এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের জন্য নতুন নির্দেশনা

প্রকাশিত: ৯:৩৭ অপরাহ্ণ, বৃহঃ, ২৯ জুলাই ২১

নিউজ ডেস্ক।।

২০২১ সালের এসএসসি ও এইচএসসি সমমান পরীক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট ও পরীক্ষার বিষয়ে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে আন্তঃশিক্ষা বোর্ড পরীক্ষা বিষয়ক উপ কমিটি।

বৃহস্পতিবার আন্তঃশিক্ষা বোর্ড পরীক্ষা বিষয়ক উপ-কমিটির আহ্বায়ক ও মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক প্রফেসর এস এম আমিরুল ইসলাম এতে স্বাক্ষর করেন।

আদেশে বলা হয়েছে, কোভিড-১৯ অতিমারির কারণে ২০২১ সালের এসএসসি ও এইচএসসি সমমান পরীক্ষা পুনর্বিন্যাসকৃত সিলেবাস অনুযায়ী শুধু গ্রুপভিত্তিক তিনটি নৈর্বাচনিক বিষয়ে অনুষ্ঠিত হবে। পরীক্ষার সময় ও নম্বর কমিয়ে স্বাস্থ্যবিধি মেনে পরীক্ষা নেয়া হবে।

আদেশে আরো বলা হয়, পরীক্ষায় নিয়মিত, অনিয়মিত, প্রাইভেট পরীক্ষার্থী ও জিপিএ উন্নয়ন পরীক্ষার্থীদের পরীক্ষার প্রস্তুতির জন্য অ্যাসাইনমেন্ট কার্যক্রম বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। তবে শুধুমাত্র তিনটি নৈর্বাচনিক বিষয়ে পরীক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট জমা দিতে হবে।

এছাড়াও আংশিক বিষয়ে অকৃতকার্য অথবা এক/দুই বিষয়ে অকৃতকার্য পরীক্ষার্থী যদি নৈর্বাচনিক বিষয়ে অকৃতকার্য হয়ে থাকে সেক্ষেত্রে পরীক্ষার্থীকে তার অকৃতকার্য নৈর্বাচনিক বিষয়ে অ্যাসাইনমেন্ট কার্যক্রমে অংশ নিতে হবে।

তবে আবশ্যিক ও চতুর্থ বিষয়ে অকৃতকার্য পরীক্ষার্থীকে অ্যাসাইনমেন্ট কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করতে হবে না।

আদেশে জানানো হয়, মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর এর ওয়েবসাইট থেকে শিক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট সংগ্রহ করে নির্দেশিকা অনুযায়ী সম্পন্ন করে সংশ্লিষ্ট শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে জমা দিতে হবে।

এ বিষয়ে আন্তঃশিক্ষা বোর্ড সমন্বয়ক ও ঢাকা শিক্ষা বোর্ড চেয়ারম্যান নেহাল আহমেদ বলেন, পরীক্ষার মূল্যায়ন নিয়েও শিক্ষার্থী এবং অভিভাবকদের ভয় পাওয়ার কোনো কারণ নেই। যেসব বিষয়ে পরীক্ষা নেয়া হবে না, সেক্ষেত্রে আমরা গত বছরের মতো সাবজেক্ট ম্যাপিং করে ফল প্রকাশ করব।

একজন শিক্ষার্থী যখন ফল হাতে পাবে, তখন সে দেখবে তার সব বিষয়ে ফল আছে। এর মধ্যে আমরা শুধু তিনটি বিষয়ে পরীক্ষা নেব। তিন বিষয়ের ফল আসবে পরীক্ষা থেকে আর বাকিগুলো আসবে সাবজেক্ট ম্যাপিংয়ের মাধ্যমে।

কীভাবে নম্বর বণ্টন করা হবে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ইতোমধ্যে আমাদের প্রশ্ন তৈরি হয়ে গেছে। প্রশ্নপত্র প্রণয়ন একটি দীর্ঘমেয়াদী প্রক্রিয়া। সংক্ষিপ্ত সিলেবাসের ওপর প্রশ্ন করা হয়েছে। ধরুন, যে প্রশ্নপত্রটি দেয়া হবে সেখানে ১০টা প্রশ্ন আছে। সাধারণত শিক্ষার্থীকে আগে ৭-৮টি উত্তর দিতে হতো। পরীক্ষার সময়ও যেহেতু কমানো হবে, অর্থাৎ ৩ ঘণ্টার পরীক্ষা দেড় ঘণ্টায় নেব, তাই আমরা শিক্ষার্থীদের ২-৩টা প্রশ্নের উত্তর দিতে বলা হবে।

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়.