এনটিআরসিএর ফল প্রকাশ, যেভাবে দেখবেন

প্রকাশিত: ১০:৩৯ অপরাহ্ণ, বৃহঃ, ১৫ জুলাই ২১

নিউজ ডেস্ক।।

সকাল থেকেই বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন কর্তৃপক্ষের অফিসের সামনে ফল প্রত্যাশীদের জটলা। দীর্ঘ আড়াই বছরের অপেক্ষার অবসানে ফল না নিয়ে তারা ঘরে ফিরবে না। বিকেল গড়িয়ে সন্ধ্যা নামলেও বেকার জীবনের অবসান জেনো কিছুতেই হচ্ছিল না।

রাত হতেই অপেক্ষার সঙ্গে বাড়তে থাকে অনিশ্চয়তা। একজন চাকরি প্রত্যাশী যেন একটি ক্ষুদে বার্তার জন্য সারাক্ষণ চেয়ে আছে মোবাইলের স্ক্রিনে। অবশেষে রাত ১০টার কিছু আগে তাদের মোবাইলে এসএমএস না এলেও মিলেছে স্বস্তি। ঈদের আগেই খুশির বার্তা নিয়ে ঘরে ফিরছেন তারা।

বৃহস্পতিবার রাত পৌনে ১০টায় এনটিআরসিএ ওয়েবসাইটে ব্যাচ ও নম্বর দিয়ে ফল দেখা যাচ্ছে। ফলে ৫১ হাজার চাকরি প্রত্যাশীদের বেকারত্বের অপবাদ ঘুচল।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষের (এনটিআরসিএ) সচিব ড. এ টি এম মাহবুব-উল করিম বলেন, চাকরি প্রত্যাশীরা এসএমএস আজ না গেলেও আগামীকাল থেকে যাওয়া শুরু করবে। এ বিষয়ে টেলিটকের সঙ্গে বৈঠক হয়েছে। প্রথমে এমপিওভুক্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের চাকরি প্রত্যাশিদের এসএমএস যাবে, এরপর যাবে নন-এমপিওভুক্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের এসএমএস।

এর আগে বৃহস্পতিবার বেলা ১১টার দিকে ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে এ বিষয়ে কথা বলেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। তিনি বলেন, আজ সন্ধ্যা থেকে প্রার্থীরা টেলিটকের এসএমসের মাধ্যমে ফল পাবেন। এ ছাড়া এনটিআরসিএর ওয়েবসাইটেও ফল প্রকাশ করা হবে।

শিক্ষামন্ত্রী আরো জানান, বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ৫৪ হাজার শূন্য পদে শিক্ষক নিয়োগ দিতে আবেদন প্রক্রিয়া শেষ করা হলেও আদালতে মামলার কারণে আবেদনকারীদের ফলাফল এত দিন প্রকাশ করা সম্ভব হয়নি। আদালতের নির্দেশনা মোতাবেক ৫১ হাজার ৭৬১টি পদে নিয়োগ দেয়া হবে।

শিক্ষক নিবন্ধনের ১ থেকে ১২তম পর্যন্ত পাস করেও চাকরি না পাওয়া ২ হাজার ৫০০ জনকে শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ দিতে এনটিআরসিএকে সুপারিশ করে রায় দিয়েছিল হাইকোর্ট। সে রায় ২৮ জুন বাতিল করে দেয় আপিল বিভাগ।

ফল প্রত্যাশীদের অন্যতম নেতা শান্ত আহমেদ বলেন, প্রিলি, লিখিত ও ভাইভা দিয়েও মামলা জটিলতায় আটকে ছিলো ফল প্রকাশ। আজকের ফল প্রকাশের মধ্যদিয়ে অনেক পরিবার পরিত্রাণ পেয়েছে। এ সংগ্রামের সময় যারা পাশে ছিলেন সকলকে তিনি ধন্যবাদ জানাই।

উল্লেখ্য, চলতি বছরের ৩০ মার্চ তৃতীয় ধাপে বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে ৫৪ হাজার ৩০৪ শিক্ষক নিয়োগে তৃতীয় গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে এনটিআরসিএ।

গণবিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী, ৫৪ হাজার ৩০৪টি শূন্যপদের মধ্যে স্কুল ও কলেজ পর্যায়ে ৩১ হাজার ১০১টি পদ রয়েছে। এর মধ্যে এমপিওভুক্ত পদ ২৬ হাজার ৮৩৮টি। মাদ্রাসা ও কারিগরি প্রতিষ্ঠানে মোট শূন্যপদ ২০ হাজার ৯৯৬টি। এর মধ্যে ১৯ হাজার ১৫৪টি এমপিওভুক্ত। আর ২ হাজার ২০৭টি এমপিও পদে রিট মামলায় অংশগ্রহণদের জন্য সংরক্ষিত রাখা হয়।

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়.