এমপিওভুক্তির দাবিতে মাদ্রাসা অধিদপ্তরের সামনে মাদ্রাসার ইংরেজি শিক্ষকরা

নিউজ ডেস্ক।।

এমপিওভুক্তির দাবিতে মাদ্রাসা শিক্ষা অধিদপ্তরের সামনে অবস্থান কর্মসূচি পালন করেছেন তৃতীয় গণবিজ্ঞপ্তিতে সুপারিশপ্রাপ্ত মাদ্রাসার ইংরেজি বিষয়ের শিক্ষকরা।

বুধবার (২৭ জুলাই) মাদ্রাসা শিক্ষা অধিদপ্তরের সামনে এই অবস্থান কর্মসূচি পালন করেন তারা। এ সময় অধিদপ্তরের চেয়ারম্যানের কাছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে জমা দেওয়া স্মারকলিপির অনুলিপিও জমা দেন শিক্ষকরা।

ভুক্তভোগী শিক্ষকদের পক্ষে মুহাম্মদ শাহীন খান, মো. আতিকুর রহমান, মো. জহিরুল ইসলাম, মো. আব্দুল আজিজ আহম্মেদ, সৈয়দ রুবেল হোসেন এবং মো. জান্নাতুল ফারুক স্বারকলিপির অনুলিপি জমা দেন।

আরও পড়ুন: এমপিওভুক্তিতে ৪০০ নম্বরের জটিলতা সমাধান চান মাদ্রাসার ইংরেজি শিক্ষকরা

মানববন্ধনে অংশ নেওয়া শিক্ষরা বলেন, বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান (মাদ্রাসা) জনবল কাঠামো ও এমপিও নীতিমালা-২০১৮ (২৩ নভেম্বর ২০২০ পর্যন্ত সংশোধিত) অনুযায়ী সহকারী শিক্ষক ইংরেজি শিক্ষকদের যোগ্যতা স্নাতক-স্নাতকোত্তর পর্যায়ে নূন্যতম ৩০০ নম্বর নির্ধারণ হয়। তবে সুপারিশপ্রাপ্ত ইংরেজি শিক্ষকরা ডিগ্রি/স্নাতক কোর্স ৪০০ নম্বরের সম্পন্ন করায় এই জটিলতার সৃষ্টি হয়েছে। এছাড়া গণিতে ৩০০ নম্বর থাকার পরও এমপিওভুক্ত হতে পারছেন না শিক্ষকরা। যদিও তৃতীয় গণবিজ্ঞপ্তিতে স্কুল পর্যায়ে সুপারিশপ্রাপ্তরা ৪০০ নম্বরের কোর্স করেও এমপিওভুক্ত হয়েছেন।

মাদ্রাসা শিক্ষা অধিদপ্তর হতে ডিগ্রি (পাস) / স্নাতক পর্যায়ে নূন্যতম ৩০০ নম্বর ইংরেজি ও গণিত ব্যতীত স্নাতক পর্যায়ের সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ডিগ্রি সার্টিফিকেট কোর্স ৪০০ নম্বর ইংরেজি ও ৩০০ নম্বর গণিত দিয়ে আমাদের এমপিওভুক্ত করছে না। তাই আমরা এমপিওভুক্ত হতে না পারায় মানবেতর ও অত্যন্ত কষ্টে জীবন-যাপন করছি।

তাদের দাবি, সুপারিশ পাওয়ার পর দীর্ঘ সময় অতিবাহিত হলেও এখনো তারা এমপিওভুক্ত হতে পারেননি। এমপিও না হওয়ায় তারা বেতন পাচ্ছেন না। ফলে পরিবার নিয়ে চরম মানবেতর জীবনযাপন করতে হচ্ছে তাদের। দ্রুত এই সমস্যার সমাধান করে তাদের এমপিওভুক্ত করা হোক।