ছাত্রলীগ হবে স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ার কারিগরঃ শিক্ষামন্ত্রী

 শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেছেন, ছাত্রলীগই হবে স্মার্ট বাংলাদেশ তৈরির কারিগর। দেশের আন্দোলন, সংগ্রাম ও নির্বাচন কোনো কিছুই ছাত্রলীগ ছাড়া হয় না।তিনি বলেন, যে কোনো সঙ্কটে সাধারণ মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে ছাত্রলীগ। দেশের সবুজায়নের ক্ষেত্রে ছাত্রলীগের বড় অবদান রয়েছে।অতিমারির সময়ও ছাত্রলীগের ভূমিকা ছিল অপরিসীম এবং প্রশংসনীয়। ছাত্রলীগকে নিয়ে আমি গর্ব অনুভব করি।

আমার ছাত্রলীগ কোনো অপকাণ্ডে জড়িত নয়।

মঙ্গলবার (১৭ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় চাঁদপুর জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে চাঁদপুর পৌর ছাত্রলীগের আয়োজনে সাংগঠনিক কার্যক্রম গতিশীল করার লক্ষ্যে ও স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণে কর্মী সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, যে মানুষ অন্যের কষ্টে নিজের সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেন, সে মানুষ স্মার্ট মানুষ। যে মানুষ নিজের মতামতকে যেমন গুরুত্ব দেন, তেমনি অন্যের মতামত এবং সে মতের সঙ্গে আমি একমত না হতে পারি, কিন্তু তার মত প্রকাশের স্বাধীনতায় আমি বিশ্বাসী এবং তার মতামতের প্রতি সহিষ্ণতা দেখাই, তিনি হলেন স্মার্ট। যিনি মানবিকতায় বিশ্বাস করে, অন্যের সঙ্গে কাজ করে দেশ গড়বার স্বপ্ন দেখে তিনি স্মার্ট মানুষ। যে মানুষ বিজ্ঞান প্রযুক্তিতে বিশ্বাস করে, এই বিশ্বের জন্য এবং আগামীর অনাগত বিশ্বের জন্য নিজেকে তৈরি করে, সে মানুষ স্মার্ট মানুষ।দীপু মনি বলেন, শুধুমাত্র যন্ত্রের ব্যবহার নয়, যন্ত্রের মধ্যে যত প্রযুক্তি আছে তাকে ব্যবহার করে কিভাবে আমার জীবন, পরিবারের, সমাজের, দেশের সবার জীবন আরও উন্নত করতে পারি এবং নতুন কিছু উদ্ভাবন করতে পারি এসব বিষয়ে যিনি চিন্তা করেন তিনি স্মার্ট মানুষ।

শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি আরও বলেন, যিনি ধর্মের ভিন্নতার কারণে অন্যের ওপর অন্যায় এবং নির্যাতন করে না, নিজের ধর্ম পালনে যেমন সত্য নিষ্ঠ থাকে, অন্যের ধর্ম পালনে যিনি শ্রদ্ধা করে তিনি স্মার্ট। কাজেই আমরা সৎ, সহমর্মী, পরমতসহিষ্ণু, বিজ্ঞানে প্রযুক্তিতে দক্ষ, মানবিক, অসম্প্রদায়িক মানুষ চাই। আমরা গণতন্ত্রের চেতনায় উদ্বুদ্ধ সোনার মানুষ চাই। এসব গুন যাদের মধ্যে, তারাই হচ্ছে স্মার্ট মানুষ। সে মানুষ তৈরি করবে কারা? এই ছাত্রলীগ পারবে। কারণ এই ছাত্রলীগ শেখ হাসিনাকে তাদের নেত্রী মানে। অতএব নেত্রী যে নির্দেশনা দিয়েছে, ছাত্রলীগ সে নির্দেশনা অক্ষরে অক্ষরে পালন করবে। তাহলে আপনারাই হবেন স্মার্ট বাংলাদেশ তৈরি করার স্মার্ট কারিগর।

চাঁদপুর পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি মুহাম্মদ সোহেল রানার সভাপতিত্বে ভার্চ্যুয়ালি যুক্ত হয়ে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সভাপতি সাদ্দাম হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক শেখ ওয়ালী আসিফ ইনান।

ছাত্রলীগ সভাপতি সাদ্দাম হোসেন বলেন, স্মার্ট বাংলাদেশ গড়তে হলে ছাত্রলীগের প্রতিটি কর্মীকে স্মার্ট হিসেবে তৈরি হতে হবে। সরকারের বিগত দিনের সব উন্নয়ন সাধারণ মানুষের কাছে তুলে ধরতে হবে। আমাদের কাজ হচ্ছে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বঙ্গবন্ধুর কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে বিজয়ী করা।

বিশেষ অতিথি হিসেবে আরও বক্তব্য দেন চাঁদপুর জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি জহির উদ্দিন মিজি ও সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন খান।কর্মী সভায় চাঁদপুর পৌরসভার মেয়র মো. জিল্লুর রহমান, জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক তাফাজ্জল হোসেন এসডু পাটওয়ারীসহ জেলা, সদর ও পৌরসভার সাবেক এবং বর্তমান ছাত্রলীগ নেতারা উপস্থিত ছিলেন।