নতুন এমপিওভূক্ত শিক্ষকদের এমপিও হবে যেভাবে

নতুন এমপিওভুক্ত স্কুল-কলেজের পাঠদান-একাডেমিক স্বীকৃতি, অন্যান্য কাগজপত্র ও শিক্ষক কর্মচারীদের সনদ জেলা ও উপজেলার কমিটির মাধ্যমে সরেজমিনে যাচাই করার নির্দেশনা দিয়েছে।

রোববার স্কুল-কলেজের এমপিও নীতিমালায় নতুন এমপিওভুক্ত প্রতিষ্ঠান ও শিক্ষকদের নিয়োগ সংক্রান্ত কাগজপত্র যাচাই সংক্রান্ত অনুচ্ছেদটি সংশোধন করে পরিপত্র জারি করেছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগ।  মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব মো. আবু বকর ছিদ্দীক স্বাক্ষরিত নীতিমালায় এ বিষয়ে বিস্তারিত জানানো হয়।

এতে বলা হয়, নতুন এমপিওভুক্ত স্কুল-কলেজের পাঠদান-একাডেমিক স্বীকৃতি, অন্যান্য কাগজপত্র ও শিক্ষক কর্মচারীদের সনদ জেলা ও উপজেলার কমিটির মাধ্যমে সরেজমিনে যাচাই করা হবে। জেলা-উপজেলা ও থানা কমিটি শিক্ষকদের সনদ, মার্কশিট, নিবন্ধন-সুপারিশ ও নিয়োগ সংক্রান্ত কাগজপত্রের মূল কপিসহ প্রতিষ্ঠানটি সরেজমিনে যাচাই করবে। যাচাই শেষে তথ্য সঠিক হলে প্রতিষ্ঠান প্রধান অনলাইনে আবেদন করবেন। আর জেলা ও অঞ্চল পর্যায়ের কমিটি অনলাইনে আবেদনের স্তর যাচাই করবে।

শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমিক স্তরের তথ্য উপজেলা বা থানা কমিটি ও জেলা কমিটির মাধ্যমে যাচাই করা হবে। আর উচ্চমাধ্যমিক ও ডিগ্রি স্তর ও শিক্ষক-কর্মচারীদের কাগজপত্র যাচাই হবে জেলা পর্যায়ের অপর একটি কমিটির মাধ্যমে।

পরিপত্রে বলা হয়েছে, নতুন কোনো শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বা স্তর এমপিও কোড পাওয়ার পর প্রতিষ্ঠানের পাঠদান, একাডেমিক স্বীকৃতি, এমপিও কোড পাওয়ার পর প্রতিষ্ঠানের পাঠদান, একাডেমিক স্বীকৃতি, এমপিও কোড ও অন্যান্য কাগজপত্র এবং ব্যক্তি এমপিওর ক্ষেত্রে শিক্ষক-কর্মচারীদের সব পরীক্ষার সনদ-মার্কশিট, এনটিআরসিএর নিবন্ধন, এনটিআরসিএর সুপারিশ ও নিয়োগ সংক্রান্ত কাগজপত্র মূল্য কপিসহ উপজেলা-থানা ও জেলা কমিটি প্রতিষ্ঠানটি সরেজমিনে যাচাই করবেন। যাচাই শেষে সঠিকতা থাকলে প্রতিষ্ঠান প্রধান অনলাইনে আবেদন করবেন। জেলা-অঞ্চল পর্যায়ের কমিটি অনলাইনে পাওয়া আবেদনগুলোর সংশ্লিষ্ট স্তর যাচাই করবেন।

নিম্ন মাধ্যমিক, মাধ্যমিক ও স্কুল অ্যান্ড কলেজের মাধ্যমিক অংশ ও শিক্ষক-কর্মচারীদের নিয়োগের কাগজপত্র যাচাইয়ে উপজেলা বা থানা পর্যায়ের কমিটিতে থাকবেন সংশ্লিষ্ট উপজেলা বা থানা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার, সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক বা তার প্রতিনিধি (অধিদপ্তর মনোনীত) ও সংশ্লিষ্ট উপজেলা বা থানার এমপিওভুক্ত উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক।

এ প্রতিষ্ঠানগুলোর মাধ্যমিক অংশ ও শিক্ষক-কর্মচারীদের নিয়োগের কাগজপত্র যাচাইয়ে ও আবেদনের স্তর যাচাইয়ে জেলা পর্যায়ের কমিটিতে থাকবেন জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা, সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বা তার প্রতিনিধি (অধিদপ্তর মনোনীত) এবং জেলা সদরের এমপিওভুক্ত উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক (অধিদপ্তর মনোনীত)। মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, এ দুই কমিটিতে সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বা প্রতিনিধি মনোনয়নের ক্ষেত্রে উপজেলার প্রতিষ্ঠান অগ্রাধিকার পাবে ও জেলার প্রতিষ্ঠানের মধ্যে সীমিত রাখতে হবে।

নিম্ন মাধ্যমিক, মাধ্যমিক, স্কুল অ্যান্ড কলেজের মাধ্যমিক অংশের অনলাইন আবেদনের স্তর যাচাইয়ে অঞ্চল পর্যায়ের কমিটিতে আছেন, উপপরিচালক, অঞ্চলে অবস্থিত জেলা শহরে-বিভাগীয় শহরের সরকারি হাইস্কুলের প্রধান শিক্ষক (অধিদপ্তর মনোনীত) ও অঞ্চলে অবস্থিত জেলা শহরের বা বিভাগীয় শহরের এমপিওভুক্ত হাই স্কুলের প্রধান শিক্ষক (অধিদপ্তর মনোনীত)।

এদিকে স্কুল অ্যান্ড কলেজের কলেজ অংশ ও উচ্চমাধ্যমিক কলেজ ও স্নাতক কলেজের কাগজপত্র ও শিক্ষক-কর্মচারীদের নিয়োগের কাগজ যাচাইয়ে জেলা পর্যায়ের কমিটিতে থাকবেন জেলা শিক্ষা অফিসার, সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ বা তার প্রতিনিধি (অধিদপ্তর মনোনীত) এবং এমপিওভুক্ত কলেজের অধ্যক্ষ (সংশ্লিষ্ট জেলার)।

মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, কলেজের জন্য উপজেলা বা জেলা পর্যায়ের কোনো কমিটি থাকায় জেলা পর্যায়ের কলেজের জন্য এ কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটি আবেদন যাচাই করে অঞ্চলের কমিটির কাছে সুপারিশ পাঠাবেন।

উচ্চমাধ্যমিক-স্নাতক কলেজ ও শিক্ষকদের জন্য অঞ্চল পর্যায়ের কমিটিতে থাকবেন পরিচালক, জেলা বা বিভাগীয় শহরের সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ বা প্রতিনিধি (অধিদপ্তর মনোনীত), জেলা বা বিভাগীয় শহরের এমপিওভুক্ত কলেজের অধ্যক্ষ (অধিদপ্তর মনোনীত)।

মন্ত্রণালয় আরও বলছে, ব্যক্তি এমপিওভুক্তি ক্ষেত্রে দাখিলযোগ্য আবশ্যকীয় সনদ ও রেকর্ডপত্র বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে (স্কুল-কলেজ) জনবল কাঠামো ও এমপিও নীতিমালা-২০২১ এর পরিশিষ্ট ঙ অনুসরণ করতে হবে।