চাকরির নামে প্রতারণা, গ্রেপ্তার ২৩

প্রকাশিত: ১২:৪৬ পূর্বাহ্ণ, শনি, ১৬ জানুয়ারি ২১

নিউজ ডেস্কঃ

চাকরির নামে প্রতারণার অভিযোগে রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে ২৩ জনকে গ্রেপ্তার করেছে র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‍্যাব)। এ ছাড়া ৫০ ভুক্তভোগীকে উদ্ধার করা হয়েছে।

রাজধানীর শাহ আলী, পল্লবী, কাফরুল ও তেজগাঁও থানা এলাকা থেকে গতকাল বৃহস্পতিবার দিবাগত ভোর পর্যন্ত অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন র‍্যাব-৪-এর অপারেশন অফিসার জিয়াউর রহমান।

আজ শুক্রবার বিকেলে র‍্যাব কর্মকর্তা বলেন, ‘আমাদের কাছে ভুক্তভোগীরা তাঁদের অভিযোগ জানান। তারপর আমরা তদন্ত করি গোপনে। অনুসন্ধানে জানা যায়, চাকরি দেওয়ার নাম করে প্রতারণার ফাঁদে ফেলে চাকরিপ্রার্থীদের কাছ থেকে মোটা অঙ্কের টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে প্রতারকরা।

প্রতারকরা প্রথমে একটি অফিস ভাড়া নিয়ে ভূঁইফোড় প্রতিষ্ঠান খুলত। তারপর স্বল্পশিক্ষিত ও আর্থিকভাবে অস্বচ্ছল যুবক বা যুবতীদের আকর্ষণীয় বেতনের চাকরির প্রলোভন দেখাত। প্রশিক্ষণের নামে তাদের কাছ থেকে একদফা টাকা নেওয়া হতো। পরে চাকরির ভুয়া নিয়োগপত্র দিয়ে আবারও বিপুল টাকা হাতিয়ে নিত প্রতারকচক্র। ভুক্তভোগীদের অভিযোগের ভিত্তিতে পর্যাপ্ত প্রমাণ নিয়ে কয়েকটি ভুয়া চাকরিদাতা প্রতিষ্ঠানে অভিযান পরিচালনা করে র‍্যাব।

র‍্যাবের অপারেশন অফিসার বলেন, অভিযানে শাহ আলী থানার ‘লাইফ গার্ড সিকিউরিটি অ্যান্ড সাপ্লাই লিমিটেড’ নামে একটি প্রতিষ্ঠান থেকে ১০০টি জীবনবৃত্তান্তের ফরম, ১৫টি চাকরির আবেদন ফরমের বই, চারটি রেজিস্টার, চারটি সিলমোহর, সাতটি মোবাইল ফোন, ২০০টি ভিজিটিং কার্ড এবং নগদ পাঁচ হাজার টাকাসহ পাঁচজনকে গ্রেপ্তার করা হয়। তাঁরা হলেন তাসলিমা সুলতানা (৩০), সায়মা ইসলাম (২৪), মৌসুমী আক্তার (২৮), সাইফুল ইসলাম (৩০) ও রাকিব হোসেন (২০)।

রাজধানীর পল্লবী থানা এলাকার ‘বিজবন্ড আইটি লিমিটেড’ থেকে ৫০টি টাকা প্রাপ্তির রসিদ, ৩০০টি ভর্তি ফরম, ৬৫টি অঙ্গীকারনামা, ৭০টি চাকরির নিয়োগ ফরম, ২০০টি কমিশন ভাউচার, সাতটি রেজিস্টার, একটি প্যাড এবং চারটি টাকা প্রাপ্তির রশিদসহ তিনজনকে গ্রেপ্তার করা হয়। তাঁরা হলেন সুমনা খাতুন (১৯), সোহেল ফরাজি (২৯) ও শামীমা আক্তার (২৮)।

র‍্যাব জানায়, রাজধানীর কাফরুল থানার শাহ আলী প্লাজায় ‘ডিজিট-৪ সিকিউরিটি অ্যান্ড লজিস্টিকস সার্ভিসেস লিমিটেড’ নামের ভুয়া প্রতিষ্ঠান থেকে ১০টি প্রচারপত্র, পাঁচটি আইডি কার্ড, ১০টি মনোগ্রাম এবং ৪০টি ভর্তি ফরমসহ ছয় প্রতারককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাঁরা হলেন, মো. কামরুজ্জামান (৩৩), মশিউর রহমান (২৭), মো. সোহাগ (১৯), মো. রুবেল (২৮), মমতাজ নায়রী (৪৪) ও শাহীনূর আক্তার (২৭)।

র‍্যাব আরো জানায়, তেজগাঁও থানা এলাকায় অভিযান চালিয়ে ‘বিজবন্ড আইটি লিমিটেড’ নামের আরেকটি প্রতিষ্ঠান থেকে ১৫টি টাকা প্রাপ্তির রসিদ, একটি ভর্তি ফরমের বই, পাঁচটি চুক্তিপত্র, একটি সিল, ৫০টি ভিজিটিং কার্ড, ৪৫টি আইডি কার্ড, ১৫টি জীবনবৃত্তান্ত এবং ১৫টি কমিশন ভাউচারসহ নয় প্রতারককে গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন আব্দুল হামিদ (৩৮), আব্দুল জব্বার (৩৬), গাজিউর রহমান (২২), আব্দুস সালাম (৩৬), মাহমুদা খাতুন (৩০), মাসুম কবির (২৯), ফরিদ ইমরান (২৬), এনামুল হক (২৭) ও মাহমুদা (৩০)।

র‍্যাব-৪-এর অপারেশনস অফিসার জিয়াউর রহমান আরো বলেন, ‘গ্রেপ্তারের পর তারা তাদের অপরাধ স্বীকার করে নিয়েছেন। এ ছাড়া আরো কিছু নতুন তথ্য দিয়েছেন। আমরা সেসব তথ্য নিয়ে কাজ করব। গ্রেপ্তারকৃতদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়.