একই সময়ে স্কুলে ৩ শিক্ষিকা অনুপস্থিত, কারণ দর্শানোর নোটিশ

প্রকাশিত: ৯:৫২ পূর্বাহ্ণ, সোম, ৪ অক্টোবর ২১

নিউজ ডেস্ক।।

মেহেরপুরের একটি স্কুলের তিন শিক্ষিকা একই দিনে অনুপস্থিত থাকায় প্রধান শিক্ষককে কারণ দর্শানোর নোটিশ দিয়েছে জেলা শিক্ষা অধিদপ্তরের পরিদর্শক দল।

রোববার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার ও উপজেলা শিক্ষা অফিসারের সমন্বয়ে একটি পরিদর্শক দল এ নিদের্শ দেয় মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার বামুন্দী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষককে।

অনুপস্থিত থাকা তিন শিক্ষিকা হলেন, লুবেরি আদিলা জুঁই, রেহেনা খাতুন ও নাসরিন আক্তার।

দীর্ঘদিন স্কুল ছুটি থাকার পর একসঙ্গে তিন শিক্ষিকার অনুপস্থিতির বিষয়ে ওই স্কুলের প্রধান শিক্ষক জানান, তারা নৈমিত্তিক ছুটিতে (সিএল) আছেন।

জানা যায়, জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার ভুপেশ চন্দ্র রায়, গাংনী উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার আলাউদ্দিনসহ একটি পরিদর্শক দল বামুন্দী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে গিয়ে তিন শিক্ষিকা লুবেরি আদিলা জুঁই, রেহেনা খাতুন ও নাসরিন আক্তারকে অনুপস্থিত পান।

এ সময় বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মকবুল হোসেনকে তাদের অনুপস্থিতির বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি নৈমিত্তিক ছুটির কথা বলে পাশ কাটিয়ে যান। একইসঙ্গে ৩ শিক্ষিকার নৈমিত্তিক ছুটি কী কারণে দেয়া হয়েছে তা ৭ দিনের মধ্যে লিখিত জবাব দিতে নির্দেশ দেন পরিদর্শক দলের প্রধান।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মকবুল হোসেন বলেন, লুবেরি আদিলার ছেলে অসুস্থ থাকায় তাকে ছুটি দিতে হয়েছে। নাসরিন আক্তারের বাড়িতে মেহমান এসেছে এবং রেহেনা অসুস্থ থাকায় ছুটি নিয়েছেন।

গাংনী উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার আলাউদ্দিন বলেন, আমরা তিন শিক্ষিকার অনুপস্থিতির বিষয়টি নিয়ে রেজিস্ট্রার খাতায় লিখিত জবাব দিতে বলেছি। সন্তোষজনক না হলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। জেলা শিক্ষা অফিসার ভুপেশ চন্দ্র রায় বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, আমরা সকাল সাড়ে ৯টার সময় বিদ্যালয়ে গিয়ে দেখি ৩ শিক্ষিকা অনুপস্থিত। পরে প্রধান শিক্ষককে কারণ দর্শানোর নোটিশ দিয়েছি। দীর্ঘছুটির পর একসঙ্গে ৩ শিক্ষিকার নৈমিত্তিক ছুটির বিষয়টি প্রধান শিক্ষক কিভাবে দিয়েছেন তার ব্যাখ্যা চাওয়া হয়েছে। তিনি সাত দিনের মধ্যে লিখিত জানাবেন।

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়.