কিশোর গ্যাং একটি জটিল সামাজিক সমস্যা

প্রকাশিত: ৮:২২ অপরাহ্ণ, শুক্র, ১১ জুন ২১

দেশ জাতি ও বিশ্বের কাছে কিশোরদের অপরাধ এখন জটিল ও মারাত্মক সমস্যা । সংগঠনের সমষ্টিবদ্ধ নৃশংস নাম “কিশোর গ্যাং” । দেশজুড়ে বিরাজমান সমস্যা আগের থেকে বর্তমানে ব্যাপক। এটি একটি চলমান সমস্যা যা শুধু বেড়েই যাচ্ছে । মেয়েদের হয়রানিসহ ধর্ষণ ও ধর্ষনের পর খুন যাদের নিত্যদিনের ঘটনা । এভাবে চললে আগামী প্রজন্ম রক্ষা অসম্ভব । দেশকে বাঁচাতে এখনই নেওয়া উচিত পদক্ষেপ যা বাংলাদেশকে কিশোর গ্যাং মুক্ত করবে ।

গ্যাংটি সৃষ্টি হয় ১২ থেকে ১৭ বছরের বাচ্চাদের নিয়ে । শহরের যেখানে কিশোর গ্যাং আছে সেখানে স্কুল থেকে শুরু করে প্রতিটি অলিতে গলিতে তাদের নাম ও লগো থাকে । সেই নামগুলোকে বিভিন্নভাবে প্রমোট করা হয় মেসেঞ্জার, ইউটিউব ও তথ্যপ্রযুক্তির প্রায় সকল যোগাযোগ মাধ্যমে । এছাড়াও বিভিন্ন ব্যাচলেট ও একই জামাকাপড় পরে তারা তাদের বৈশিষ্ট্য সামনে তুলে ধরে ।

ক্ষমতা ও অর্থ কিশোরদের জন্য অন্যতম অপ্রোয়জনীয় জিনিস হলেও বহ্যিকভাবে অল্প বয়সে এই প্রয়োজন গুলো মেটানোর জন্য শুরু হয় কিশোর গ্যাং। গ্যাং গড়ে উঠার আরেকটি কারন ব্যক্তিত্ব, অধিপত্য ও অস্তিত্ব তুলে ধরা । পারিবারিক বিশৃঙ্খলা, নেশাগ্রস্ত অভিভাবক, বন্ধুদ্ধের মাদক/নেশাজাতীয় জিনিসগুলো নিয়মিত দৃশ্যমান বিষয়টিও তাদের উৎসাহী করে । এভাবে নেতা হওয়া প্রবণতা, মুভির নায়কদের অনুকরণ, অল্প বয়সে মিলন-সঙ্গম আসক্তি কিশোরদের এই পথে জড়িত হওয়ার কারণ ।

কিছু বছর আগে উত্তরায় আদনান হত্যার পর বিষটি নজর কারে সবার । এভাবেই সর্বশেষ ছাত্রলীগের একটি কিশোরগ্যাং চট্টগ্রামে মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ শাহজাহানকে কুপিয়ে হত্যা করেছে । এভাবে দেশ ও বিশ্বব্যাপী অনিয়ন্ত্রক একটি বিষয় হয়ে পড়েছে ।

সাধারণত দলগত ছায়াপথ এই পৃষ্ঠপোষক । বড় ভাইদের সেল্টার তাদের আরও সক্রিয় করে ।
শহর থেকে গ্রাম পর্যায়ে ছোট্ট ছোট্ট পুলিশিং কার্যক্রমের মাধ্যমে তাদের নিয়ন্ত্রন রাখা যায়। পরিবারের উচিত উঠতি বয়সের কিশোরদের বুঝানো এবং সংযত রাখা । নজর রাখা তার সহপাঠী বন্ধুদেরও উপর, শিশু-কিশোরের মানসিক সমস্যা দূর করা, প্রয়োজনে চিকিৎসা দেওয়া ।

কিশোরদের মেধা বিকাশের জন্য বিভিন্ন অলিম্পিয়ার, প্রতিযোগিতা ও সংযত সংস্কৃতির ব্যবস্থা করা। বিশেষ ব্যবস্থা করে খুলে দেওয়া উচিত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান । সুস্থ বিনোদন, চারিত্রিক গুনাবলি শিক্ষা ও ধর্মীয় পবিত্র কিতাব ও সুন্নাহ শিক্ষা দেওয়া।

গ্যাংয়ের পৃষ্ঠাপোষক সবাইকে আইনের আওত্তায় আনতে হবে । যে কোন ধরনের অপরাধ পূর্ব সনাক্ত পরিকল্পনা রাখতে হবে । প্রয়োজনে কিশোর পরিকল্পনা সংস্থা গড়ে তুলতে হবে এবং খেলাধুলায় আগ্রহী করে তুলতে পারলে কিশোর গ্যাং নামক দুঃস্বপ্ন হারিয়ে যাবে ।
লেখক-
রানা আহম্মেদ অভি
শিক্ষার্থী, বাংলা বিভাগ
উত্তরা বিশ্ববিদ্যালয়

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়.