কলেজ ভবন নাকি রাজনৈতিক কার্যালয়?

নিউজ ডেস্ক।।

গাজীপুর মেট্রোপলিটনের কোনাবাড়ি থানা আওয়ামী লীগের একটি সম্মেলনকে কেন্দ্র করে কলেজ ভবনসহ মাঠের আশপাশে এমন ভাবে ব্যানার-ফেস্টুন সাঁটানো হয়েছে যাতে এটি কলেজ ভবন নাকি রাজনৈতিক কার্যালয় বুঝার উপায় নেই। আজ মঙ্গলবার সকাল থেকে কলেজের ক্লাসও শুরু হবে। এতে শিক্ষার্থীদের লেখাপাড়ায় ব্যাঘাত ঘটার সম্ভাবনা রয়েছে।

রোববার দুপুর আড়াইটার দিকে কোনাবাড়ী ডিগ্রী কলেজে গিয়ে দেখা যায়, বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীদের ব্যানার-ফেস্টুনে কলেজ গেট, মাঠ ও একাডেমিক ভবন ঢেকে গেছে। দেখে বোঝার উপায় নেই এটি কলেজ নাকি আওয়ামী লীগের কার্যালয়। প্রধান ফটকে বেশ কিছু শ্রমিক বড় করে তোরণ তৈরি করছেন। কলেজ ভবনসহ পুরো মাঠের চারদিকে ছেয়ে ফেলা হয়েছে ব্যানার ফেস্টুন দিয়ে।

দলীয় নেতাকর্মীদের সূত্রে জানা গেছে, গাজীপুর মেট্রোপলিটন এলাকার কোনাবাড়ি থানা আওয়ামী লীগের নতুন কমিটি গঠন উপলক্ষে আগামী ১৫ অক্টোবর সম্মেলনের আয়োজন করা হয়েছে। ওই সম্মেলনকে কেন্দ্র করে এলাকায় ব্যাপক প্রচার-প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন দলীয় নেতাকর্মীরা।

 

নিজেদের নানা ভাবে জাহির করার চেষ্টা করছেন। বড় নেতাদের এবং সম্মেলনে আসা অতিথিদের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়ক মাঝে ও দুই পাশে প্রায় দুই কিলোমিটার এলাকায় ব্যানার ফেস্টুন সাঁটানো হয়েছে। একই ভাবে সম্মেলনের স্থান করা হয়েছে কোনাবাড়ি ডিগ্রী কলেজ মাঠ। তাই সেই কলেইজের প্রধান গেটসহ আশপাশ এবং পুরো কলেজ ভবনটি ঢেকে ফেলা হয়েছে ব্যানার ফেস্টুন দিয়ে।

কলেজের এক ছাত্রের অভিভাবক সিরাজুল ইসলাম বলেন, কলেজের ভবন দেখে বুঝার উপায় নেই এটি কলেজ নাকি রাজনৈতিক কার্যালয়।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক শিক্ষার্থীরা জানান, অনেক দিন বন্ধ থাকার পর মঙ্গলবার থেকে ক্লাসও শুরু হবে। কলেজ বন্ধ থাকার সুযোগে কলেজ ভবনসহ মাঠের চারদিকে ব্যানার-ফেস্টুন যেভাবে লাগানো হয়েছে, তাতে এগুলো খুলে না দিলে ক্লাসে প্রবেশ করাটাই কষ্টকর হয়ে যাবে। একটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে এ ধরনের রাজনৈতিক পোস্টার লাগানো উচিত হয়নি। এটি দেখতেও খারাপ লাগছে। অথচ তাদের সম্মেলন হবে আগামী ১৫ অক্টোবর। প্রয়োজনে তারা অনুষ্ঠানের একদিন আগে এগুলো লাগাতে পারতো। অনুষ্ঠান শেষ হলে এগুলো কে পরিস্কার করবে সেটি নিয়ে চিন্তায় আছে কলেজ কর্তৃপক্ষ।

কোনাবাড়ি ডিগ্রী কলেজের এক শিক্ষার্থী ও কলেজের পাশের হরিণাচালা এলাকার বাসিন্দা কামরুল ইসলাম জানান, বেশ কয়েকদিন বন্ধ থাকার পর মঙ্গলবার থেকে কলেজ খোলা। আওয়ামী লীগের নেতারা ব্যানার পোস্টার দিয়ে কলেজের যে অবস্থা করে রেখেছে তাতে লেখাপাড়ার পরিবেশ একেবারে নষ্ট করে দিয়েছে।

স্থানীয় ব্যবসায়ী আবু সাঈদ জানান, আওয়ামী লীগের সম্মেলন হবে তাতে আমাদের কি? আমাদের বাড়ি ঘর থেকে শুরু করে পুরো রাস্তাঘাট সব স্থানে পোস্টার লাগিয়ে বাড়িঘরের পরিবেশ নষ্ট করে দিয়েছে। এলাকার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি দেখে মনে হচ্ছে এটি রাজনৈতিক কার্যালয়। দ্রুত এসব ব্যানার-ফেস্টুন অপসারণ করা প্রয়োজন।

 

কোনাবাড়ী ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ মো. বেলাল হোসেন বলেন, ‘কলেজ বন্ধ থাকার সুযোগে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা এগুলো লাগিয়ে কলেজের পরিবেশ নষ্ট করেছে। তারপরও কলেজের পক্ষ থেকে এলাকার নেতাকর্মীদের বিষয়টি জানিয়েছি তারা বলেছে, অনুষ্ঠান শেষে ব্যানার ফেস্টুন খুলে পরিস্কার করে দেয়া হবে। এনিয়ে তিনি উভয় সংকটে পড়েছেন।

গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক (ভারপ্রাপ্ত) মো. আতাউল্লাহ মন্ডল বলেন, একটি রাজনৈতিক অনুষ্ঠান হবে যার কারণে সবাই আগে থেকেই ব্যানার পোস্টার লাগিয়েছে। এটাতো আর অশালীন কিছু না, তাই অতোটা সমস্যা হবে না। কয়েকটা দিনই তো আপনারা একটু সয়ে নিবেন।