পরীক্ষার কক্ষে উচ্চস্বরে জানাতে হবে নম্বর বিভাজন

নিউজ ডেস্ক।।
সংক্ষিপ্ত সিলেবাসে এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা নেওয়ায় নম্বর বিভাজনের বিষয়টি পরীক্ষার হলে পরীক্ষার্থীদের ‘উচ্চস্বরে’ জানাতে পর্যবেক্ষকদের নির্দেশনা দিয়েছে সরকার।

এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা উপলক্ষে বৃহস্পতিবার (১৮ নভেম্বর) বিকেলে সচিবালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এই নির্দেশনা দিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি।

শিক্ষামন্ত্রী লিখিত বক্তব্যে জানান, প্রশ্নপত্রে যাই থাকুক না কেন পরীক্ষার্থীকে বোর্ড থেকে গত ৬ অক্টোবর ইস্যু করা নম্বর ও সময় বিভাজন নির্দেশিকা অনুসরণ করতে হবে।

বিজ্ঞান বিভাগের পরীক্ষার্থীদের এমসিকিউ ২৫টির মধ্যে ১২টির উত্তর দিতে হবে, সময় ১৫ মিনিট; তত্ত্বীয় পরীক্ষায় ৮টি প্রশ্নের মধ্যে ২টির উত্তর দিতে হবে, সময় ১ ঘণ্টা ১৫ মিনিট। পরীক্ষা শুরুর আগে কক্ষ পর্যবেক্ষকরা উচ্চস্বরে বিষয়টি পরীক্ষার্থীদের অবশ্যই অবহিত করবেন।

মানবিক ও ব্যবসায় শাখা পরীক্ষার্থীদের এমসিকিউ ৩০টির মধ্যে ১৫টির উত্তর দিতে হবে, সময় ১৫ মিনিট; তত্ত্বীয় পরীক্ষায় ১১টি প্রশ্নের মধ্যে ৩টির উত্তর দিতে হবে, সময় ১ ঘণ্টা ১৫ মিনিট। পরীক্ষা শুরুর আগে কক্ষ পর্যবেক্ষকরা উচ্চস্বরে বিষয়টি পরীক্ষার্থীদের অবশ্যই অবহিত করবেন।

প্রশ্নপত্রে ব্যতিক্রম হওয়ার সম্ভাবনা আছে কিনা—এমন প্রশ্নে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, প্রশ্নপত্রগুলো করা হয়েছিল পুরো তিন ঘণ্টা পরীক্ষা হবে সেই হিসেবে। আমরা বলেছি পরীক্ষা অনেক সহজ হবে। প্রশ্নের উত্তর করার অপশন অনেক বেড়ে গেছে। নম্বরও কম হবে।

করোনা মহামারির কারণে এ বছর এসএসসি এবং এইচএসসি পরীক্ষা তিন ঘণ্টার পরিবর্তে দেড় ঘণ্টা করে নেওয়া হচ্ছে। সময় কমানোর পাশাপাশি কমেছে পরীক্ষার নম্বরও।

সাধারণ শিক্ষা বোর্ডগুলোর তত্ত্বীয় বিষয়ে পরীক্ষা আগামী ২ ডিসেম্বর থেকে শুরু হয়ে ৩০ ডিসেম্বর শেষ হবে। মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের তত্ত্বীয় বিষয়ের পরীক্ষা ২ ডিসেম্বর থেকে শুরু হয়ে ১৯ ডিসেম্বর শেষ হবে। আর কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের তত্ত্বীয় বিষয়ের পরীক্ষা ২ ডিসেম্বর থেকে শুরু হয়ে ৮ ডিসেম্বর শেষ হবে।