এবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পাচ্ছেন যারা

 নিউজ ডেস্ক।।

চলচ্চিত্রের সর্বোচ্চ স্বীকৃতি জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার। প্রতি বছর ২৮টি ক্যাটাগরিতে এই পুরস্কার দেয়া হলেও এই বছর ‘শ্রেষ্ঠ নৃত্য পরিচালক’ ক্যাটাগরিতে কোনো প্রার্থী যোগ্য বিবেচিত না হওয়ায় ২৭ ক্যাটাগরিতে ৩৪টি পুরস্কার দেয়া হবে। সম্প্রতি জাতীয় পুরস্কার সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি চূড়ান্ত তালিকার অনুমোদন দিয়েছে। এবার চলচ্চিত্রে উল্লেখযোগ্য অবদান রাখায় আজীবন সম্মাননা পাচ্ছেন নন্দিত অভিনেত্রী ডলি জহুর। তার সঙ্গে যৌথভাবে এই সম্মাননা পাবেন অভিনেতা ইলিয়াস কাঞ্চন। এবার শ্রেষ্ঠ অভিনেতা বিভাগে যৌথভাবে পুরস্কার পাবেন মো. সিয়াম আহমেদ (মৃধা বনাম মৃধা) ও মীর সাব্বির মাহমুদ (রাতজাগা ফুল)। শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী হিসেবে যৌথভাবে আজমেরী হক বাঁধন (রেহানা মরিয়ম নূর) ও তাসনোভা তামান্না (নোনাজলের কাব্য) পুরস্কার পেতে যাচ্ছেন। শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র যৌথভাবে নির্বাচিত হয়েছে লাল মোরগের ঝুঁটি ও নোনাজলের কাব্য। এ ছাড়াও শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র পরিচালক রেজওয়ান শাহরিয়ার সুমিত (নোনাজলের কাব্য), শ্রেষ্ঠ অভিনেতা পার্শ্ব চরিত্রে এম ফজলুর রহমান বাবু (নোনাজলের কাব্য), শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী পার্শ্ব চরিত্রে শম্পা রেজা (পদ্মপুরাণ), শ্রেষ্ঠ অভিনেতা খল চরিত্রে মো. আবদুল মান্নান জয়রাজ (লাল মোরগের ঝুঁটি), শ্রেষ্ঠ অভিনেতা কৌতুক চরিত্রে প্রভাষ কুমার ভট্টাচার্য্য মিলন (মৃধা বনাম মৃধা), শ্রেষ্ঠ শিশুশিল্পী আফিয়া তাবাসসুম (রেহানা মরিয়ম নূর) ও শিশুশিল্পী শাখায় বিশেষ পুরস্কার পাচ্ছে জান্নাতুল মাওয়া ঝিলিক (যা হারিয়ে যায়)। এ ছাড়া শ্রেষ্ঠ সংগীত পরিচালক সুজেয় শ্যাম (যৈবতী কন্যার মন), শ্রেষ্ঠ গায়ক কে এম আবদুল্লাহ-আল-মুর্তজা মুহিন (শোনাতে এসেছি আজ-পদ্মপুরাণ), শ্রেষ্ঠ গায়িকা চন্দনা মজুমদার (দেখলে ছবি পাগল হবি-পদ্মপুরাণ), শ্রেষ্ঠ গীতিকার প্রয়াত গাজী মাজহারুল আনোয়ার (অন্তরে অন্তর জ্বালা-যৈবতী কন্যার মন), শ্রেষ্ঠ সুরকার সুজেয় শ্যাম (অন্তরে অন্তর জ্বালা-যৈবতী কন্যার মন), শ্রেষ্ঠ কাহিনীকার রেজওয়ান শাহরিয়ার সুমিত (নোনাজলের কাব্য), শ্রেষ্ঠ চিত্রনাট্যকার নূরুল আলম আতিক (লাল মোরগের ঝুঁটি) এবং শ্রেষ্ঠ সংলাপ রচয়িতার পুরস্কার পাচ্ছেন তৌকীর আহমেদ (স্ফুলিঙ্গ)।

এ ছাড়া শ্রেষ্ঠ সম্পাদক সামির আহমেদ, শ্রেষ্ঠ শিল্প নির্দেশক শিহাব নূরুন নবী, শ্রেষ্ঠ চিত্রগ্রাহক দলগত সৈয়দ কাশেফ শাহবাজি, সুমন কুমার সরকার, মাজহারুল ইসলাম রাজু, শ্রেষ্ঠ শব্দগ্রাহক শৈব তালুকদার, শ্রেষ্ঠ পোশাক ও সাজসজ্জা ইদিলা কাছরিন ফরিদ এবং শ্রেষ্ঠ মেকআপম্যান হয়েছেন দলগতভাবে মো. ফারুখ ও মো. ফরহাদ রেজা মিলন।