গণবিজ্ঞপ্তির ফলাফলে ভুলের অভিযোগ

প্রকাশিত: ৮:৫৩ পূর্বাহ্ণ, শনি, ১৭ জুলাই ২১

নিউজ ডেস্ক।।

বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষক পদে নিবন্ধিতদের নিয়োগ সুপারিশ করেছে বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষ (এনটিআরসিএ)। তবে ১৫ তম শিক্ষক নিবন্ধন পরীক্ষায় আইসিটি পদে উত্তীর্ণ প্রার্থীরা কোন প্রতিষ্ঠান সুপারিশ পাননি বলে অভিযোগ তুলেছেন।

১৫ তম নিবন্ধনে উত্তীর্ণ প্রার্থীরা অভিযোগ করে বলেছেন, ১৫ তম নিবন্ধন পরীক্ষায় আইসিটি সহকারী শিক্ষক পদে উত্তীর্ণ কোন প্রার্থীকে নিয়োগ সুপারিশ করা হয়নি। রাতে আমরা দেখতে পেরেছি পেছন থেকে অনেককে সুপারিশ করা হয়েছে। আমরা খুবই উদ্বিগ্ন অবস্থায় আছি। এছাড়া পছন্দের প্রতিষ্ঠানে বেশি নম্বরধারী ১৫ তম নিবন্ধনে উত্তীর্ণদের সুপারিশ না করে কম নম্বর পাওয়া অন্য প্রার্থীদের সুপারিশ করা হয়েছে।

এ জটিলতার বিষয়ে এনটিআরসিএর সচিব টি এম মাহবুব উল করীম গণমাধ্যমকে বলেন, ১৫ তম নিবন্ধনে আইসিটি শিক্ষক পদে উত্তীর্ণ প্রার্থীদের জটিলতার বিষয়টি আমরা জেনেছি। ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের আমরা বিষয়টি জানিয়েছি। আমরা বিষয়টি দেখবো। এ বিষয়ে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

১৫তম শিক্ষক নিবন্ধন পরীক্ষায় ৬৯ নম্বর পেয়ে উত্তীর্ণ হয়েছিলেন পটুয়াখালীর প্রার্থী নূর মোহাম্মদ। তিনি বলেন, ৬ মাসের ডিপ্লোমায় নিবন্ধন সংক্রান্ত কোন জটিলতা তার নেই। অথচ পটুয়াখালী শেরে বাংলা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে ৬৯ নম্বর নিয়ে তিনি আবেদন করলেও সেখানে ৬২ নম্বর পাওয়া একজনকে সুপারিশ কর হয়েছে।

উত্তীর্ণ অপর এক প্রার্থী বলেন, জাতীয় মেধা তালিকা আমার অবস্থান সাত। কিন্তু আমার ১ম পছন্দের প্রতিষ্ঠানে যাকে সুপারিশ করা হয়েছে জাতীয় মেধা তালিকা তার অবস্থান ৩৯৭’।

জানা গেছে, ৬ মাসের ডিপ্লোমায় আইসিটি পদে উত্তীর্ণ প্রার্থীদের ভুল করে সুপারিশ করা এড়াতে এনটিআরসিএ তাদের সনদ সংগ্রহ করেছিল। সে বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছিল, সনদ জমা না দিলে প্রার্থীদের সুপারিশ করা হবে না। প্রার্থীরা সনদ জমাও দিয়েছিলেন। প্রার্থীরা ধারনা করছেন, সনদ জমা দিলেও তাদের সনদ বিবেচনা করেনি এনটিআরসিএ।

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়.