ঘোষণা ছাড়াই মিটার চার্জ ৪০ টাকা বাড়াল তিতাস

অনলাইন ডেস্কঃ

গ্যাসের দাম ৪৩ শতাংশ বৃদ্ধির দেড় মাস কাটতে না কাটতে এবার প্রি-পেইড মিটার চার্জ ৪০ টাকা বাড়িয়েছে দেশের বৃহত্তম গ্যাস বিতরণকারী সংস্থা তিতাস।

চলতি জুলাই থেকে এটি কার্যকর হবে। কোম্পানিটি এতদিন মিটার চার্জ বাবদ প্রতিমাসে ৬০ টাকা করে নিত, যা জুলাই থেকে ১০০ টাকা করা হয়েছে। তবে এজন্য কোনো নোটিশ দেয়নি তিতাস।

তিতাসের তরফে চার্জ বৃদ্ধির কথা স্বীকার করা হয়েছে, তবে এজন্য নোটিশ দেওয়ার ‘প্রয়োজন’ দেখছেন না বলে জানান কোম্পানির কর্তাব্যক্তিরা।

গত জুন থেকে পাইপলাইনে সরবরাহ করা প্রতি ঘনমিটার গ্যাসের পাইকারি দাম ৯ টাকা ৭০ পয়সা থেকে ২২ দশমিক ৭৮ শতাংশ বাড়িয়ে ১১ টাকা ৯১ পয়সা করেছে বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন (বিইআরসি), যা জুন থেকেই কার্যকর হয়েছে। আর প্রিপেইড মিটারে প্রতি ইউনিটের খরচ ১২ টাকা ৬০ পয়সা থেকে ৪৩ শতাংশ বাড়িয়ে ১৮ টাকা করা হয়েছে।

তিতাসের মোট ২৮ লাখ ৭৪ হাজার ৮৪৮ জন গ্রাহকের মধ্যে আবাসিক গ্রাহক রয়েছেন ২৮ লাখ ৫৬ হাজার ২৪৭ জন। ২০২১ সালের মধ্যে সাড়ে সাত লাখ গ্রাহককে মিটার প্রিপেইড পদ্ধতিতে নিয়ে আসার পরিকল্পনা থাকলেও এখন পর্যন্ত তিন লাখ ২৮ হাজার গ্রাহককে প্রি-পেইড মিটারের সুবিধা দিতে পেরেছে তিতাস।

তিতাসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক হারুনুর রশিদ মোল্লাহ বলেন, একটি গ্যাসের মিটার ২৫ থেকে ২৬ হাজার টাকায় কিনতে হয়েছে, যার লাইফ টাইম বা মেয়াদ হচ্ছে ১০ বছর। ৬০ টাকা করে বিল নিতে থাকলে মিটারের দাম উঠতে সময় লাগবে ৩৫ বছর। তিতাস নিজের টাকায় মিটার কিনে ৩২ বছর ধরে টাকা উসুল করবে? এটা কি খুব বুদ্ধিমানের কাজ হবে?

কোম্পানির বোর্ড সভায় এই চার্জ ৩০০ টাকা করার প্রস্তাব উঠেছিল জানিয়ে তিনি বলেন, বোর্ড থেকে বলা হলো, ঠিক আছে- আস্তে আস্তে বাড়ান। মাত্র ৪০ টাকা বাড়ানো হয়েছে। তাতে এত কথা ওঠার কথা না। গ্রাহকের উচিত প্রতি মাসে ৫০০ টাকা করে দেওয়া। কারণ মিটারের কারণে তার সাশ্রয় হয়েছে ৫০০ টাকা করে। এটা নিয়ে অভিযোগ আসার কথা না। বরং আমাদের সাধুবাদ দেওয়া উচিত।

চার্জ বৃদ্ধির দাপ্তরিক ঘোষণা দেওয়া হয়েছিল কি না- এ প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, নোটিশ কেন যাবে? আমরা সব মিটারের সফটওয়্যারে আপডেট করে দিয়েছি। অলরেডি গ্রাহকরা জেনে গেছেন।