ধাপে ধাপে বাড়তে পারে ছুটি

 নিজস্ব প্রতিবেদক।।

করোনা সংকটে প্রায় দেড় বছর বন্ধ ছিল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। শ্রেণি ও বোর্ড পরীক্ষায় নেমে এসেছিল স্থবিরতা। ঘরবন্দি শিক্ষার্থীরা নির্ভর হয়ে পড়েছিল অনলাইন ক্লাসে। এ অবস্থায় নির্দিষ্ট বয়সের শিক্ষার্থীদের টিকাদান কর্মসূচির আওতায় আনে সরকার। বিগত বছরের শেষে খুলতে শুরু করে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। শুরু হয় সশরীরে ক্লাস। সীমিত সিলেবাসে নেওয়া হয় এসএসসি-এইচএসসি পরীক্ষা। অন্য সব পর্যায়ের ক্লাস-পরীক্ষায়ও গতি আসতে শুরু করে। কিন্তু চলতি বছরের শুরুতে করোনার তৃতীয় ঢেউয়ে ফের এলোমেলো হতে শুরু করেছে সবকিছু।

করোনার ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্ট ও দৈনিক শনাক্ত-মৃত্যু ফের বাড়তে থাকায় আপাতত ৬ ফ্রেব্রুয়ারি পর্যন্ত বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে সব ধরনের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। সব প্রতিকূলতা কাটিয়ে যখন আবার স্বাভাবিকতার দিকে যাচ্ছিল, ঠিক সে সময় ফের ধাক্কা খেয়ে ঘোর সংকটে শিক্ষাব্যবস্থা।

বিকল্প হিসেবে টেলিভিশন, রেডিও এবং অনলাইনে ধারণ করা ক্লাস সম্প্রচার করেও এ ক্ষতি পুষিয়ে নেওয়া সম্ভব হবে না বলেই মত বিশেজ্ঞদের। এজন্য ব্লেন্ডার এডুকেশন (প্রযুক্তিগত শিক্ষা) বাস্তবায়ন করার আহ্বান জানিয়েছেন তারা।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের একাধিক কর্মকর্তা জানান, আগের মতো এবারো ধাপে ধাপে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটি বাড়ানো হবে। পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করে নির্ধারণ করা হবে ছুটি। সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে না আসা পর্যন্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখা হবে।

মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের পরিচালক (মাধ্যমিক বিদ্যালয়) অধ্যাপক বেলাল হোসাইন  বলেন, করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে না আসা পর্যন্ত স্কুল-কলেজ খোলা সম্ভব হবে না। বিকল্প পদ্ধতি হিসেবে আমরা অনলাইন ক্লাস শুরুর সিদ্ধান্ত নিয়েছি। স্বাস্থ্যবিধি মেনে অ্যাসাইনমেন্ট কার্যক্রম পুনরায় শুরু করা হচ্ছে। ২০২২ সালের এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট শুরু করতে মাঠ পর্যায়ে নির্দেশনা পাঠানো হয়েছে। শিগগির ষষ্ঠ থেকে নবম শ্রেণি পর্যন্ত এর আওতায় আনা হবে। অ্যাসাইনমেন্ট তৈরিতে শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।