একনেকে প্রধানমন্ত্রীর ৭ নির্দেশনা

প্রকাশিত: ২:০০ অপরাহ্ণ, বৃহঃ, ২৯ জুলাই ২১

নিউজ ডেস্ক।।

সেতু ও কালভার্ট নির্মাণে নৌ চলাচলের জন্য উপযোগী উচ্চতা ঠিক রাখাসহ অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) বৈঠকে ৭টি নির্দেশনা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গতকাল বুধবার নতুন অর্থবছরের প্রথম এবং বর্তমান সরকারের চলতি মেয়াদের ৬১তম একনেক সভায় তিনি এ নির্দেশনা দেন। বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান।

পরে নতুন দায়িত্বপ্রাপ্ত পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী ড. শামসুল আলমও এসব অনুশাসনের ব্যাখ্যা দেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে একনেকে প্রায় ২ হাজার ৫৭৫ কোটি ৪২ লাখ টাকা ব্যয়সংবলিত ১০টি প্রকল্পের অনুমোদন দেওয়া হয়। শেরেবাংলা নগরে এনইসি সম্মেলনকক্ষে অনুষ্ঠিত এই বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত ছিলেন।

প্রধানমন্ত্রীর অনুশাসনের কথা উল্লেখ করে পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, ‘দেশে নতুন যেসব সড়ক বা মহাসড়ক নির্মাণ করা হবে- সেখানে আন্ডারপাস, ওভারপাস, ইউলুপ ইত্যাদি বিষয়ে নজর রাখার নির্দেশনা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।’ অনেক জায়গায় মানুষের চলাচল বাধাগ্রস্ত হচ্ছে উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, এখন থেকে যত রাস্তাঘাট করা হবে এ বিষয়ে সতর্ক থাকতে হবে। যাতে মানুষ ও যানবাহন চলাচলে কোনো বিঘœ না ঘটে। তিনি সড়ক বিভাগকে এই নির্দেশনা দিয়েছেন।’

অস্ট্রেলিয়ায় বাংলাদেশ চ্যান্সেরি ভবন নির্মাণ প্রকল্প পাস করার সময় প্রধানমন্ত্রী ভবন নির্মাণে ওই দেশের নিয়মকানুন অনুসরণ করতে বলেছেন।

করোনাকালে দেশে ফেরত আসা প্রবাসীদের কর্মসংস্থানে নেওয়া একটি প্রকল্প পাস হওয়ার সময় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনার উদ্ধৃতি দিয়ে পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, ‘তারা (প্রবাসীরা) এতদিন আমাদের দিয়েছেন। এখন তাদের আমাদের দিতে হবে। তারা যাতে পুনরায় আমাদের সমাজে রিইন্টিগ্রেড হতে পারে; তারা যেন সম্মানজনক পেশায় যুক্ত হতে পারে, তার জন্য সহায়তা দিতে হবে।’

এ বিষয়ে পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী ড. শামসুল আলম বলেন, ‘এ পর্যন্ত পাঁচ লাখ প্রবাসী দেশে ফিরে এসেছেন। এর মধ্যে প্রত্যাগত অভিবাসীকর্মীদের পুনঃ একত্রীকরণের লক্ষ্যে আনুষ্ঠানিক খাতে কর্মসংস্থান সৃজনে সহায়ক প্রকল্পের মাধ্যমে দুই লাখ শ্রমিককে সহায়তা করা হবে। এ প্রকল্পের মাধ্যমে প্রবাসী শ্রমিকদের ডাটাবেজ করা হবে।’

নারীদের কম্পিউটার প্রশিক্ষণের জন্য নেওয়া একটি প্রকল্পে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনার কথা উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী নারীদের জন্য এ ধরনের প্রশিক্ষণ ব্যাপকভাবে গ্রহণ করতে বলেছেন। তিনি এ বিষয়গুলো প্রকল্পের মধ্যে না এনে রাজস্ব বাজেটে অন্তর্ভুক্ত করতে বলেছেন।’

এ বিষয় প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, নারীদের প্রশিক্ষণের বিষয়টি রাজস্ব বাজেটে যেতে পারে। এটাকে প্রকল্প আকারে আনার দরকার পড়ে না। নিয়মিত কার্যক্রমের মধ্যে নিয়ে আসা যায়।’

ব্রিজ নির্মাণে প্রধানমন্ত্রীর সতর্কতার কথা ?উল্লেখ করে পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, ‘এই বিষয়টি প্রধানমন্ত্রী আগেও কয়েকবার বলেছেন। আজও বলেছেন যে ব্রিজ নির্মাণে উচ্চতা যেন ঠিক থাকে। জোয়ার-ভাটায় বাংলাদেশে পানি বাড়ে-কমে। এ জন্য নৌ, সড়ক ও স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়কে সমন্বয় করে এসব ব্রিজ-কালভার্ট তৈরি করবেন। সেতুগুলোর উচ্চতা যেন যথাযথ হয়, সেটা দেখতে হবে।’

মুন্সীগঞ্জে পদ্মার ভাটিতে বাঁধ নির্মাণ বিষয়ে প্রকল্প পাসের সময় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনার কথা তুলে ধরে পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, ‘এখানে-সেখানে অনেক বালুমহাল গড়ে উঠেছে। এগুলো যথাযথ স্থানে স্থানান্তর করতে হবে। বালু ব্যবসা বন্ধের কথা বলছি না। কিন্তু যার যেখানে ইচ্ছা এটা করবে, এটা ঠিক নয়। এ জন্য প্রধানমন্ত্রী নৌসহ সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়কে ব্যবস্থা নিতে বলেছেন।’ এ ছাড়া বিসিক খাদ্য প্রক্রিয়াজাতকরণ শিল্পনগরী প্রকল্প পাসের সময় প্রধানমন্ত্রী ওই শিল্পনগরীকে অন্যান্য খাদ্যদ্রব্যের পাশাপাশি দুধ ও দুগ্ধজাত খাদ্য তৈরির ইউনিট রাখার নির্দেশনা নিয়েছেন বলে মন্ত্রী জানান।

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়.