউনিয়নের বিভিন্ন ওয়ার্ডের প্রায় ১২২৪ ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী পরিবারের মাঝে উন্নয়ন বোর্ডের চেয়ারম্যান নিজ হাতে সোলারগুলো বিতরণ করেছেন।’

অনুষ্টানের রাজস্থলী উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) শান্তনু কুমার দাশ বলেন, ‘দুর্গম পাহাড়ি গ্রামের সুবিধাবঞ্চিত যে ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী পরিবারগুলো এত দিন সূর্যাস্তের সঙ্গে সঙ্গে রাতের আঁধারে ডুবে থাকতো, এখন তাদের ঘরেও আলো জ্বলবে, সেই আলোয় ছেলে-মেয়েরা লেখাপড়া করতে পারবে। এত দিন যেটি তাদের কাছে স্বপ্নের মতো ছিল, এখন এ সুবিধা হাতে পেয়ে আনন্দে আত্মহারা তারা।’


বৃহস্পতিবার উপজেলা পরিষদ হল রুমে পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড সোলার বিতরণ অনুষ্ঠানে ইউ এন ও শান্তনু কুমার দাশ এর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের চেয়ারম্যান নিখিল কুমার চাকমা। বিশেষ অতিথি ছিলেন ভাইস চেয়ারম্যান পার্বত্য চট্রগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড মোঃ নুরুল আলম চৌধুরী, মেম্বার বাস্তবায়ন ও প্রকল্প পরিচালক সোলার প্যানেল মোঃ হারুন অর রশীদ, উপজেলা চেয়ারম্যান উবাচ মারমা, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবু সালেহ, ভাইস চেয়ারম্যান অংনুচিং মারমা, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান উসচিন মারমা ইউপি চেয়ারম্যান রবার্ট ত্রিপুরা। পুচিংমং মারমা হেডম্যান উথিনসিন মারমা মহিলা সভানেত্রী লংবতি ত্রিপুরা প্রমুখ। পরে প্রধান অতিথি উপকারভোগীদের মাঝে সোলার প্যানেল বিতরণ করেন।

১ নং ঘিলাছড়ি ইউপি চেয়ারম্যান রবার্ট ত্রিপুরা বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়ন করায় ঘিলাছড়ি ইউনিয়ন বাসীআন্তরিক ভাবে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন। অপরদিকে ২ নং গাইন্দ্যা ইউপি চেয়ারম্যান পুচিংমং মারমা বলেন, পার্বত্য চট্রগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের চেয়ারম্যান নিখিল কুমার চাকমার অক্লান্ত সহযোগিতায় এবং পার্বত্য অঞ্চলের ক্ষুদ্র নৃগোষ্টির পরিবারের পাশে দাঁড়িয়ে যে অবদান রেখেছেন তা ভূলারমত নয়। ২ নং গাইন্দ্যা ইউনিয়ন বাসী চেয়ারম্যান মহোদয় কে আন্তরিক ভাবে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন।