দুই শিক্ষকের বিরুদ্ধে ডিজিটাল আইনে মামলার সুপারিশ

প্রকাশিত: ১০:১০ পূর্বাহ্ণ, বৃহঃ, ৮ এপ্রিল ২১

নিউজ ডেস্ক।।

বরিশাল পলিটেকনিক ইন্সটিটিউটের ফেসবুক পেজ হ্যাক করে কুরুচিপূর্ণ অডিও এবং ভিডিও আপলোডের সন্দেহে অভিযুক্ত দুই শিক্ষকের বিরুদ্ধে ডিজিটাল আইনে মামলার সুপারিশ করে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে লিখিত আবেদন করা হয়েছে। বরিশাল পলিটেকনিক ইন্সটিটিউটের শিক্ষক-কর্মচারীদের ৪টি সংগঠনের যৌথ সভায় সর্বসম্মতিক্রমে গত রবিবার এই সিদ্ধান্ত হয়। গতকাল বুধবার রেজুলেশন আকারে সুপারিশসহ ওই চিঠি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে পাঠানো হয়েছে।

ওই আবেদন সূত্রে জানা যায়, গত ২৫ মার্চ সকাল ১১টার দিক বরিশাল পলিটেকনিক ইন্সটিটিউটের সিভিল বিভাগের ওয়ার্কশপ সুপার মো. রেজাউল বাহার ইন্সটিটিউটের রেজিস্টেশন সেকশনের সামনে এক শিক্ষককে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করে। এসময় সিভিল বিভাগের ইন্সস্ট্রাক্টর কামরুজ্জামান ওয়ার্কশপ সুপার রেজাউল বাহারের পক্ষাবলম্বন করে ওই শিক্ষককে গালাগাল করে। সেখানে উপস্থিত শিক্ষক-কর্মচারীরা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে।

পরে শিক্ষক-কর্মচারীরা ইন্সটিটিউটের অধ্যক্ষ প্রকৌশলী মো. রুহুল আমিনের কাছে ওই ঘটনার সুষ্ঠু বিচারের দাবি জানান। অধ্যক্ষ সিসি ক্যামেরার ফুটেজ পর্যালোচনা করে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস দেন। ২৭ মার্চ ডাইরেক্টর অব টেকনিক্যাল এডুকেশন (ডিটিই) কর্তৃপক্ষ অভিযুক্ত দুই জনকে বদলির আদেশ দেন। এর মধ্যে রেজাউল বাহারকে ফেনী পলিটেকনিক ইন্সটিটিউটে এবং কামরুজ্জামানকে সিলেট পলিটেকনিক ইন্সটিটিউটে বদলি করা হয়।
এ ঘটনার পর শিক্ষার্থীদের অনলাইন ক্লাশ পরিচালনার জন্য ‘বরিশাল পলি ওসিপি’ নামে একটি ফেসবুক পেজ হ্যাক করে এডমিন থেকে অধ্যক্ষকে বাদ দিয়ে ওই পেজের নিয়ন্ত্রণ নেয় অজ্ঞাত কেউ। পেজের নাম পরিবর্তন করে ‘অনলাইন ক্লাস পেজ’ নাম দিয়ে প্রশাসনসহ বিভিন্ন শিক্ষক-কর্মচারীদের নামে কুরুচিপূর্ণ অডিও এবং ভিডিও আপলোড করা হয়।

বরিশাল পলিটেকনিক ইন্সটিটিউটের অধ্যক্ষ প্রকৌশলী মো. রুহুল আমিন জানান, তাৎক্ষণিকভাবে বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হয়েছে। যার প্রেক্ষিতে তাদের দুজনকেই বদলি করা হয়েছে। প্রতিষ্ঠানের ফেসবুক পেজ হ্যাক করার বিষয়টিও জানানো হয়েছে। ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ তাদের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা নিচ্ছে বলে তিনি জানান।

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়.